তাইওয়ানে ৭.৪ মাত্রার ভূমিকম্প, নিহত ৪

তাইওয়ানের কর্মকর্তারা বলছেন, এই দ্বীপটিতে গত ২৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প এটি।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 April 2024, 03:16 AM
Updated : 3 April 2024, 03:16 AM

পঁচিশ বছরের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছে তাইওয়ান। ভূমিকম্পে চারজনের মৃত্যু এবং বহু আহত হয়েছে। সুনামি সতর্কতা জারি করা হলেও পরে তুলে নেওয়া হয়।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা ইউএসজিএস এর তথ্য অনুযায়ী, তাইওয়ানের পূর্ব উপকূলে এ ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৭ দশমিক ৪।

ভূমিকম্পের উপকেন্দ্র ছিল তাইওয়ানের হুয়ালিয়েন শহর থেকে ১৮ কিলোমিটার দক্ষিণে, উৎপত্তিস্থল ছিল ভূপৃষ্ঠের ১৫ দশমিক ৫ কিলোমিটার গভীরে।

বুধবার স্থানীয় সময় সকাল ৭ টা ৫৮ মিনিটে ঘটা এ ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে চীন, ফিলিপাইন এবং জাপানেও। ওই সময় লোকজন কাজে যাচ্ছিল আর শিক্ষার্থীরা যাচ্ছিল স্কুলে।

তাইওয়ানের সরকার জানিয়েছে, পূর্বাঞ্চলীয় পর্বতময় কাউন্টি হুয়ালিয়েনে চারজনের মৃত্যু ও ৫০ জনের বেশি আহত হয়েছে।

তাইওয়ানের দমকল পরিষেবা জানিয়েছে, ছুটে আসা পাথরে চাপা পড়ে এদের একজনের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জাপানের আবহাওয়া দপ্তর এক জরুরি বার্তায় সুনামি সতর্কতা জারি করে। সেখানে বলা হয়েছে, সুনামির সময় সাগরের ঢেউয়ের উচ্চতা ৩ মিটার ছাড়িয়ে যেতে পারে। ফিলিপিন্সেও সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। পরে উভয় দেশই এসব সুনামি সতর্কতা তুলে নিয়েছে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

ভূমিকম্পে অন্তত ২৬টি ভবন ধসে পড়েছে। এসব ভবনের অর্ধেকেরও বেশি হুয়ালিয়েনে। ভবনগুলোতে প্রায় ২০ জনের মতো আটকা পড়েছে আর তাদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।  

বিবিসি জানিয়েছে, হুয়ালিয়েন শহরে আরও বেশ কয়েকটি ভবন বিপদজনকভাবে হেলে থাকতে দেখা গেছে।

সোশাল মিডিয়ায় আসা ভিডিওতে ভূমিকম্পের সময় রাজধানীর তাইপের ভবনগুলো কাঁপতে দেখা গেছে। ঝাঁকুনিতে আসবাবপত্র ছিটকে পড়তে দেখা গেছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, গত ২৫ বছরের মধ্যে তাইওয়ানে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প এটি।

জাপানের আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, সুনামির বেশ কয়েকটি ছোট ঢেউ দক্ষিণাঞ্চলীয় ওকিনাওয়া প্রিফেকচারে কিছু অংশে পৌঁছেছে। পরে সুনামি সতর্কতার মাত্রা হ্রাস করে শুধু সতর্ক থাকতে বলা হয়। এই ভূমিকম্পের মাত্রা ৭ দশমিক ৭ ছিল বলে উল্লেখ করেছে তারা।

ফিলিপিন্সের সিসমোলজি এজেন্সিও দেশটির বেশ কয়েকটি প্রদেশের উপকূলীয় এলাকায় সুনামি সতর্কতা জারি করে লোকজনকে উঁচু স্থানে সরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছিল।  

তাইওয়ানও সুনামি সতর্কতা জারি করেছিল, কিন্তু এতে কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে জানিয়েছে।

হাওয়াইয়ের প্রশান্ত মহাসাগরীয় সুনামি সতর্কতা কেন্দ্র পরে জানায়, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করার মতো সুনামির ঝুঁকি আর প্রায় নেই।

রয়টার্সের প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, তাইপেতে এখনও পরাঘাত অনুভূত হচ্ছে। এ পর্যন্ত ২৫টিরও বেশি পরাঘাত রেকর্ড করা হয়েছে বলে তাইওয়ানের আবহাওয়া প্রশাসন জানিয়েছে।

চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যম জানিয়েছে, চীনের ফুজিয়ান প্রদেশে ভূমিকম্পটি অনুভূত হয়েছে। রয়টাসের একজন সাংবাদিক জানিয়েছেন, সাংহাই শহরেও এটি অনুভূত হয়েছে।

তাইপে নগর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, রাজধানীতে বড় ধরনের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে খবর হয়নি, ভূমিকম্পের কিছুক্ষণ পরই মেট্রো রেল চলাচল শুরু করে।

তাইওয়ানের বিদ্যুৎ পরিচালনা কোম্পানি তাইপাওয়ার জানিয়েছে, তাইওয়ানের দু’টি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভূমিকম্পের কোনো প্রভাব পড়েনি।