সিইও পদ ছাড়লেন নেটফ্লিক্সের সহ প্রতিষ্ঠাতা হেস্টিংস

এমন সময়ে তিনি পদত্যাগ করলেন যখন প্রত্যাশার চেয়ে অনেক বেশি গ্রাহক বাড়ার খবর দিল স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মটি।  

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 20 Jan 2023, 04:48 AM
Updated : 20 Jan 2023, 04:48 AM

ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সের সহ প্রতিষ্ঠাতা রিড হেস্টিংস সিইও হিসেবে পদত্যাগ করেছেন, যিনি দুই দশক ধরে এ দায়িত্বে ছিলেন।

বছরের শেষ ভাগে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্ল্যাটফর্মটির গ্রাহক বাড়ার খবরের মধ্যে তার পদত্যাগের খবর এল।

শুক্রবার রয়টার্স লিখেছে, হেস্টিং সিইও হিসেবে সরে দাঁড়ালেও নির্বাহী চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন।

তার দীর্ঘদিনের অংশীদার আরেক সহ প্রতিষ্ঠাতা টেড স্যান্ডোস সিইও এর দায়িত্বে আসবেন। আর চিফ অপারেটিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করবেন গ্রেগ পিটার্স।

এসব পরিবর্তন তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হবে বলে রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে।

গ্রাহক কমে যাওয়া নিয়ে ২০২২ সালের বড় অংশ জুড়ে চাপে থাকা স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মটি জানিয়েছে, বছরের শেষ তিন মাসে গ্রাহক বেড়েছে প্রায় ৭৭ লাখ। প্রত্যাশার চেয়ে এমন দর্শক টানার পেছনে ভূমিকা ছিল ‘হ্যারি অ্যান্ড মেগান’ ও ‘ওয়েনেসডে’ সিরিজের।

খরচ কমাতে যখন অনেকেই স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মের গ্রাহক হওয়ার মত খরচ কমিয়ে ফেলছিলেন তখন নেটফ্লিক্সের গ্রাহক আবার ঊর্ধ্বমুখী হল। ডিসেম্বর শেষে তাদের বৈশ্বিক গ্রাহক ২৩ কোটি ছাড়িয়েছে।

ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে অগ্রগামী নেটফ্লিক্সের বর্তমান অবস্থানে আসার পেছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন হেস্টিংস। অনলাইনে বিশ্বব্যাপী হলিউডের চলচ্চিত্র ও টিভি সিরিজকে নতুন নতুন দর্শকের কাছে নিয়ে গেছে এ সেবা।

তার পদত্যাগ ও গ্রাহক বাড়ার খবরে নেটফ্লিক্সের শেয়ারের দাম দিনের প্রথম ঘণ্টার লেনদেনে ৬ শতাংশের বেশি বেড়ে ৩৩৫ ডলার ছাড়িয়েছে।

স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাওয়া হেস্টিংস পদত্যাগের পর এক বিবৃতিতে এ খাতের ব্যবসায় কোভিড ও সাম্প্রতিক চ্যালেঞ্জের কথা তুলে ধরে বলেন, এসব কিছু দারুণভাবে কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়েছে। এ কারণে উত্তরসূরীর কাছে দায়িত্ব হস্তান্তরের এটিই উপযুক্ত সময় বলে পর্ষদ ও আমি মনে করছি।

চতুর্থ প্রান্তিকের আর্থিক হিসাব প্রকাশ করে নেটফ্লিক্স বিনিয়োগকারীদের বলছে, ২০২২ সাল ছিল বেশ জটিল। ঝুঁকিপূর্ণ শুরুর পরও তুলনামূলক ভালোভাবেই বছর শেষ হয়েছে। আয়ের প্রবৃদ্ধিতে নতুন করে গতি আনতে সঠিক পথেই এগোচ্ছি।

বৃহস্পতিবার আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের পর এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে হেস্টিংস বলেন, “মনে হচ্ছে, আমরা গতকালও নিজস্ব ‘আইপিও’তে ছিলাম। আর আমরা আর্থিকভাবেও স্বচ্ছল ছিলাম।”

২০০৭ সালে ভিডিও স্ট্রিমিং সেবা হিসেবে চালুর পর নেটফ্লিক্স পুরো হলিউডকে নাড়িয়ে দিয়েছিল। নেটফ্লিক্সের প্রতিদ্বন্দ্বী কোম্পানিগুলোও কোটি কোটি ডলার বিনিয়োগে বাধ্য হয়েছিল। এরপরও বিশ্বজুড়ে সফলতা দেখিয়ে আসছিল নেটফ্লিক্স।

তবে হেস্টিংসের কিছু সংখ্যক চ্যালেঞ্জ ‘স্ব-প্ররোচিত’ ছিল। উদাহরণ হিসেবে ধরা যায়, কোম্পানির ডিভিডি ব্যবসাকে ‘কিউইকস্টার’ নামের নতুন কোম্পানিতে রূপান্তরের পরিকল্পনা। ওই উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে ২০১১ সালে আট লাখ গ্রাহক খুইয়েছে নেটফ্লিক্স। আর এর প্রভাব পড়েছে কোম্পানির শেয়ারের দামেও।

২০২২ সালের এপ্রিলে কোম্পানিটি নিজেদের শেয়ারে আরেকটি বড় দরপতন দেখেছে। সেসময় এক দশকেরও বেশি সময় পর নিজেদের গ্রাহক হারানোর কথা জানায় নেটফ্লিক্স। ফলে সেবাটির বিজ্ঞাপণ সমর্থিত সংস্করণ চালু’সহ আগের বেশ কিছু সংখ্যক পরিকল্পনা পুনর্বিবেচনায় বাধ্য হন সদ্য সরে যাওয়ার ঘোষণা দেওয়া হেস্টিংস।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক