নেপালকে মোংলা ও চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহারের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

নেপালের সংসদীয় প্রতিনিধিদলের সদস্যরা সৌজন্য সাক্ষাত করতে গণভবনে গেলে তিন এ বিষয়ে কথা বলেন।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 August 2022, 01:57 PM
Updated : 5 August 2022, 01:57 PM

সৈয়দপুর বিমানবন্দরের পাশাপাশি নেপালকে বাংলাদেশের মোংলা ও চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর ব্যবহারের জন্য আবারও আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার সকালে নেপালের সংসদীয় প্রতিনিধিদলের সদস্যরা সৌজন্য সাক্ষাত করতে গণভবনে গেলে তিন এ বিষয়ে কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “নেপাল আমাদের মোংলা ও চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহার করে সুবিধা নিতে পারে।”

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নেপালের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন দেশটির ফেডারেল পার্লামেন্টের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক কমিটির চেয়ারপারসন পবিত্র নিরুওলা খারেল।

সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আঞ্চলিক বিমানবন্দর হিসেবে গড়ে তোলার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, নেপালসহ প্রতিবেশি দেশগুলো সেটি ব্যবহার করতে পারবে।

দুই দেশের স্বর্থে ব্যবসা-বাণিজ্যে আরও জোরদারের পাশাপাশি সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করার কথাও প্রধানমন্ত্রী বলেন।

মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশকে সমর্থন দেওয়ায় নেপালের নেতৃত্ব এবং জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, নেপালসহ প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখাকে তার সরকার অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়।

প্রতিনিধিদলের সদস্যরা ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর, বাংলাদেশ সংসদ পরিদর্শন এবং পদ্মা সেতু দিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় গেছেন জেনে সন্তোষ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

বৈঠকের শুরুতে নেপালের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানান। তারা বলেন, নেপাল ও বাংলাদেশ বিগত বছরগুলোতে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক উপভোগ করে আসছে। কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ৫০ বছর উদযাপনের জন্য এ বছরটি উভয় দেশের জন্য খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।

বিদ্যুৎ, জলবিদ্যুৎ, পর্যটন, শিক্ষা, আইসিটি, সংযোগ এবং জনগণের মধ্যে যোগাযোগে দুই দেশের সহযোগিতা আরও সুসংহত হবে বলেও তারা আশা প্রকাশ করেন।

নেপালের প্রতিনিধি দলে দেশটির পার্লামেন্ট সদস্য চাঁদতারা কুমারী, ড. দীপক প্রকাশ ভট্ট, দেব প্রসাদ তিমলসেনা, লীলা দেবী সিতৌলা, নারদ মুনি রানা এবং সরলা কুমারী যাদব উপস্থিত ছিলেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক