নিজ অর্থে সাঁকো করলেন পুলিশ কর্মকর্তা

দীর্ঘদিন মেরামত না করায় গাছ ও বাঁশ নির্মিত এই সাঁকো দিয়ে চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছিল।

বরিশাল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 July 2022, 07:15 PM
Updated : 24 July 2022, 07:15 PM

বরিশালের বানারীপাড়ায় নিজ অর্থে দশটি গ্রামের মানুষের চলাচলের রাস্তায় একটি সেতু নির্মাণ করে দিয়েছেন পুলিশের এক এসআই।

শুক্রবার ও শনিবার দুদিনে পুরনো সাঁকো ভেঙে নতুন এই সেতু নির্মাণ করেন ভাণ্ডারিয়া থানায় কর্মরত এসআই জিয়াউর রহমান।

তিনি বানারীপাড়া উপজেলার সৈয়দকাঠী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসান বালীর ছেলে।

এসআই জিয়াউর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, দুই দিনের ছুটিতে গ্রামের বাড়িতে আসেন। তখন দেখতে পান উপজেলার সৈয়দকাঠী ইউনিয়নের পশ্চিম আউয়ারের গ্রামে গাছ-বাঁশ নির্মিত এই সাঁকোটি ঝুঁকিপূর্ণ।

এলাকাবাসীর বরাতে এসআই জিয়া বলেন, দীর্ঘদিন ধরে মেরামত না করায় সাঁকো দিয়ে চলাচল করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। স্কুল কলেজ শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষের চলাচলের একমাত্র সাঁকো মেরামতে এলাকার জনপ্রতিনিধিরা উদ্যোগ নেননি।

জিয়া বলেন, এই সাঁকো দিয়ে বানারীপাড়া উপজেলার সৈয়দকাঠি ও উদয়কাঠি ইউনিয়নের দশ গ্রামের স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ বাসিন্দারা চলাচল করে।

তিনি জানান, তাদের দুর্দশার কথা উপলব্ধি করে শুক্রবার সকালে সেতু নির্মাণ শুরু করেন। শনিবার দিনভর ১২ জন শ্রমিক ও কাঠ মিস্ত্রি নিয়ে নির্মাণ কাজ শেষ করেছেন।

সাকো নির্মাণে তার ৮/৯ হাজার টাকা ব্যয় হয়েছে বলে জানিয়েছেন এসআই।

তিনি আরও বলেন, ছুটিতে বাড়ি গেলে সাঁকোটি মেরামত করে দেওয়ার জন্য একাধিকবার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে বলেছেন। কিন্তু তিনি কর্ণপাত না করায় নিজে এই উদ্যোগ নিয়েছেন।

সাঁকো দিয়ে নিয়মিত চলাচলকারী উদয়কাঠি ইউনিয়নের তেতলা গ্রামের বাসিন্দা মো. রুস্তুত বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, দুই থেকে আড়াই বছর ধরে সাঁকোটি ভাঙাচোরা অবস্থায় পড়েছিল। মেহেগনি গাছ ও বাঁশ দিয়ে নির্মিত সাঁকো দিয়ে লোকজন ঝুঁকি নিয়ে পার হতো।

“মেম্বার-চেয়ারম্যানদের জানানো হলেও তারা এসে দেখে ঠিক করে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। কিন্তু ঠিক করে দেননি। জিয়া ভাই শনিবার সাঁকোটি ভেঙে নতুন সেতু করে দিয়েছেন।”

পশ্চিম আউয়ার গ্রামের বৃদ্ধ আব্দুর রশিদ বলেন, “চার (সাঁকে) ভাঙা থাকার কারণে নাতি দুইদিন স্কুলে যেতে পারেনি। এখন আমি আমার নাতিসহ সবাই ভালো ভাবে চলাফেরা করতে পারব।”

এ বিষয়ে সৈয়দকাঠি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন মৃধা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বাজেট ছিল না বলে করে দিতে পারিনি। কেউ করে দিয়েছে কিনা জানি না। করলেও সেটা নিয়ে তো এত মাতামাতির দরকার কী?”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক