রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে হামলা: ‘নিজস্ব নিরাপত্তা রক্ষীরা জড়িত’

“প্রাথমিক তদন্তে আমরা যা পেয়েছি, এই ঘটনাটি কোনো ডাকাতির ঘটনা নয়।”

বাগেরহাট প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 4 April 2024, 11:23 AM
Updated : 4 April 2024, 11:23 AM

বাগেরহাটের রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে হামলার ঘটনায় ১১ জনকে গ্রেপ্তারের খবর জানিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বাগেরহাটের পুলিশ সুপার এক সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস) মো. রাসেলুর রহমান জানান, ভোর থেকে সকাল পর্যন্ত বিদ্যুৎ কেন্দ্রের আশেপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি ‘অরক্ষিত’ হওয়ায় প্রায়ই চুরির ঘটনা ঘটছে জানিয়ে এ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, “তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নিজস্ব যে নিরাপত্তা রক্ষীরা রয়েছে, তারাও চুরির সঙ্গে জড়িত।”

এর আগে বুধবার রাত ১১টা থেকে সাড়ে ১১টার মধ্যে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের আবাসিক ভবনের গেটে এ হামলার ঘটনায় এক আনসার সদস্যসহ পাঁচ নিরাপত্তাকর্মী আহত হয়েছেন বলে রামপাল থানার ওসি সোমেন দাস জানিয়েছেন।

আহতরা হলেন-তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের সুপার ভাইজার আকরাম হোসেন, নিরাপত্তাকর্মী সাইদুল ইসলাম, মিন্টু বৈরাগী, ব্রজেন মণ্ডল ও আনসার ব্যাটালিয়নের হাবি কামাল পাশা।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, “বাগেরহাটের রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ৩০-৪০ জনের একটি চোর চক্র চুরির উদ্দেশ্যে আসে। তারা বিভিন্ন মালামাল চুরি করে নিয়ে যাওয়ার সময় কেন্দ্রের নিজস্ব নিরাপত্তাকর্মীরা টের পেয়ে সেখানে গিয়ে তাদের বাধা দেয়। এ সময় তারা চড়াও হয়ে মারধর করে।

“পরে আনসার সদস্যরা ঘটনাস্থলে আসলে তাদের ওপরও হামলা করে তারা। আনসার সদস্যরা এ সময় তাদের লক্ষ্য করে হঠাৎ ফাঁকা গুলি ছুঁড়লে তারা পালিয়ে যায়। হামলায় আনসার সদস্যসহ অন্তত পাঁচজন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে অন্তত ১১ জনকে গ্রেপ্তার করে।”

এ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, “তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নিজস্ব যে নিরাপত্তা রক্ষীরা রয়েছে, তারাও চুরির সঙ্গে জড়িত। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। যারা এই ঘটনায় জড়িত রয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রাথমিক তদন্তে আমরা যা পেয়েছি, এই ঘটনাটি কোনো ডাকাতির ঘটনা নয়।”

হামলায় আহত তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সুপার ভাইজার আকরাম হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, রাতে ৫০-৬০ জনের একটি দল আলাদা আলাদাভাবে অতর্কিত হামলা শুরু করে। এ সময় আমরা ঠেকানোর চেষ্টা করি; কিন্তু তাদের সঙ্গে আমরা পেরে উঠিনি।

নিরাপত্তাকর্মী সাইদুল ইসলাম বলেন, “এই চক্রটি মালামাল চুরির উদ্দেশ্যে এসেছিল। তারা আমাদের মারধর করে মালামাল চুরি করে নিয়ে গেছে। হামলায় আমরা অন্তত পাঁচজন আহত হই।”

রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের উপ-মহাব্যবস্থাপক আনোয়ারুল আজিম সাংবাদিকদের বলেন, আহতদের দুজনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং তিনজনকে রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।