লাখ লাখ শিশুকে জেনে বুঝে ‘সাইন আপ করিয়েছে’ মেটা

মেটা তরুণদের লক্ষ করে এমনসব ফিচার তৈরি করেছে যা আসক্তিমূলক ও ‘সাইকোলজিকাল ম্যানিপুলেশনে’র জন্য দায়ী। অথচ, কোম্পানিটি তাদের প্ল্যাটফর্ম নিরাপদ বলে প্রচার করছে।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 Nov 2023, 02:45 PM
Updated : 27 Nov 2023, 02:45 PM

ফেইসবুকের মূল কোম্পানি মেটার বিরুদ্ধে মামলা করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ৩৩টি অঙ্গরাজ্য। অভিযোগ, ১০ লাখেরও বেশি শিশু ব্যবহারকারীর অ্যাকাউন্ট নিয়ে অভিযোগ পেলেও মেটা নিষ্ক্রিয় করেছে কেবল এর ছোট একটি অংশ।

মামলার নথি অনুসারে, এই ঘটনা ঘটেছে ২০১৯ এর শুরু থেকে।

মামলায় অভিযোগ, টেক জায়ান্ট মেটা’র প্ল্যাটফর্মগুলিতে ১৩ বছরের কম বয়সী এমন লক্ষ লক্ষ ব্যবহারকারী রয়েছে যা ‘ওপেন সিক্রেট’, এবং অভিভাবকদের অনুমতি ছাড়াই ইনস্টাগ্রাম নিয়মিত ওই অপ্রাপ্তবয়স্ক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করে যাচ্ছে।

এ সকল অপ্রাপ্তবয়ষ্ক ব্যবহারকারী সম্পর্কে কোম্পানির অভ্যন্তরে অনেকেই অবগত ছিল, সেসব তথ্য নিয়মিত নথিভুক্ত ও কঠোর ভাবে বিশ্লেষণ করে তা নিশ্চিতও করেছে কোম্পানি। এবং অসম্ভব সতর্কতার সঙ্গে সেগুলো প্রকাশ্যে আসা থেকে ঠেকানো হয়েছে।

নিউ ইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিশিয়া জেমসসহ যুক্তরাষ্ট্রের ৩৩টি অঙ্গরাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেলরা অভিযোগ করেন শিশু ও কিশোরবয়সীদের মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বেশ কিছু ফিচার তৈরি করেছে।

অভিযোগে বলা হয়, মেটা তরুণদের লক্ষ করে এমনসব ফিচার তৈরি করেছে যা আসক্তিমূলক ও ‘সাইকোলজিকাল ম্যানিপুলেশনে’র জন্য দায়ী। অথচ, কোম্পানিটি তাদের ফ্ল্যাটফর্ম ব্যবহারের জন্য নিরাপদ বলে প্রচার করছে।

“ইচ্ছাকৃতভাবে নিজেদের প্ল্যাটফর্মে কারসাজিমূলক সব ফিচার তৈরি করে মেটা শিশুদের ভোগান্তি থেকে লাভবান হয়েছে।” – বলেন নিউ ইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিশিয়া জেমস।

অভিযোগের জবাবে মেটার মুখপাত্র বলেন, “আমরা অবাক হয়েছি যে, তরুণদের জন্য সঠিক মানের অ্যাপ তৈরিতে বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করার পরিবর্তে অ্যাটর্নি জেনারেলরা এই পথটি বেছে নিলেন।”

তবে, অঙ্গরাজ্যগুলোর জমা দেয়া আলামতের একটি বড় অংশ জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়নি।

“কোম্পানির ‘ইন্টার্নাল রিপোর্টিং চ্যানেলের’ মাধ্যমে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা সত্ত্বেও, এই টেক জায়ান্ট ১৩ বছরের কম ব্যয়সী ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্টের অভিযোগ উপেক্ষা করেছে, এবং তাদেরকে প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছে।” – উল্লেখ রয়েছে মামলায়।

জবাবে মেটা বলছে, এমন নির্বাচিত উদ্ধৃতি ও বিশেষভাবে বাছাই করা সব নথি জনসম্মুখে প্রকাশ করে তাদের কার্যক্রমকে ভুলভাবে চিহ্নিত করা হচ্ছে। 

কোম্পানিটি বলছে, ব্যবহারকারীদের বয়স যাচাইকরণ একটি ‘জটিল বিষয়’, বিশেষত তরুণ ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে যাদের কাছে পরিচয়পত্র বা লাইসেন্স নেই।