ভারতে রিহ্যাব ফেরত মাদকাসক্তের বিরুদ্ধে পুরো পরিবারকে খুনের অভিযোগ

গত কিছুদিন ধরে দিল্লিকে স্তব্ধ করে দেওয়া জঘন্য অপরাধ ও হত্যাকাণ্ডগুলো নিয়ে তোলপাড় চলার মধ্যেই এটি ঘটেছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 Nov 2022, 08:28 AM
Updated : 23 Nov 2022, 08:28 AM

ভারতে পুনর্বাসন কেন্দ্র থেকে ফেরার কয়েকদিন পর এক মাদকাসক্ত তার পরিবারের সব সদস্যকে খুন করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঝগড়াঝাটির পর কেশভ নামের ২৫ বছর বয়সী ওই যুবক তার বাবা-মা, বোন ও দাদিকে ছুরিজাতীয় ধারাল কিছু দিয়ে আঘাত করে হত্যা করেছে বলে বুধবার জানিয়েছে পুলিশ।

গত কিছুদিন ধরে ভারতের রাজধানী দিল্লিকে স্তব্ধ করে দেওয়া জঘন্য অপরাধ ও হত্যাকাণ্ডগুলো নিয়ে তোলপাড় চলার মধ্যেই এটি ঘটেছে, জানিয়েছে এনডিটিভি।

মঙ্গলবার রাতে দক্ষিণপশ্চিম দিল্লির পালামে নিজেদের বাড়ি থেকে ওই চারজনের রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধারের পর কেশভকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তারা জানিয়েছে, পরিবারের সদস্যদের গলা কাটতে মাদকাসক্ত এ যুবক ধারাল কোনো বস্তু ব্যবহার করেছে। মৃতদেহগুলোর শরীরের একাধিক স্থানে ধারাল কিছুর আঘাতে সৃষ্ট ক্ষতও পাওয়া গেছে।

কেশভের দাদি দিওয়ানা দেবী (৭৫), বাবা দিনেশ (৫০), মা দর্শনা ও বোন উর্বশীর (১৮) মৃতদেহ আলাদা আলাদা কক্ষে মিলেছে।

এর মধ্যে দিনেশ ও দর্শনার মৃতদেহ মিলেছে দুটি শৌচাগারে; দিওয়ানা আর উর্বশীর মৃতদেহ পাওয়া গেছে পৃথক দুই কক্ষে।

পুলিশ জানিয়েছে, গত মাসেই গুরগাঁওয়ের একটি দপ্তরের চাকরি ছেড়েছিলেন কেশভ। লক্ষ্মী পূজার সময় থেকেই তিনি বেকার।

খুন করার সময়ও তার মধ্যে মাদকের প্রভাব ছিল, বলছে তারা।

স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই বাড়ি থেকে চিৎকার শোনার পর একই ভবনে থাকা প্রতিবেশী ও আত্মীয়স্বজনরা সচকিত হন এবং পুলিশে খবর দেন।

আত্মীয়স্বজনরা যখন কেশভকে ধরে তখন তিনি ঘরেই ছিলেন এবং পালানোর পরিকল্পনা করছিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। তারাই পরে মাদকাসক্ত ওই যুবককে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের হাতে তুলে দেন।

পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহগুলো উদ্ধার করে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক