আলফাডাঙ্গায় সাংবাদিককে মারধরে মামলা, প্রধান আসামি জাপান মোল্লা

সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় দুইজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত চার-পাঁচজনের নামে হত্যাচেষ্টার মামলা হয়েছে।

ফরিদপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 August 2022, 05:33 PM
Updated : 2 August 2022, 05:33 PM

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার স্থানীয় সাংবাদিক মুজাহিদুল ইসলাম নাঈমকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে আলফাডাঙ্গায় থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলায় প্রধান আসামি হলেন আলফাডাঙ্গার পৌর মেয়রের ভাই জাপান মোল্লা।

এদিকে ঘটনার দিন গ্রেপ্তার এক নারীর জামিন নাকচ করে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার ফরিদপুরের নয় নম্বর আমলী আদালতের বিচারক মারুফ হোসেন এই আদেশ দেন।

আটক পারুল বেগম এই মামলার দুই নম্বর আসামি।

বাদী পক্ষের আইনজীবী অনিমেশ রায় বলেন, সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেপ্তার আসামি পারুল বেগমকে আজ আদালতে তোলা হয়। পরে শুনানি শেষে আদালত তার জামিন আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়।

মধুখালী সার্কেলের (আলফাডাঙ্গা, মধুলাখালী ও বোয়ালমারী) সহকারী পুলিশ সুপার সুমন কর বলেন, “সাংবাদিককে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় আজ থানায় মামলা হয়েছে। গতকালই আমরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত একজনকে আটক করেছিলাম। আজ সেই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে তোলা হয়।”

আলফাডাঙ্গা থানা পুলিশ জানিয়েছে, সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় দুইজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত চার-পাঁচজনের নামে হত্যাচেষ্টার মামলা হয়। মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান চলছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দুপুরে স্থানীয় বাসস্টাণ্ডে মারধরের শিকার হন সাংবাদিক মুজাহিদ। তাাকে লোহার রড, স্ট্যাম্প, দেশিয় অস্ত্র-সস্ত্র দিয়ে পেটানো হয়। এ সময় স্থানীয়রা মুজাহিদকে রক্ষায় এগিয়ে এলে তাদের ওপর চড়াও হয় দুর্বৃত্তরা। এতে বেশ ক’জন আহত হন।

সাংবাদিক মুজাহিদ ঢাকাটাইমস পত্রিকার নিজস্ব প্রতিবেদক ও আলফাডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাংগাঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, আলফাডাঙ্গায় রাজধানী পরিবহনের কাউন্টারে টিকেট কিনতে যান রমিজ নামের এক যুবক। তিনি ঢাকার একটি টিকেটের দাম পরিশোধ করে বাসে ওঠেন। বাস ছাড়ার আগ মুহূর্তে ‘ক্যাশ কাউন্টার’ থেকে বলা হয় রমিজ টিকিটের টাকা দেননি। তাই তাকে ঢাকায় যেতে দেওয়া হবে না। বিষয়টি জানিয়ে নাঈমের সহযোগিতা চান রমিজ। ঘটনাস্থলে এসে বিষয়টির মীমাংসা করার কথা বলতেই সাংবাদিক মুজাহিদের ওপর চড়াও হয় কাউন্টারের ম্যানেজার জাপান ও তার সহযোগীরা।

জাপান স্থানীয় পৌর মেয়র সাইফারের ছোট ভাই। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মুজাহিদকে বেধড়ক পেটানো হয়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। বর্তমানে মুজাহিদ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

আরও পড়ুন:

Also Read: ফরিদপুরে সাংবাদিককে পেটালেন ‘মেয়রের ভাই’

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক