ইউক্রেইন যুদ্ধের জন্য ফিনিশ সীমান্তে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের প্রলুদ্ধ করছে রাশিয়া

এবছর ফিনল্যান্ড পশ্চিমা সামরিক জোট নেটোতে যোগ দেওয়ার পর রাশিয়া একাজ করছে বলে অভিযোগ হেলসিঙ্কির।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Dec 2023, 06:13 PM
Updated : 7 Dec 2023, 06:13 PM

ইউক্রেইনে যুদ্ধের জন্য বিদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়োগ দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে রাশিয়া। ফিনল্যান্ড সীমান্তে সম্প্রতি আটক হওয়া বিদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ইউক্রেইন যুদ্ধে পাঠানোর এই চেষ্টা চলছে।

অভিবাসন আইন লঙ্ঘনের জন্য গ্রেপ্তার হওয়ার কিছুদিন পরই বিদেশিদের তড়িঘড়ি ইউক্রেইন সীমান্তের সামরিক ক্যাম্পে পাঠানোর কয়েকটি ঘটনার চাক্ষুষ প্রমাণ পেয়েছে বিবিসি।

সীমান্তের আটককেন্দ্রগুলোতে আটকে রাখা লোকজনকে ইউক্রেইন যুদ্ধে যোগ দেওয়ারনোর জন্য রাশিয়ার জবরদস্তি চুক্তি সই করানোর ঘটনা নতুন নয়। তবে ফিনল্যান্ডের সঙ্গে রাশিয়ার ১৩৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ সীমান্তে বিদেশি অভিবাসন প্রত্যাশীরা এসে পৌঁছানোয় এই সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে।

ফিনল্যান্ড তাদের রাশিয়া সংলগ্ন ৮ টি সীমান্ত ক্রসিংয়ের সবগুলোই সাময়িকভাবে বন্ধ করেছে। মস্কো অঞ্চলটিকে অস্থিতিশীল করতে সেখানকার অভিবাসনপ্রত্যাশী ও আশ্রয়প্রার্থীদেরকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। এবছর ফিনল্যান্ড পশ্চিমা সামরিক জোট নেটোতে যোগ দেওয়ার পরই রাশিয়া একাজ করছে বলে অভিযোগ হেলসিঙ্কির।

রাশিয়ার ফিনল্যান্ড সীমান্তবর্তী এলাকা কারেলিয়ার আটককেন্দ্রে অন্তত ডজনখানেক বন্দিকে সামরিক প্রতিনিধিরা ‘রাষ্ট্রের জন্য ‘ কাজের প্রস্তাব দিয়েছে। গ্রেপ্তার হওয়ার পরপরই তাদেরকে এই প্রস্তাব দেওয়া হয়। একইসঙ্গে সামরিক বাহিনীতে থাকার একবছরের চুক্তি পুরা করলে ভাল বেতন, চিকিৎসা সুবিধা এবং রাশিয়ায় থাকার অনুমতি দেওয়ারও প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

কারেলিয়ায় আদালতের একটি শুনানি বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত তিন সপ্তাহে রাশিয়ায় কার্যকর ভিসা ছাড়া থাকার জন্য ২৩৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠানোর জন্য আটককেন্দ্রে রাখা হয়েছে। রাশিয়ার সঙ্গে ফিনল্যান্ডের অন্য দুটি সীমান্ত অঞ্চল লেনিনগ্রাদ এবং মারমান্সকেও চিত্রটা একইরকম।

ফিনল্যান্ড সীমান্তে জড়ো হচ্ছে নজিরবিহীন সংখ্যক অভিবাসনপ্রত্যাশী। তারা শরণার্থীর মর্যাদা পাওয়ার জন্য আবেদন করছে। এইসব অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মধ্যে আছে সোমালি এবং ইরাকিরাও।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, বিদেশিরা পশ্চিমা দেশগুলোতে যাওয়ার জন্য রাশিয়াকে ট্রানজিট পয়েন্ট হিসাবে ব্যবহার করছে। তারা হরহামেশাই তাদের স্বল্প-মেয়াদী ভিসার মেয়াদ পার হওয়ার পরও সেখানে থাকে এবং ইইউ দেশগুলোর সীমান্ত পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা চালায়।