ভোট নিয়ে সরকার 'মশকরা' করছে: ফখরুল

সরকারের বিরুদ্ধে কথা বললেই মামলা দেওয়ার অভিযোগ বিএনপি মহাসচিবের।

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 Jan 2023, 06:01 PM
Updated : 21 Jan 2023, 06:01 PM

ভোট নিয়ে সরকার জনগণের সঙ্গে 'মশকরা' করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেছেন, “উনাদের স্লোগান একটাই- আমার ভোট আমি দেব, তোমার ভোটটাও আমি দেব। এটা হইছে আওয়ামী লীগের স্লোগান। এসব ইতরামি আর চলবে না, এসব ফাইজলামি আর চলবে না, জনগনকে নিয়ে মশকরা আর চলবে না।”

শনিবার সকালে ঠাকুরগাঁও বিএনপি কার্যালয়ে অসহায় ও দরিদ্র মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, “আমরা বলেছি, আমরাও নির্বাচন চাই। কিন্তু সেই নির্বাচনের আগে এই আওয়ামী লীগ সরকারকে, এই শেখ হাসিনার সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। পরিষ্কার কথা- বিদায় হোন মানে, সসম্মানে। নতুন কেয়ারটেকার সরকার দেন।"

আওয়ামী লীগ সরকার থাকলে নির্বাচন ভালো হবে না অভিযোগ করে তিনি বলেন, "ওরা চুরি করবেই…। আমরা এরকম ভোট আর করতে দেব না।”

সরকার পতনের চলমান আন্দোলনের প্রসঙ্গ টেনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “এজন্য আমরা দেশের সমস্ত জনগণকে নিয়ে, রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে যে যুগপৎ আন্দোলন শুরু করেছি, সেই আন্দোলনের মধ্য দিয়ে যদি আমরা জনগণের সরকার করতে পারি; তাহলে আমরা একটা জাতীয় সরকার গঠন করব।

“সেই জাতীয় সরকারে সব দলগুলোর প্রতিনিধি থাকবে, যারা আন্দোলন করবে। আর সেজন্য আমরা ২৭টা প্রস্তাব দিয়েছি। সেই ২৭টা প্রস্তাব বাস্তবায়ন করতে চাই।”

ইভিএমে ভোটের বিরোধিতা করে তিনি বলেন, “একটা ইভিএম বাইর করছে তারা। ভোট হয় না এটাতে। মেশিনটা এমন একটা মেশিন- আপনি ধানের শীষে ভোট দিলে চলে যাবে নৌকায়…।

“ভোট দিলে কোনো কাগজ দেবে না। আপনি কোথায় ভোট দিলেন, একটা ডকুমেন্ট থাকতে হবে। এটাকে পেপার ট্রেল বলে। ভারতে বলেন, অন্যান্য দেশে বলেন- সবখানে এই সিস্টেম আছে যে, পেপার ট্রেল দিতে হবে।”

‘ওরা দেশটাকে আওয়ামী লীগ বানাতে চায়’

মির্জা ফখরুল বলেন, “এই সরকার এই দেশটাকে আওয়ামী লীগের দেশ বানাতে চায়। ওদের স্লোগানই একটা আছে- এক নেতা এক দেশ …। দেখছেন গায়ে মানে না, স্লোগান দেয় একমাত্র মালিক এদেশটার।

“সেটা আমরা হতে দেব না। আমরা যুদ্ধ করেছি ৫০ বছর আগে, আমরা যুদ্ধ করেছি এদেশের মানুষের অধিকারের জন্য। আমরা যুদ্ধ করেছি, এদেশের মানুষকে তার অধিকারকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য, তাদের সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার জন্য সেই লক্ষ্যে আমরা আন্দোলন শুরু করেছি।”

‘ওদের গণতন্ত্র লুটের গণতন্ত্র’

বর্তমান সরকারের আমলে দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা নিয়ে বিএনপি মহাসচিবের অভিযোগ, “আওয়ামী লীগ নাকি গণতন্ত্র দিচ্ছে। ওদের গণতন্ত্র কিসের গণতন্ত্র? আওয়ামী লৗগের গণতন্ত্র হলো চুরি করার গণতন্ত্র, লুট করার গণতন্ত্র, টাকা পাচার করার গণতন্ত্র।

“আওয়ামী লীগের গণতন্ত্র হলো মানুষকে হত্যা করার গণতন্ত্র, গুম করার গণতন্ত্র, মামলা দেওয়ার গণতন্ত্র, নির্যাতন করার গণতন্ত্র।”

‘এক দেশে দুই আইন’

বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নামে মামলা ও তাদের জামিন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুলের অভিযোগ, “সরকারের বিরুদ্ধে কথা বললেই মামলা। দেশনেত্রীর বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলা দিয়েছেন। তার জামিন হয় না।

"আর হাজী সেলিমের জামিন হয়, ক্যাসিনো সম্রাট তার জামিন হয়ে যায়। ওদের একজন বড় নেতা আছে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া সাহেব-১৭ বছর জেল হইছে। তিনি প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এসব কথা আপনাদের জানতে হবে, বুঝতে হবে।”

আওয়ামী লীগ ১৪ বছর ধরে 'প্রতারণা' করছে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “তারা ১৪ বছর উন্নয়নের কথা বলে সাধারণ মানুষকে বোকা বানাচ্ছে। আজ আমি বাড়ি থেকে বিএনপির এই অফিসে হেঁটে আসলাম। আসার পথে দেখলাম রাস্তাঘাটের একেবারে নাজুক অবস্থা। এতে বোঝা যায়, তাদের গত ১৪ বছরের উন্নয়নের চিত্র।

“ভাই পেটে ভাত না থাকলে ওই ১০ তলা বাড়ি থাকলে কোনো লাভ হবে কি? আমার কৃষক ভাইয়েরা তারা আজকে তাদের ফসলের ন্যায্য মূল্য পায় না। সারের দাম বেশি, সার পাওয়া যায় না। ওই যে কীটনাশক ঔষধ সেটারও দাম অনেক বেশি।”

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন, কেন্দ্রীয় নেতা ওবায়দুল্লাহ মাসুদ মামুনুর রশীদ, শরিফুল ইসলাম শরীফ, জেলা যুবদলের মাহবুব হোসেন তুহিন, স্বেচ্ছাসেবক দলের নুরুজ্জামান নুরু উপস্থিত ছিলেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক