বলিউড নাকি দক্ষিণ, কোনটি এগিয়ে রাখলেন অমিতাভ?

দক্ষিণী ফিল্মের প্রশংসা করলেও বলিউডের তুলনায় তামিল-তেলেগু সিনেমা বেশি ভাল হচ্ছে তা মানতে নারাজ বিগ বি।

গ্লিটজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Jan 2024, 07:20 AM
Updated : 29 Jan 2024, 07:20 AM

শেষ কয়েক বছরে ভারতের হিন্দি সিনেমার অমিতাভ বচ্চন, শাহরুখ খান, সালমান খান, সঞ্জয় দত্ত, দীপিকা পাড়ুকোন থেকে শুরু করে অনেক তারকা শিল্পী তাদের ক্যারিয়ার ঠিক রাখতে ঝুঁকেছেন দক্ষিণী সিনেমার দুনিয়ার। তেমনি দক্ষিণের প্রভাস, যশ, আল্লু অর্জুন, সামান্থা রুথ প্রভু, রাশমিকা মানদানারা হিন্দি সিনেমায় দাপিয়ে কাজ করছেন।

বলিউড নাকি দক্ষিণ - ভারতীয় সিনেমায় কোন ইন্ডাস্ট্রি এগিয়ে - সেই বিতর্ক যখন চলমান, তখন এ বিষয়ে নিজের মত জানালেন ভারতীয় সিনেমার মহাতারকা অমিতাভ বচ্চন।

দক্ষিণী ফিল্মের প্রশংসা করলেও বলিউডের তুলনায় তামিল-তেলেগু সিনেমা বেশি ভালো হচ্ছে– তা মানতে নারাজ ‘বিগ বি’।

তিনি বলেন, “আঞ্চলিক ইন্ডাস্ট্রিতে খুব ভালো সিনেমা তৈরি হচ্ছে। কিন্তু আমি সেখানকার (দক্ষিণ) হর্তাকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে বুঝতে পেরেছি, হিন্দি সিনেমার গল্পকে নতুন মোড়কে হাজির করছেন তারা। তবে নিঃসন্দেহে দক্ষিণে কাজ ভালো হচ্ছে।“

দুই ইন্ডাস্ট্রির বিভিন্ন সিনেমার উদাহরণ টেনে অমিতাভ বলেন, তার সুপারহিট কাজ ‘দিলওয়ার’, ‘শোলে’ বা ‘শক্তি’ অনেক দক্ষিণী সিনেমা তৈরির পেছনে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে।  

“ইদানিং মৌলিক গল্পের তামিল সিনেমা ভালো হচ্ছে। কিন্তু তার মানে কোনও নির্দিষ্ট একটি অঞ্চলের দিকে আঙুল তুলে বলা যাবে না যে তারা ভালো করছে আর হিন্দি সিনেমা চলছেই না।“

কোভিড মহামারীর পরের দুই বছর ছিল হিন্দি সিনেমার জন্য ক্রান্তিকাল। বড় বাজেটে জাঁদরেল তারকাদের নিয়ে আনেক সিনেমা হয়েছে। কিন্তু দর্শকের পছন্দ হয়নি তেমন কোনো সিনেমায়। উল্টোদিকে বাজিমাত করেছে দক্ষিণ।

তবে গত বছর শাহরুখ খানের হাত ধরে ঠিকই পথে ফিরেছে বলিউড। ‘পাঠান’ সিনেমা দিয়ে দিন ফেরানোর যে গল্প শাহরুখ শুরু করেছিলেন, বছর শেষে ‘অ্যানিমাল’ দিয়ে সেই গল্পকে আরও এগিয়ে নিয়েছেন রাণবীর কাপুর ও ববি দেওল।

বিগ বির  ভাষ্য, “সাধারণত সিনেমা সমাজজীবনের মূল্যবোধকে প্রভাবিত করে বলে সবাই বলে থাকে। কিন্তু আমি অন্য ধারণায় বিশ্বাসী। আমি মনে করি সমাজ থেকে সিনেমার গল্প উঠে আসে।“

চলচ্চিত্রে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রভাব নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করেন অমিতাভ।

গত বছর হলিউডে ধর্মঘটের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “অদূর ভবিষ্যতে হয়ত সে দিনও আসবে, যখন আমার পরিবর্তে আমার এআইকে ডাকা হবে।“