লাম্পেদুসা: ইতালির এই শহরে এখন বাসিন্দার চেয়ে শরণার্থী বেশি

ইউএনএইচসিআর থেকেও শুক্রবার লাম্পেদুসার পরিস্থিতি ‘গুরুতর’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Feb 2024, 06:43 PM
Updated : 7 Feb 2024, 06:43 PM

ভূমধ্যসাগরে ইতালির ছোট্ট দ্বীপ লাম্পেদুসা। প্রায় ছয় হাজার মানুষের এই দ্বীপটিতে গত মঙ্গল ও বুধবার সাত হাজারের মতো শরণার্থী এসে আশ্রয় নিয়েছে। এরা সবাই ইউরোপে উন্নত জীবনের আশায় চরম ঝুঁকি নিয়ে সমুদ্র পেরিয়ে দ্বীপটিতে ঠাঁই নিয়েছে। উপচে পড়া এই শরণার্থীদের ভিড়ের কথা জানিয়ে বৃহস্পতিবার মেয়র ফিলিপ্পো মান্নিনো বলেন, শরণার্থী সংকট এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে আমাদের এখন আর ‘কিছু করার নেই’।

“গত ৪৮ ঘণ্টায় আমার দ্বীপে প্রায় সাত হাজার মানুষ এসেছে। এই দ্বীপ সবসময় তাদের স্বাগত জানিয়েছে এবং সাহায্যের জন্য হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। কিন্তু এখন পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে ভূমধ্যসাগরের ছোট্ট এই দ্বীপটি তা করতে গিয়ে নিজেরাই সংকটে পড়ে গেছে।”

মেয়র যত শরণার্থী আসার কথা বলেছেন, সে সংখ্যা সিএনএন থেকেও নিশ্চিত করা হয়েছে।

ইউএনএইচসিআর থেকেও শুক্রবার লাম্পেদুসার পরিস্থিতি ‘গুরুতর’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে। বলেছে, দ্বীপের জনজীবন স্বাভাবিক রাখতে এখন জরুরি ভিত্তিতে সেখান থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিতে হবে।

উত্তর আফ্রিকার দেশগুলো থেকে মূলত শরণার্থীরা লিবিয়া ও তিউনিসিয়া হয়ে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে পৌঁছানোর জন্য ‘প্রথম পয়েন্ট’ হিসেবে লাম্পেদুসায় আসে। তারপর ইতালির মূল ভূখণ্ড হয়ে ফ্রান্সে গিয়ে সারা ইউরোপ ছড়িয়ে পড়ে। সংবাদ সূত্র:সিএনএন

(প্রতিবেদনটি প্রথম ফেইসবুকে প্রকাশিত হয়েছিল ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক)