অনেক সাংবাদিক তথ্য সম্পূর্ণ না জেনে লিখে দেয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশের অনেক সাংবাদিকের মধ্যে ‘পরিপক্কতার অভাব’ দেখছেন এ কে আব্দুল মোমেন।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Nov 2022, 03:13 PM
Updated : 29 Nov 2022, 03:13 PM

বাংলাদেশে অনেক সাংবাদিকের মধ্যে ‘পরিপক্কতার অভাব’ রয়েছে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

নানা বক্তব্য নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়া মোমেন মঙ্গলবার এক সভায় বলেন, “আমাদের অনেক সাংবাদিকের মধ্যে পরিপক্কতার অভাব আছে। তথ্য সম্পূর্ণ না জেনে লিখে দেয়।”

সাংবাদিক জগলুল আহমেদ চৌধূরীর অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত স্মরণ সভায় একথা বলেন তিনি।

প্রয়াত জগলুলকে স্মরণ করে মোমেন বলেন, “জগলুল সবসময় সঠিক তথ্যটা তুলে ধরত। ইদানিংকালে আমাদের যারা নতুন সাংবাদিক, তাদের জন্য জগলুলকে অধ্যয়ন করা দরকার।”

২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর ঢাকার কারওয়ান বাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন জগলুল আহমেদ চৌধুরী। তার বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর।

দীর্ঘদিন সাংবাদিকতায় জড়িত জগলুল আহমেদ চৌধূরী জীবনের শেষ সময় পার করেছেন কলামনিস্ট ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক হিসাবে।

পারিবারিক সূত্রে জগলুল আহমেদ চৌধূরীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ মোমেন স্মরণসভায় বলেন, “বাস থেকে নামতে গিয়ে মৃত্যু, এটা খুবই বেদনাদায়ক। আমার তখন বিশ্বাস ছিল, এই মৃত্যুর পরপর চলন্ত বাস থেকে কোনো লোক আর বাংলাদেশে নামবেও না, উঠবেও না।

“দুঃখের বিষয়, এখনও দেখি চলন্ত বাস থেকে লোক নামে। যখনই দেখি, দেখলে আমার স্মরণ হয় জগলুলের কথা।”

আইন করে চলন্ত বাসে উঠা-নামা বন্ধ করার দাবি জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “চলন্ত বাস থেকে কেউ যেন না নামতে পারে, সেটা আইন করে বন্ধ করা উচিৎ।

“আমেরিকায় কোনো লোক চলন্ত বাস থেকে নামতে পারে না। আমি বহু বছর ওই দেশে ছিলাম, চলন্ত বাস থেকে কেউ নামতে পারবে না; এটা আমাদের দেশের চালু করা দরকার।”

“দ্বিতীয়ত, সাংবাদিকেরা যাতে জগলুলের মতো ভালো, উন্নত সাংবাদিকতা করতে পারে, সে দিকে তাদের নজর দেওয়া উচিৎ। সে দিকে নজর দিলে আজকের আলোচনা সার্থক হবে,” বলেন তিনি।

Also Read: মোমেন কেন এখনও পররাষ্ট্রমন্ত্রী? আদেশ চেয়ে হাই কোর্টে আবেদন

Also Read: এখন থেকে ‘সাবধান’ হবেন মোমেন

Also Read: সাংবাদিকদের পরিপক্কতা দরকার': পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সাংবাদিক জগলুল আহমেদ চৌধূরী স্মৃতি ট্রাস্ট আয়োজিত স্মরণসভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, সাবেক মন্ত্রী কামরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, “আজকে বাংলাদেশে যে অবস্থা চলছে, বাংলাদেশে বিভিন্ন কূটনীতিকদের ডেকে একটা গোষ্ঠী বা একটা দল যা করছে, আমাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে কূটনীতিকদের ডেকে এনে হস্তক্ষেপ করার যে চেষ্টা–অপচেষ্টা বা যে কাজগুলো হচ্ছে, জগলুল থাকলে হয়ত এসবের বিরুদ্ধেও তার লেখা সোচ্চার হত।”

সাংবাদিক জগলুল আহমেদ চৌধূরীর সঙ্গে ছোট বেলা থেকে বেড়ে উঠা ও তার সঙ্গে জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত বিভিন্ন স্মৃতির কথা তুলে ধরেন জগলুল ফাউন্ডেশনের সভাপতি কামরুল।

ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্তের সঞ্চালনায় স্মরণসভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক জগলুল আহমেদ চৌধূরীর ছেলে নাবিদ আহমেদ চৌধূরী, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) সাবেক প্রধান সম্পাদক আজিজুল ইসলাম ভূইয়া, বাসসের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক হারুন হাবীব, ইউএনবির সম্পাদক ফরিদ হোসেন ও হবিগঞ্জের মেয়র শহীদ উদ্দিন চৌধুরী।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক