বিরোধী দলকে নিষিদ্ধ করে দিতে চায় আওয়ামী লীগ: মঈন খান

“বিশ্বের বড় বড় ম্যাগাজিন ও প্রতিষ্ঠান বলছে যে, আজকে বাংলাদেশে বাকশাল-২ কায়েম করা হয়েছে”, বলেন তিনি।

নিজস্ব প্রতিবেদক
Published : 18 Feb 2024, 11:17 AM
Updated : 18 Feb 2024, 11:17 AM

ক্ষমতা ‘কুক্ষিগত করতে’ বিরোধী দলকে আওয়ামী লীগ নিষিদ্ধ করতে দিতে চায় বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আব্দুল মঈন খান।

বিএনপির সহযোগী সংগঠন তাঁতী দলের ৪৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে রোববার শেরেবাংলা নগরের চন্দ্রিমা উদ্যানে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানানোর পর সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

বিএনপি নেতা বলেন, “আওয়ামী লীগ ক্ষমতা কুক্ষিগত করার জন্য বিচার বিভাগকে কুক্ষিগত করেছে। তারা সংসদকে কুক্ষিগত করেছে। তারা বিরোধী দলকে নিশ্চিহ্ন করে দিতে চায়। এটাই হচ্ছে আওয়ামী লীগের মানসিকতা।

“মূল কথা হচ্ছে, সরকার ‘গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না’ বলেই তারা এ দেশ থেকে বিরোধী দলকে নিষিদ্ধ করে দিতে চায়।”

বিএনপি ক্ষমতার জন্য রাজনীতি করে না দাবি করে মঈন বলেন, “বিএনপি রাজনীতি করে জনগণের জন্য। আমাদের যে আন্দোলন বিগত দেড় বছর ধরে চলছে, সেটি জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠার জন্য, ক্ষমতার জন্য নয়।”

“আমরা চাই, পরিবর্তনের মাধ্যমে বাংলাদেশের জনগণ ‘সত্যিকারের মালিকানা’ ফিরে পাবে। বাংলাদেশের মানুষ কোনো রাজনৈতিক দলকে অর্থ, বিত্ত, সম্পদের জন্য, গুলশান টু, গুলশান থ্রি তৈরি করার জন্য, সেকেন্ড হোম তৈরি করার জন্য অধিকার দেয়নি। এ দেশ থেকে সব সম্পদ লুট করে বিদেশে নিয়ে যাবে, এই কারণে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়নি।”

দ্বাদশ নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে মঈন খান বলেন, “৭ জানুয়ারি আগেই নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছিল কে কোন আসন থেকে জয়ী হবেন। সেজন্য জনগণ সেই নির্বাচন বর্জন করেছে।”

এ দেশে ‘গণতন্ত্র নেই’ অভিযোগ করে তিনি বলেন, “এটা শুধু আমাদের কথা নয়, বিশ্বের বড় বড় ম্যাগাজিন ও প্রতিষ্ঠান বলছে যে, আজকে বাংলাদেশে বাকশাল-২ কায়েম করা হয়েছে।

“গত ২৮ অক্টোবর বিএনপির ‘শান্তিপূর্ণ’ মহাসমাবেশে ‘আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের যে হামলা’, সেটি ছিল বিরোধীদলের ওপর ক্র্যাকডাউন। ক্র্যাকডাউনের মাধ্যমে সরকার নতুন করে এ দেশের মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। যে সংসদ ও সরকার গঠিত হয়েছে, সেটি জনগণের প্রতিনিধিত্ব করে না।”

তাঁতী দলের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ, সদস্য সচিব মজিবুর রহমান, বিএনপির সেলিম ভুঁইয়া, রিয়াজ উদ্দিন নসু, মৎস্যজীবী দলের আব্দুর রহিমও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

তারা জিয়াউর রহমানের সমাধিকে ফুল দিয়ে তার আত্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন।