এবার তথ্য ফাঁসকারীকে ‘টুইটার যুদ্ধে’ চাইছেন মাস্ক

টুইটারের বিরুদ্ধে এবার দুর্বল নিরাপত্তা ব্যবস্থা, সেবাগ্রাহক ও এফটিসিকে ভুয়া তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করা এবং বিদেশি সরকারের এজেন্টদের বেতনভুক্ত পদে নিয়োগ দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন মাস্ক।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 31 August 2022, 07:40 AM
Updated : 31 August 2022, 07:40 AM

টুইটারের সাবেক নিরাপত্তা প্রধান ও তথ্য ফাঁসকারীর সাম্প্রতিক সাক্ষ্যের ভিত্তিতে বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে ক্রয় প্রস্তাবের সমঝোতা চুক্তি বাতিলের নতুন আবেদন দাখিল করেছেন ইলন মাস্ক।

একই সঙ্গে পিটার জাটকোকে আদালতে সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য আইনি নোটিশও পাঠিয়েছেন মাস্কের আইনজীবীরা।

যুক্তরাষ্ট্রের বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে’র (এসইসি) কাছে চুক্তি বাতিলের প্রথম আবেদনে মাস্ক সমঝোতা চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসতে চাওয়ার পেছনে যে কারণগুলো দেখিয়েছিলেন, সাবেক নিরাপত্তা প্রধান জাটকোর সাক্ষ্যের ভিত্তিতে তার সঙ্গে আরও তিনটি নতুন অভিযোগ এবার যোগ হওয়ার কথা জানিয়েছে প্রযুক্তি বিষয়ক সাইট ভার্জ।

জাটকোর সাক্ষ্যের ভিত্তিতে টুইটারের বিরুদ্ধে দুর্বল নিরাপত্তা ব্যবস্থা, সেবাগ্রাহক ও এফটিসিকে ভুয়া তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করা এবং বিদেশি সরকারের এজেন্টদের বেতনভুক্ত পদে নিয়োগ দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন মাস্কের আইনজীবীরা।

গেল সপ্তাহে তথ্য ফাঁসকারী হিসেবে জনসমক্ষে আসা পিটার জাটকোর দাবি, স্প্যাম ও বট অ্যাকাউন্ট কমানোর বদলে ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ানোর ওপরই বেশি জোর দিয়ে আসছে টুইটার এবং কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার কথা বলে মিথ্যাচার করেছে কোম্পানিটি।

এ ছাড়াও মোদি সরকারের চাপের মুখে কোম্পানিটি ভারতের স্থানীয় বাজারে এক সরকারি এজেন্টকে বেতনভুক্ত কর্মী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিল বলে জানিয়েছেন জাটকো। মাইক্রোব্লগিং প্ল্যাটফর্মটির নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে জাটকো যে অভিযোগগুলো তুলেছেন তা সত্যি হলে আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মটির সেবাগ্রাহকদের স্পর্শকাতর ও গোপন তথ্যে প্রবেশাধিকার পাওয়ার কথা ওই ভারতীয় এজেন্টের।

মাস্ক ও তার আইনজীবীরা এসইসির কাছে নতুন নথিপত্র জমা দিয়েছেন ২৯ অগাস্ট। অভিযোগগুলোর সত্যতা মিললে টুইটার সমঝোতা চুক্তির শর্ত ভেঙ্গেছে বলে প্রমাণিত হবে বলে উঠে এসেছে বার্তাসংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে।

মাস্ক চার হাজার চারশ কোটি ডলারে টুইটারের সকল শেয়ার কিনে নেওয়ার প্রস্তাব থেকে সরে আসার চেষ্টা করায় এরই মধ্যে আদালতের শরণাপন্ন হয়েছে টুইটার। ২৯ অগাস্টে মাস্কের আইনজীবীরা নতুন অভিযোগ দাখিল করার পর কোম্পানিটি আবারও দাবি করেছে, চুক্তি অবসানের নতুন নোটিশ ‘অবৈধ ও অন্যায়’।

অন্যদিকে মামলায় সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য জাটকোর কাছে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন মাস্ক। রয়টার্স বলছে, টুইটার কীভাবে স্প্যাম অ্যাকাউন্টের সংখ্যা হিসেব করে, আদালতে জাটকোর কাছে তার ব্যাখ্যা জানতে চাইবেন মাস্কের আইনজীবীরা।

এপ্রিল মাসে টুইটার কেনার প্রস্তাব দিয়ে জুলাই মাসেই সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেন মাস্ক। সে সময় মাস্কের অভিযোগ ছিল, টুইটার স্প্যাম ও বট অ্যাকাউন্টের সংখ্যা নিয়ে ভুল তথ্য দিয়ে তাকে এবং বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোতে বিভ্রান্ত করে আসছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ডেলাওয়্যারের আদালতে মাস্ক বনাম টুইটারের মামলার শুনানি শুরু হবে ১৭ অক্টোবর। মাইক্রোব্লগিং প্ল্যাটফর্মটি চাইছে, মাস্ককে শেয়ার প্রতি ৫৪ ডলার ২০ সেন্ট দাম দিয়ে টুইটার কিনে নেওয়ার নির্দেশ দেবে আদালত।

অন্যদিকে, মাস্ক সমঝোতা চুক্তি থেকে সরে আসার চেষ্টা করায় শেয়ার বাজারে দর পতনের মুখে পড়েছে টুইটার। কোম্পানির সাবেক নিরাপত্তা প্রধানের সাম্প্রতিক সাক্ষ্যে আরও বিরূপ প্রভাব পড়েছে শেয়ার বাজারে। কোম্পানির শেয়ারের দাম নেমে এসেছে ৩৯ ডলার ০২ সেন্টে।