স্যামন মাছ বাঁচাতে ইতিহাসের সব থেকে বড় বাঁধ সরাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

জলবিদ্যুৎ উৎপাদনে স্যামন মাছের প্রজনন ভূমি ক্লামাথ নদীতে বাঁধ দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 20 Nov 2022, 06:09 AM
Updated : 20 Nov 2022, 06:09 AM

বিপন্ন মাছের আবাসস্থল ফেরাতে ক্যালিফোর্নিয়া-ওরেগন সীমান্তে ক্লামাথ নদীর চারটি বাঁধ অপসারণ করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

বৃহস্পতিবার ইউএস ফেডারেল এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন বাঁধগুলোর লাইসেন্স ফেরত ও অপসারণের অনুমোদন দিয়ে একটি আদেশ জারি করেছে।

রয়টার্স জানিয়েছে, মার্কিন ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাঁধ অপসারণের এই উদ্যোগে ক্লামাথ নদীর অবস্থার উন্নতি বা পুরনো চেহারা ফিরতে পারে।

প্রশান্ত মহাসাগর থেকে এই নদীপথ ধরে উজানে এসে ডিম ছাড়ে সামুদ্রিক চিনুক স্যামন ও বিপন্ন ছোট স্যামন মাছ। এরপর এসব মাছের পোনাগুলো ফিরে যায় সাগরে।

স্থানীয় আদিবাসীদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল এই প্রকল্প সরানোর; শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে তাদের পূর্বপুরুষরা এই স্যামন মাছের ওপর নির্ভর করে জীবন কাটিয়েছে। কিন্তু ইউরোপীয় বসতি আর ২০ শতকে গ্রামীণ পর্যায়ে বিদ্যুতায়নের কারণে তাদের জীবনযাত্রা ব্যাহত হয়েছে।

বাঁধ অপসারণের খবরে ইউরোক সম্প্রদায়ের চেয়ারম্যান জোসেফ জেমস এক বিবৃতিতে বলেছেন, “ক্লামাথ স্যামন ফিরে আসছে। মানুষ এই বিজয় অর্জন করেছে। আমরা এই মাছের প্রতি পবিত্র দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি, যা আমাদের একেবারে শুরু থেকে টিকিয়ে রেখেছে।”

জলবায়ু পরিবর্তন এবং খরার কারণেও স্যামন মাছের আবাস্থল ধ্বংসের মুখে পড়েছে। নদীও খুব উষ্ণ হয়ে উঠেছে এবং প্রচুর পরিমাণ পরজীবীর কারণে অনেক মাছের টিকে থাকা কঠিন হয়ে পড়ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের এই বাঁধগুলো ৭০ হাজার বাড়িতে পরিপূর্ণভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে আসছে। ওয়ারেন বাফেটের বার্কশায়ার হ্যাথওয়ের ইউনিট প্যাসিফিক কর্প কোম্পানি বিদ্যুৎ উৎপাদনের এই কাজটি করে আসছে।

কিন্তু জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে মাছের প্রবেশ ঠেকানোর সুরক্ষাপ্রাচীর ও কৃত্রিম নালা তৈরিসহ ব্যয়বহুল নতুন নিয়মের সম্মুখীন হয়ে কোম্পানিটি স্থানীয় গোষ্ঠী ও সরকারের সঙ্গে বাঁধ অপসারণের চুক্তির পথে হাঁটে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক