জাবির ‘গেস্ট রুমে’ সাংবাদিক নির্যাতনের অভিযোগ

সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের এই শিক্ষার্থী ক্যারিয়ারটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 August 2022, 04:17 PM
Updated : 3 August 2022, 04:17 PM

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে এক গণমাধ্যমকর্মীকে ‘গেস্ট রুমে’ ডেকে নিয়ে মারধরের অভিযোগ উঠেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের এই শিক্ষার্থী ক্যারিয়ারটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি।

মঙ্গলবার মধ্যরাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলে এই মারধরের ঘটনা ঘটে বলে তার অভিযোগ।

বুধবার এই হলের প্রাধ্যক্ষ বরাবর করা অভিযোগে ওই সাংবাদিক আট ছাত্রলীগ কর্মীর নাম উল্লেখ করেছেন।

অভিযোগে বলা হয়, “রুম থেকে গেস্ট রুমে ডেকে নিয়ে আমাকে সিলিং ধরে ঝুলতে বলা হয়, টেবিলের নিচে মাথা দিতে বলা হয়। আমি বাধ্য হয়ে ঝুলেছি। কিন্তু অসুস্থতার কারণে টেবিলের নিচে মাথা দিতে পারিনি। তাদেরকে আমি সাংবাদিক পরিচয় দেওয়ার পর তারা আরও বেশি আক্রমণাত্মক আচরণ করে আমার সাথে।”

অভিযোগে আরও বলা হয়, নির্যাতনের এক পর্যায়ে তিনি মোবাইল ফোনে রেকর্ড করছিলেন কিনা তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য তারা ফোনটা দিতে বলে। লক খুলে দিতে বললে তিনি অস্বীকৃতি জানান।

“পরে তারা আমার শার্টের কলার ধরে অনেকে মিলে আক্রমণ করে। তারা আমার ফোন অনেকক্ষণ আটকে রাখে।”

মারধরকারীদের মধ্যে ৪৭তম ব্যাচের অর্থনীতি বিভাগের জিয়াদ মির্জাসহ কয়েজন ‘ছাত্রলীগকর্মী ছিলেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

তবে জিয়াদ মির্জা তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমি গেস্ট রুমে উপস্থিত ছিলাম। সেখানে কয়েকজন অভিযোগকারীর সাথে বাজে আচরণ করেছে। আমি তেমন কিছুই বলিনি। আমাকে স্পষ্টতই ফাঁসানো হয়েছে।”

হামলার অভিযোগে থাকা আরও কয়েকজনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তারা কেউ ফোন রিসিভ করেননি।

অভিযোগের ব্যাপারে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ হলের প্রাধ্যক্ষ আব্দুল্লাহেল কাফী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আজকে বিকালে আমি অভিযোগ পেয়েছি। আমরা আজকে সন্ধ্যায় সভা আহ্বান করেছি। অতি দ্রুত সিদ্ধান্ত জানাব। সেটা হতে পারে তিন কার্যদিবসের মধ্যে।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নূরুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, “মঙ্গলবারের মধ্যরাতের ঘটনা আজকে সকালে আমি শুনেছি। ওই হলের প্রাধ্যক্ষের সাথে কথা বলেছি। অভিযুক্ত এবং অভিযোগকারী উভয়ের সাথে কথা বলে আমরা সিদ্ধান্ত নিব।”

এদিকে মঙ্গলবার মধ্যরাতের এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঘটনার পরপরই বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলে উপস্থিত হন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতি আক্তারুজামান সোহেল সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে প্রাথমিকভাবে ‘ক্রস চেক’ করে আট জনের নাম ঘোষণা করে তাদেরকে ছাত্রলীগে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন।

আক্তারুজ্জামান সোহেল বলেন, “এই কর্মীরা ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকুক তা আমরা চাই না। সাংগঠনিক সকল ধরনের কাজ থেকে তারা অবাঞ্ছিত বলে গণ্য হবেন। তারা এই কমিটি থাকা অবস্থায় রাজনীতির সঙ্গে কোনোভাবে যুক্ত থাকবেন না এবং আগামী কমিটিতেও তাদের থাকার কোনো সুযোগ নেই।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক