সৌরজগতের বাইরের গ্রহে সম্ভাব্য প্রাণের অস্তিত্বের চিহ্ন

গ্যাস শনাক্তের মানে হল, গ্রহটিতে সম্ভবত সমুদ্রও আছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 Jan 2024, 03:56 AM
Updated : 30 Jan 2024, 03:56 AM

পৃথিবী থেকে ১২০ আলোকবর্ষ দূরে সৌরজগতের বাইরের একটি গ্রহে জীবনের উপযোগী পরিবেশ বা প্রাণের অস্তিত্বের অস্পষ্ট প্রমাণ খুঁজে পাওয়ার কথা বলছে নাসা।

জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের মাধ্য্যমে সেখানে ডাইমিথাইল সালফাইড (ডিএমএস) অণু শনাক্ত করেছেন বিজ্ঞানীরা, যা পৃথিবীতে কেবল প্রাণীর মাধ্যমেই উৎপন্ন হয়।

অবশ্য গবেষকরা বলছেন, ডিএমএস শনাক্তের বিষয়ে নাসার টেলিস্কোপ যে প্রমাণ দেখাচ্ছে, এখনও তা যথেষ্ট ‘শক্তিশালী নয়’। এর জন্য আরও তথ্য-প্রমাণ প্রয়োজন।

আবার ‘কে২-১৮বি’ নামের ওই গ্রহে মিথেন এবং এর বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাইঅক্সাইড শনাক্তের কথা বলছেন বিজ্ঞানীরা। এসব গ্যাস শনাক্তের মানে হল, গ্রহটিতে সম্ভবত সমুদ্রও আছে।

সৌরজগতের বাইরে অন্যান্য নক্ষত্রকে কেন্দ্র করে যেসব গ্রহ আবর্তিত হচ্ছে সেগুলোকে বলা হয় এক্সোপ্ল্যানেট। গবেষণা দলের প্রধান কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিক্কু মধুসূদন জানান, এক্সোপ্ল্যানেট কে২-১৮বি নিয়ে গবেষণার এই ফলাফল দেখে তারা ভরকে গিয়েছিলেন।

“পৃথিবীতে ডিএমএস কেবল প্রাণের অস্তিত্ব থেকেই তৈরি হয়। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে এর বেশিরভাগ অংশ সামুদ্রিক পরিবেশে ফাইটোপ্ল্যাঙ্কটন থেকে নির্গত হয়।”

ডিএমএস শনাক্তের বিষয়টি কৌতূহল উদ্দীপক হলেও এখনও তা ‘অস্পষ্ট’ বলছেন মধুসূদন। বিষয়টি স্পষ্ট হতে আরও অনেক তথ্য-প্রমাণের প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি। আর সেসব সুস্পষ্ট তথ্য পেতে সময় লেগে যেতে পারে এক বছরের মত।

“বিষয়টি নিশ্চিত হতে পারলে তা হবে বিশাল অর্জন। আর যদি আমরা এই দাবি করতে পারি, তাহলে আমি এই কৃতিত্ব পাওয়ার অধিকারটি অনুভব করি।”

এর আগে ২০২০ সালে শুক্র গ্রহের মেঘে প্রাণের অস্তিত্ব থেকে তৈরি ফসফিন অণুর উপস্থিতির দাবি করা হয়েছিল। এক বছর পর সেটি বিতর্কিত হয়।সংবাদসূত্র: বিবিসি

(প্রতিবেদনটি প্রথম ফেইসবুকে প্রকাশিত হয়েছিল ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক)