হাকিমের সঙ্গে ‘অসৌজন্যমূলক’ আচরণ, ক্ষমা চেয়ে রেহাই পেলেন পিরোজপুরের পিপি

ভবিষ্যতে আর এমন হবে না- এই প্রতিশ্রুতি দিয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন খান মো. আলাউদ্দিন।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Nov 2022, 09:57 AM
Updated : 15 Nov 2022, 09:57 AM

পিরোজপুরের মুখ্য বিচারিক হাকিমের সঙ্গে ‘অসৌজন্যমূলক আচরণ ও বিচারিক কাজে বাধা’ দেওয়ার ঘটনায় নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে রেহাই পেলেন পাবলিক প্রসিকিউটর খান মো. আলাউদ্দিন।

হাই কোর্টের তলবে মঙ্গলবার তিনি আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন। পরে বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের বেঞ্চ এ সংক্রান্ত রুল নিষ্পত্তি করে তাকে আদালত অবমাননার দায় থেকে অব্যাহতি দেয়।

পিপি আলাউদ্দিনের পক্ষে হাই কোর্টের ছিলেন আইনজীবী ফিদা এম কামাল ও সাঈদ আহমেদ রাজা। সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

আর কখনও এমন ঘটনা ঘটবে না– পিপির পক্ষে এমন প্রতিশ্রুতি দিয়ে আদালতের কাছে ক্ষমা চান তার আইনজীবী রাজা। পিপি আলাউদ্দিনও এ সময় ওই প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমা চান।

পিপিকে ভর্ৎসনা করে বিচারপতি জে বি এম হাসান বলেন, “আপনি কোনো সাধারণ আইনজীবী নন। আপনি পিরোজপুরের পিপি, আইনজীবী নেতা। আপনারা যদি বিচারককে, আদালতকে সম্মান না করেন, তাহলে তো সাধারণ মানুষ সম্মান করবে না।

“আর যদি আদালতের প্রতি, বিচার বিভাগের প্রতি মানুষের আস্থা উঠে যায়, তাহলে তো কেউ বাঁচবেন না। আমরা যদি আপনার আচরণ মেনে নিই, তাহলে সাধারণ মানুষের মধ্যে কী বার্তা যাবে? বিচারকের সঙ্গে আপনার এই আচরণের কারণে যে ক্ষতি হয়েছে, তার খেসারত দিতে হবে। আপনার আচরণের কথা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এতে বিচার বিভাগের অনেক ক্ষতি হয়ে গেছে। আপনারও তো অনেক ক্ষতি হয়ে গেছে। এটা তো আপনার জীবনের বড় দুর্ঘটনা।”

Also Read: আদালত অবমাননা: পিরোজপুরের পিপিকে হাই কোর্টে তলব

বিচারক পরে বলেন, “আদালত শক্তি প্রদর্শনের জায়গা না। এখানে যত বিনয়ী হবেন তত বড় হতে পারবেন। এখন যদি আপনাকে আমরা ৬ মাসের জন্য আইনপেশা থেকে বিরত থাকার আদেশ দিই, তখন কী হবে?”

আদালতে উপস্থিত সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবীরা এ সময় পিপির পক্ষে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে বলেন, ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা আর ঘটবে না, আলাউদ্দিন সতর্ক থাকবেন।

আদালত তখন পিপিকে সতর্ক করে অবমাননার দায় থেকে অব্যাহতি দিয়ে রুল নিষ্পত্তি করে দেয়।

গত ২৫ জুলাই এহসান রিয়াল এস্টেট অ্যান্ড বিল্ডার্স লিমিটেডের উপদেষ্টা মাওলানা মো. হাফিজুর রহমান ছিদ্দীকের জামিন শুনানির সময় পিপি খান মো. আলাউদ্দিন পিরোজপুরের সিজেএম আবু জাফর মো. নোমানের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করে বিচারকাজে বাধা দেন।

এ বিষয়ে প্রধান বিচারপতির দপ্তরে অভিযোগ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করেন মুখ্য বিচারিক হাকিম।

পরে গত ১৯ সেপ্টেম্বর প্রধান বিচারপতি আবেদনটি বিবেচনায় নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য হাই কোর্টের এ বেঞ্চে পাঠিয়ে দের।

সে ধারাবাহিকতায় শুনানির পর পিপিকে তলবের পাশাপাশি আদালত অবমাননার রুল জারি করা হয়। উচ্চ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী মঙ্গলবার আদালতে হাজির হন পিপি মো. আলাউদ্দিন।

অসৌজন্যমূলক আচরণ ও বিচারকের বিচারকাজে বাধার বিষয়ে কোনো ব্যাখ্যায় না গিয়ে উচ্চ আদালতের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন তিনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক