‘সম্ভবত বাংলাদেশই এবারের সেরা দল’, বললেন পাকিস্তান কোচ

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ভারতের চেয়েও বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখলেন পাকিস্তান কোচ আদেল মির্জা রিজকি।

কাঠমান্ডু থেকে ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Sept 2022, 11:57 AM
Updated : 10 Sept 2022, 11:57 AM

ভারত কেবল মেয়েদের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপাধারীই নয়, এ প্রতিযোগিতার সবগুলোর আসরের চ্যাম্পিয়নও তারা। তাদের বিপক্ষে ৩-০ গোলে হেরেই আসর শুরু করেছে পাকিস্তান। এবার বাংলাদেশের কাছে পাকিস্তান পাত্তাই পায়নি দলটি, হেরেছে ৬-০ গোলে। ম্যাচ দুটির অভিজ্ঞতা থেকে পাকিস্তান কোচ আদেল মির্জা রিজকি লাল-সবুজ জার্সিধারীদেরই এগিয়ে রাখলেন। একাধিকবার বললেন, তার দৃষ্টিতে এবারের আসরের সেরা দল ভারত নয়, বাংলাদেশ।

নেপালের কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে শনিবার পাকিস্তানকে গুঁড়িয়ে দেওয়ার ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। একবার করে জালের দেখা পান মনিকা চাকমা, সিরাত জাহান স্বপ্না ও ঋতুপর্ণা চাকমা।

ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তান পিছিয়ে পড়েছিল ২১তম মিনিটে, অধিনায়ক মারিয়া খান জামিলের আত্মঘাতী গোলে। বাংলাদেশের বিপক্ষে তারা গোল খেয়ে বসে তৃতীয় মিনিটেই। ম্যাচ শেষের প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তান কোচও অকপটে মেনে নিলেন, তার কোনো পরিকল্পনাই কাজে আসেনি।”

“আমি মনে করি, এই টুর্নামেন্টের সেরা দলগুলোর একটির মুখোমুখি হয়েছিলাম আমরা। নিশ্চিতভাবেই বাংলাদেশ শক্তিশালী দলগুলোর একটি। বেশ কিছুদিন ধরে আমরা তাদেরকে অনুসরণ করছিলাম এবং আমাদের যে হোম-ওয়ার্ক ছিল, সেগুলো করেছিলাম। সম্প্রতি তারা মালয়েশিয়ার বিপক্ষে দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলেছিল।”

ভারত ও বাংলাদেশের বিপক্ষে একই নিবেদন নিয়ে পাকিস্তান খেলতে নেমেছিল বলে দাবি আদেলের। এ নিয়ে বলতে গিয়ে বাংলাদেশকে আবারও সেরা দল বলে প্রশংসায় ভাসান তিনি। ২০১৪ সালের পর প্রথম আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলতে আসা ‘তরুণ পাকিস্তান’ দলের জন্য আরও সময় চান তিনি।

“আমি মনে করি, সম্ভবত এ মুহুর্তে এই টুর্নামেন্টের সেরা দল বাংলাদেশ এবং এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই, যদিও ভারত ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন। বাংলাদেশের বিপক্ষে আমাদের সতর্ক থাকা, স্মার্ট হওয়া, বল দ্রুত মুভ করা এবং যে সুযোগগুলো এসেছিল, তা কাজে লাগানোর প্রয়োজন ছিল। মেয়েদের মধ্যে ভারতের মতো বাংলাদেশ ম্যাচ নিয়েও একই নিবেদন ছিল। আপনারাও দেখেছেন তারা অনেক দৌড়েছে, উপরে উঠেছে, নিচে নেমেছে। আমাদেরকে অরেকটু সময় দিন, আমরা শক্তভাবে ফিরব।”

“বাংলাদেশ আসলেই খুবই ভালো বল প্লেয়িং টিম, তাদের বিপক্ষে খেলা খুব সহজ ছিল না। দলকে যতটা শেপে আনা যায়, আমরা সে চেষ্টা করেছি, এখনও পাকিস্তান তরুণ একটি দল, আমাদের অনেক কাজ করার আছে, সেগুলো নিয়ে আমাকে ভাবতে হবে, ধাপে ধাপে এগিয়ে যেতে হবে। (টানা দুই ম্যাচ হেরে) আমরা পিছিয়ে আছি, কিন্তু ইতিবাচক অনেক কিছু নেওয়ার আছে আমাদের। এখন আমরা আমাদের পরের ম্যাচের দিকে তাকিয়ে আছি।”

প্রথমার্ধেই চার গোলে খেয়ে কোণঠাসা হয়ে যায় পাকিস্তান। দ্বিতীয়ার্ধে তাই যতটা সম্ভব কম গোল খাওয়ার পরিকল্পনা ছিল বলেও জানান পাকিস্তান কোচ।

“এটা আমাদের জন্য মাস্ট উইন গেম ছিল, কিন্তু (প্রথমার্ধে চার গোল খাওয়ার পর) আমরা আর বেশি গোল হজম করতে চাইনি। যে গোলগুলো আমরা খেয়েছি, তার অধিকাংশই নিজেদের ভুলে খেয়েছি। অবশ্যই বাংলাদেশ খুবই ভালো ফিনিশিং করেছে, কিন্তু আমাদের আরও জমাট, আঁটসাঁট থাকা, অল্প হলেও যে সুযোগগুলো এসেছিল তা কাজে লাগানোর প্রয়োজন ছিল, কিন্তু আমরা সেটা করতে পারিনি।”

আগামী মঙ্গলবার মালদ্বীপের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বে নিজেদের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচ খেলবে পাকিস্তান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক