জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে র‌্যাব: ফখরুল

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার র‌্যাব বিলুপ্তির দাবি যৌক্তিকতা ব্যাখা করে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনের গঠিত ওই বাহিনী এখন জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।

প্রধান রাজনৈতিক প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 May 2014, 01:42 PM
Updated : 13 May 2014, 01:42 PM

একই সঙ্গে রক্ষী বাহিনী গঠন করে বাহাত্তর সালের আওয়ামী লীগ সরকারের মতো বর্তমান সরকারও ভিন্নমতের মানুষদের হত্যা করছে বলে করেন তিনি।

সোমবার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক অনুষ্ঠানে দলের এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “দেশ থেকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনের জন্য যে বাহিনী গঠন করা হয়েছিল, আজ সেই বাহিনীই মানুষের জীবন হরণ করছে। টাকার বিনিময়ে তারা মানুষ হত্যা করছে। সঙ্গতকারণে এই বাহিনী নিয়ে আজ জনমনে প্রশ্ন উঠছে।’’

ফাইল ছবি

“যে বাহিনী মানুষের নিরাপত্তার বদলে জীবন হরণ করে, তার প্রয়োজনীয়তা নেই। এই র‌্যাব আজ জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। সেজন্যই দেশনেত্রী খালেদা জিয়া ওই দাবি করেছেন।”

১৯ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক খেলাফত মজলিশের বর্ধিত দায়িত্বশীলদের এক সভায় বক্তব্য রাখছিলেন মির্জা ফখরুল। সভায় সভাপতিত্ব করেন দলের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, সারাদেশের মানুষ এক অস্বস্তিকর ও শ্বাসরুকর অবস্থার মধ্যে বসবাস করছে। ‘৭২ সালে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে রক্ষীবাহিনী গঠন করে যেভাবে ভিন্নমতের হাজার হাজার তরুণদের হত্যা-খুন করা হয়েছিল। ভিন্নমতের মানুষের খণ্ডিত মস্তক দিয়ে ওই তারা খেলা করেছিল। আজো একই কায়দায় ভিন্নমতপোষণকারী ও বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ধরে নিয়ে নির্বিচারে হত্যা করা হচ্ছে, খুন করা হচ্ছে।’’

বর্তমান সরকার আমলে ঢাকা সিটি করপোরেশনের নির্বাচিত কাউন্সিলর চৌধুরী আলম, দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলীসহ সারাদেশে নেতা-কর্মীদের গুম করে হত্যা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপির মুখপাত্র।

তিনি বলেন, “গত তিন মাসে ৩১০ জন নেতাকর্মীকে হত্যা করা হয়েছে। দুই বছর আগের গুম হয়ে যাওয়া ইলিয়াস আলী ও চৌধুরী আলমের সন্ধান আজো সরকার দিতে পারেনি। কত গুম হওয়ার কথা আমি বলব।’’

বিএনপি বেশ কিছুদিন ধরেই অভিযোগ করে আসছে, তাদের দলের নেতাকর্মীদের গুম-খুন করা হচ্ছে। গত এক বছরে এর শিকার হয়েছেন ৩১০ জন।

এর মধ্যে গত মাসের মধ্যভাগে নারায়ণগঞ্জে অপহৃত হন পরিবেশ আইনজীবী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসানের স্বামী এ বি সিদ্দিক। তবে দুদিনের মাথায় তাকে ছেড়ে দেয় অপহরণকারীরা।

এর দুই সপ্তাহের মাথায় কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম এবং আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজনকে তুলে নেয়া হয় গত ২৭ এপ্রিল। তিন দিন পর তাদের লাশ নদীতে পাওয়া যায়।

এই হত্যাকাণ্ডে র‌্যাবের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ নজরুল পরিবার তোলার পর তা নিয়ে সারাদেশে ব্যাপক আলোচনা চলছে।

নারায়ণগঞ্জের সাত খুনে র‌্যাবের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ ওঠার প্রেক্ষাপটে রোববার রাজধানীর শাহীনবাগে বিএনপির নিখোঁজ এক নেতার বাড়ি থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের কাছে র‌্যাব বিলুপ্তির দাবি তোলেন খালেদা জিয়া।

৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার ‘বেআইনে ও জোরপূর্বক ক্ষমতা’ দখল করে দেশে নির্বিচারে হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল।

মতিঝিলের শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের ওপর হামলার ঘটনাকে স্মরণকালে ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড বলে উল্লেখ করেন বিএনপির মুখপাত্র।

দেশের বর্তমানে গণতন্ত্র ও বাক স্বাধীনতা নেই দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, “বিরোধী দলকে কথা বলতে দেয়া হচ্ছে না। কোনো প্রতিবাদ করতে গেলে কিংবা সরকারের বিরুদ্ধে কথা বললেই মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়। একে গণতন্ত্র বলা যায় না। রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে এই সরকার দেশে একদলীয় শাসন চালাচ্ছে।”

চট্টগ্রামে জামায়াতে ইসলামের অফিসে থেকে নেতাদের গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, “তারা একটি রাজনৈতিক দল। চট্টগ্রামে দলীয় কার্যালয়ে জামায়াতের আমীরসহ নেতারা সভা করছিলেন। সেখান থেকে আমীর, সাধারণ সম্পাদকসহ ২১ জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এটা কোন ধরণের গণতন্ত্র।’’

নয়া পল্টনের কার্যালয়ও দীর্ঘদিন সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অবরুদ্ধ করে রাখার কথাও তুলে ধরে তিনি।

সরকার হটাতে আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, “নারায়ণগঞ্জের সাত হত্যাকাণ্ড কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়; সারাদেশে এরকম ঘটনা ঘটছে। সাতক্ষীরা ও লক্ষ্মীপুরে এভাবে মানুষকে তুলে নিয়ে হত্যার পর বলা হচেছ- বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছে। দেশের মানুষ এজন্য বাংলাদেশ স্বাধীন করেনি।’’

ইসলাম ধর্মের মূল্যবোধ ও গণতন্ত্র রক্ষায় খেলাফত মজলিশের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, খেলাফত মজলিশের নায়েবে আমীর  অধ্যক্ষ মুহাম্মদ মাসুদ খান ও মহাসচিব অধ্যাপক আহমেদ আবদুল কাদের বক্তব্য রাখেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক