হাভানা সিনড্রোম: রহস্যজনক অসুস্থতার নেপথ্যে আবারও রাশিয়ার নাম

এতে শরীরে হঠাৎ করে বমিভাব, কানে ভোঁ ভোঁ শব্দ হওয়া, শ্রবণশক্তি কমে যাওয়া, মাথা ঝিমঝিম করা, স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার মত অস্বাভাবিক কিছু লক্ষণ দেখা দেয়।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 April 2024, 04:18 PM
Updated : 1 April 2024, 04:18 PM

আট বছর আগে কিউবার রাজধানী হাভানায় মার্কিন দূতাবাসের কর্মীদের মধ্যে যে রহস্যজনক অসুস্থতা দেখা দিয়েছিল তার নেপথ্যে সম্ভবত রাশিয়ার গোয়েন্দা বাহিনীর হাত ছিল বলে নতুন এক অনুসন্ধানে উঠে এসেছে।

বিবিসি জানায়, দ্য ইনসাইডার, দের স্পিগেল এবং সিবিএস সিক্সটি মিনিটস যৌথভাবে এ অনুসন্ধান চালায়।

তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়, মার্কিন কর্মকর্তারা খুব সম্ভবত রাশিয়ার শব্দতরঙ্গ (সনিক) অস্ত্রের শিকার হয়েছিলেন। রাশিয়ার গোয়েন্দা বাহিনীর ইউনিট ২৯১৫৫ এর সদস্যরা খুব সম্ভবত যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিকদের মস্তিষ্ক লক্ষ্য করে গোপন কোনও অস্ত্রের মাধ্যমে ‘সরাসরি শক্তি’ ছুড়েছে।

নতুন এই অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, তারা এমন প্রমাণ পেয়েছে যে, ওই ইউনিটের সদস্যরা যখন যে সময়ে বিশ্বের যে প্রান্তে দায়িত্বরত ছিল সে সময়ে ওইসব স্থানে মার্কিন কূটনীতিকরা রহস্যময় ওই অসুস্থতায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এজন্য ২৯১৫৫ ইউনিটের কর্মীদের পুরস্কৃত করা হয়েছে বলেও জানিয়েছে দ্য ইনসাইডার। এই সংবাদ মাধ্যমটি মূলত রাশিয়াকে ভিত্তি করে খবর প্রকাশ করে।

রাশিয়া হাভানার ওই ঘটনা নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ আগেও অস্বীকার করেছে, এবারও অস্বীকার করেছে।

সোমবার ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেন, “এ ধরনের দাবিকে সমর্থন করার জন্য কোন প্রমাণ কখনও উপস্থাপন করা হয়নি। মিডিয়াতে আসা এই অভিযোগগুলি ভিত্তিহীন।”

২০১৬ সালে হাভানায় যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস কর্মীদের শরীরে হঠাৎ করে বমিভাব, কানে ভোঁ ভোঁ শব্দ হওয়া, শ্রবণশক্তি কমে যাওয়া, মাথা ঝিমঝিম করা, স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার মত অস্বাভাবিক কিছু লক্ষণ দেখা দেয়।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা গত বছর দেওয়া এক প্রতিবেদনে বলেছিলেন, খুব সম্ভবত এ অসুস্থতার পেছনে বিদেশি শক্তির হাত নেই।

তবে তারা তাদের প্রতিবেদনে বিকল্প কোনো ব্যাখ্যাও দিতে পারেননি। তাদের এই প্রতিবেদন যারা আক্রান্ত হয়েছিল তাদেরকে হতাশ করে।

হাভানাতেই প্রথম এ ধরণের অসুস্থতার খবর পাওয়া যাওয়ার কারণে এর নাম ‘হাভানা সিনড্রোম’ রাখা হয়। যদিও নতুন এক প্রতিবেদন বলছে, তারও প্রায় দুই বছর আগে জার্মানিতে প্রথম এ ধরণের অসুস্থতার ঘটনা ঘটেছিল।

বিবিসি জানায়, আমেরিকার যেসব কর্মকর্তার দেহে অসুস্থতার লক্ষণ দেখা দিয়েছিল তাদের মধ্যে হোয়াইট হাউজ, সিআইএ এবং এফবিআই এর কর্মীরাও ছিলেন।

এক হাজারের বেশি মার্কিন কর্মকর্তা রহস্যজনক ওই অসুস্থতায় আক্রান্ত হয়েছিল। তার মধ্যে এক ডজনের বেশি ক্ষেত্রে আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও এর কোনো ব্যাখ্যা পাওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের আইনপ্রণেতারা আক্রান্ত কর্মকর্তাদের সহায়তা করতে একটি আইন পাস করেছে। রহস্যজনক এ অসুস্থতা থেকে যারা স্থায়ীভাবে মস্তিষ্কে আঘাত পেয়েছেন তাদের জন্য সরকারি ভাতার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

দীর্ঘদিন ধরেই বিশ্বাস করা হয়, রহস্যময় ওই অসুস্থায় আক্রান্তদের দিকে কোনো গোপন যন্ত্রের মাধ্যমে সরাসরি কোনো শক্তি বা মাইক্রোওয়েভ ছোড়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থার আগের একটি প্রতিবেদনে এই সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছিল।