বিপ্লবী গার্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সিরিয়া থেকে সরিয়ে নিল ইরান

ঊর্ধ্বতন ইরানি কমান্ডারদের সঙ্গে আরও কয়েক ডজন মধ্য-পদমর্যাদার কর্মকর্তাও সিরিয়া ছেড়ে গেছেন বলে জানিয়েছেন এক আঞ্চলিক নিরাপত্তা কর্মকর্তা।

রয়টার্স
Published : 1 Feb 2024, 03:20 PM
Updated : 1 Feb 2024, 03:20 PM

ইসরায়েলের প্রাণঘাতী হামলার মুখে সিরিয়া থেকে ইসলামিক বিপ্লবী গার্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সরিয়ে নিয়েছে ইরান। সিরিয়ায় নিজেদের প্রভাব ধরে রাখতে এখন থেকে স্থানীয় শিয়া মিলিশিয়াদের ওপর নির্ভর করবে ইরান।

বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পাঁচ কর্মকর্তা একথা জানিয়েছেন। তাদের মধ্যে ঊর্ধ্বতন একজন আঞ্চলিক নিরাপত্তা কর্মকর্তা বলেছেন, ঊর্ধ্বতন ইরানি কমান্ডাররা সিরিয়া ছেড়েছেন। তাদের সঙ্গে আরও কয়েক ডজন মধ্য-পদমর্যাদার কর্মকর্তাও সিরিয়া ছেড়ে গেছেন।

এর মধ্য দিয়ে সিরিয়ায় ইরানের সামরিক উপস্থিতি কমেছে বলে জানান তিনি। সাম্প্রতিক সময়ে সিরিয়ায় ইরানের বিপ্লবী গার্ডের কর্মকর্তাদের লক্ষ্য করে বেশ কয়েকবার হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল।

এক দশক আগে সিরিয়ায় প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে সহায়তা করতে গিয়েছিল ইরানের বিপ্লবী গার্ড সদস্যরা। তবে গত ডিসেম্বর থেকে এই বাহিনীর অর্ধ ডজনেরও বেশি কর্মকর্তা ইসরায়েলি হামলায় নিহত হয়েছে। যার মধ্যে বিপ্লবী গার্ডের গোয়েন্দা শাখার শীর্ষ কয়েকজন জেনারেলও আছেন।

সংশ্লিষ্ট তিন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ইরানের কট্টরপন্থিরা এসব হামলার প্রতিশোধ নেওয়ার দাবি জানাচ্ছে। তারপরও ইরান বিপ্লবী গার্ডের কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করে নিচ্ছে। কারণ তারা মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধে সরাসরি জড়িত হতে চায় না।

কর্মকর্তারা এও বলছেন যে, সিরিয়া ছাড়ার কোনো ইচ্ছা ইরানের নেই। কিন্তু সিরিয়া নিয়ে তাদের নতুন করে ভাবার বিষয়টি হামাস ও ইসরায়েলের মধ্যকার যুদ্ধের পরিণতি ওই অঞ্চলে কতটা বিস্তৃত হচ্ছে তা-ই সামনে নিয়ে এসেছে।

গত ৭ অক্টোবর থেকে গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাধনিতাকামী গোষ্ঠী হামাসের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের যুদ্ধ চলছে।

হামাসের সমর্থক ইরান এই সংঘাত থেকে দূরে সরে থাকার চেষ্টা নিয়েছে। যদিও তারা সমর্থন দিয়ে আসছে ইসরায়েল এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি বৈরি মনোভাবাপন্ন ‘প্রতিরোধের অক্ষের’ গ্রুপগুলোকে। যে গ্রুপে আছে লেবানন, ইয়েমেন, ইরাক এবং সিরিয়া।