গণমাধ্যমের ‘অপব্যবহার’ ও ‘মিথ্যাচার’ হলে ব্যবস্থা: আরাফাত

“গণমাধ্যমের স্বাধীনতার অপব্যবহার করে অসত্য অপপ্রচার চালানো, মানুষকে ধোঁকা দেওয়া মানুষের ওপর অবিচার”, বলেন নতুন তথ্য প্রতিমন্ত্রী।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Jan 2024, 02:46 PM
Updated : 14 Jan 2024, 02:46 PM

গণমাধ্যমের স্বাধীনতার অপব্যবহার করে মিথ্যাচার বন্ধ করতে চান নতুন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ এ আরাফাত।

রোববার সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব গ্রহণের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

আরাফাত বলেন, “মতপ্রকাশের স্বাধীনতা, তথ্যের অবাধ প্রবাহ এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে অপব্যবহার করে যদি কোনো গোষ্ঠী অপপ্রচার ও মিথ্যাচার করে, সেটি গণতন্ত্র ও সাধারণ মানুষের জন্য ক্ষতিকর। এ ধরনের অপতৎপরতাকে জবাবদিহির আওতায় আনা নিশ্চিত করা হবে।”

সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান আরাফাত ২০২২ সালের ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য হন। একাদশ সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৭ আসনে জয় পাওয়া আওয়ামী লীগের আকবর খান পাঠানের (চিত্রনায়ক ফারুক) মৃত্যুর পর ২০২৩ সালের ১৭ জুলাইয়ের উপনির্বাচনে জয় পান আরাফাত। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনেও তিনিই মনোনয়ন পান।

ভোটে জয়ের তিন দিনের মাথায় আরাফাতকে প্রতিমন্ত্রী করা হয়। পরের দিন শপথের পর যে দায়িত্ব বণ্টন করা হয়, তাতে তাকে দেওয়া হয় তথ্য মন্ত্রণালয়। এই মন্ত্রণালয়ে কোনো পূর্ণাঙ্গ মন্ত্রী না দেওয়ায় আরাফাতই সেখানে প্রধান ব্যক্তি।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, “তথ্যের অবাধ প্রবাহ এবং মতপ্রকাশের স্বাধীনতা এই বিষয়গুলো আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার অংশ। দেশের অগ্রগতি ও গণতন্ত্রের স্বার্থে এটি নিশ্চিত আমরা করেছি এবং আগামী দিনেও তা বজায় রাখতে চাই। কিন্তু এর অপব্যবহার করে অসত্য অপপ্রচার চালানো, মানুষকে ধোঁকা দেওয়া মানুষের ওপর অবিচার।”

সদ্য বিদায়ী তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদই এদিন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদের সঙ্গে আরাফাতের পরিচয় করিয়ে দেন।

নতুন মন্ত্রিসভায় হাছান পেয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “বয়সে আমার চেয়ে নবীন হলেও তিনি (আরাফাত) বিচক্ষণ ব্যক্তি এবং দীর্ঘদিনের সহকর্মী।”

আরাফাত বলেন, “বাংলাদেশের বিপক্ষে বিশ্বব্যাপী যে মিস-ইনফরমেশন ক্যাম্পেইন বা অপপ্রচার হচ্ছে সেই ষড়যন্ত্র মোকাবিলাকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে এগুলোকে জবাবদিহিতার আওতায় এনে তথ্যের অবাধ প্রবাহ কীভাবে আরো সুন্দর করা যায় সেই বিষয়গুলো নিয়ে আমি আপনাদের সঙ্গে আগামী দিনে কাজ করতে চাই। পূর্বতন মন্ত্রী মহোদয়ের কাছ থেকেও আমরা পরামর্শ নেব।”