পেলোসির সফরের কড়া নিন্দা, মহড়ার সাফাই গাইল চীন

তাইওয়ান ঘিরে সামরিক মহড়ার সাফাই গেয়ে চীন বলেছে, সংকট এড়াতে তারা যত কিছু করা সম্ভব করেছে। কিন্তু তারা নিজেদের স্বার্থমূলে আঘাত লাগতে দিতে পারে না।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 4 August 2022, 05:37 PM
Updated : 4 August 2022, 05:37 PM

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফরকে ‘উন্মত্ত, দায়িত্বজ্ঞানহীন এবং অযৌক্তিক’ বলে নিন্দা করেছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই।

বৃহস্পতিবার ক্যাম্বোডিয়ায় দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে এক বৈঠকে ওয়াং এ নিন্দা করেন বলে জানায় বিবিসি।

বৈঠকে তিনি তাইওয়ান ঘিরে চীনের সামরিক মহড়ার সাফাই গেয়ে বলেছেন, তার দেশ সংকট এড়াতে যা কিছু করা সম্ভব করেছে। কিন্তু তারা “নিজেদের স্বার্থমূলে আঘাত লাগতে দিতে পারে না।”

পেলোসির নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের একটি প্রতিনিধি দল এশিয়া সফর করছে। তাদের আনুষ্ঠানিক সফর সূচিতে তাইওয়ানের নাম উল্লেখ না থাকলেও পেলোসির দ্বীপরাষ্ট্রটিতে সম্ভাব্য সফর নিয়ে অনেকদিন ধরেই গুঞ্জন চলছিল। যে গুঞ্জনকে সত্যি করে গত মঙ্গলবার রাতে সংক্ষিপ্ত সফরে তাইওয়ান যান পেলোসি।

পেলোসির তাইওয়ান সফর নিয়ে আগে থেকেই কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা চীন এর তীব্র প্রতিক্রিয়া জানায় এবং ওই রাতেই তাইওয়ানের চারপাশে ছয়টি পয়েন্টে আকাশে ও সমুদ্রে সামরিক মহড়া চালানোর ঘোষণা দেয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সরকার ব্যবস্থায় তিন নম্বরে অবস্থান পেলোসির। গত ২৫ বছরের মধ্যে দেশটির এত শীর্ষ পর্যায়ের কোনো নেতার এই প্রথম তাইওয়ান সফর।

চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় পেলোসির এ সফরকে তাইওয়ান প্রণালীর শান্তি ও স্থিতিশীলতা এবং চীন-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কের রাজনৈতিক ভিত্তির জন্য ক্ষতিকারক বলে বর্ণনা করেছে। পেলোসি তাইওয়ান সফর করে উত্তেজনা উস্কে দিতে ভূমিকা রেখেছেন বলেও অভিযোগ করেছে মন্ত্রণালয়।

তাইওয়ান ঘিরে চীনের মহড়া ওই অঞ্চলে সরাসরি যুদ্ধ উস্কে দিতে পারে বলে দক্ষিণ-পূর্ব দেশগুলোর জোট আসিয়ানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা এরই মধ্যে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।আর এর পরিপ্রেক্ষিতেই বৃহস্পতিবার চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং মহড়ার পক্ষে সাফাই গেয়েছেন।

আসিয়ানের পক্ষ থেকে সব পক্ষকে সর্বোচ্চ সহনশীলতা দেখাতে এবং যেকোনও ধরনের উস্কানিমূলক আচরণ এড়িয়ে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে। ওদিকে, চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং জোর দিয়ে বলেছেন, ‘‘তাইওয়ান শেষ পর্যন্ত মাতৃভূমির আলিঙ্গনে ফিরে আসবে।”

তাইওয়ান বিষয়ে চীনকে সরাসরি সমর্থন দিয়েছে রাশিয়া। বলেছে, এই মহড়া করা চীনের ‘সার্বভৌম অধিকার’।

বৃহস্পতিবার ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেন, ‘‘উস্কানির কারণেই ওই অঞ্চল এবং তাইওয়ান ঘিরে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে...ন্যান্সি পেলোসির সফর এজন্য দায়ী।”

তাইওয়ানে সংক্ষিপ্ত সফর শেষে বুধবার দক্ষিণ কোরিয়া যান পেলোসি।বর্তমানে তিনি জাপানে রয়েছেন। তাইওয়ান যাওয়ার আগে তিনি সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়া সফর করেছিলেন।

সিউলে পেলোসি দেশটির প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার কিম জিন-পিওর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং উত্তর কোরিয়ার পরমাণু অস্ত্র এবং ক্ষেপণাস্ত্র ‍হুমকি নিয়ে আলোচনা করেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইয়ুন সুক-ইওল অবশ্য পেলোসির সঙ্গে সরাসরি সাক্ষাৎ করেননি। কারণ তিনি ছুটিতে রয়েছেন। যদিও ছুটিতে তিনি রাজধানী সিউলেই অবস্থান করছেন। তিনি পেলোসির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন।

সিউলে থাকার পরও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের পেলোসির সঙ্গে দেখা না করা প্রসঙ্গে দেশটির বিরোধীদল থেকে বলা হচ্ছে, চীনের বিরোধিতা করবেন না বলেই তিনি এমনটা করেছেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক