মহাকাশে পৌঁছেছে চীনের ওয়েনতিয়ান মডিউল

দ্বিতীয় মডিউলটি যোগ হওয়ায় আরও তিন নভোচারীর ঘুমানোর জায়গা যোগ তৈরি হলো চীনের নির্মাণাধীন স্পেস স্টেশনটিতে। এ ছাড়াও যোগ হলো একটি বাড়তি এয়ারলক।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 July 2022, 08:30 AM
Updated : 25 July 2022, 08:38 AM

নির্মাণাধীন ‘তিয়ানগং’ স্পেস স্টেশনের দ্বিতীয় মডিউল ‘ওয়েনতিয়ান’ মহাকাশে পাঠিয়েছে চীন। ওয়েনতিয়ানের জন্য জুন মাসেই তিন নভোচারীকে মহাকাশে পাঠিয়েছে দেশটি।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ভার্জ জানিয়েছে, রোববার সকালেই তিয়ানগংয়ের উদ্দেশ্যে ওয়ানতিয়ান উৎক্ষেপণ করে চীন। ‘লং মার্চ ৫বি’ রকেটে চড়ে হাইয়ান প্রদেশের ‘ওয়েনচেং স্পেস লঞ্চ সাইট’ থেকে যাত্রা শুরুর ১৩ ঘণ্টা পর নির্মাণাধীন তিয়ানগংয়ে পৌঁছেছে স্পেস মডিউলটি।

চীনের নভোচারীদের জন্য নির্মাণ ও গবেষণা সামগ্রী বহন করে নিয়ে গেছে ওয়েনতিয়ান। তিয়ানগং স্টেশনে নানা বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা চালাতে ওই গবেষণা সরঞ্জাম ব্যবহার করবেন নভোচারীরা।

দ্বিতীয় মডিউলটি যোগ হওয়ার পর আরও তিনজনের ঘুমানোর জায়গা যোগ হলো চীনের নির্মাণাধীন স্পেস স্টেশনটিতে। এ ছাড়াও যোগ হলো একটি বাড়তি এয়ারলক।

তিয়ানগংয়ের তৃতীয় এবং শেষ মডিউল ‘মেংতিয়ান’-এর মহাকাশ যাত্রার কথা রয়েছে অক্টোবর মাসে। মেংতিয়ান পৌঁছানোর পর নিজের পূর্ণ আকার পেয়ে ইংরেজি অক্ষর ‘টি (T)’ এর আকার ধারণ করবে মহাকাশ স্টেশন তিয়ানগং।

তবে, লং মার্চ ৫বি রকেটের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা বিরাজ করছে বলে জানিয়েছে ভার্জ। মহাকাশে পাঠানো বেশিরভাগ রকেটের নিচের অংশ সাগরের পানিতে আছড়ে পড়লেও চীনের রকেটটির ক্ষেত্রে দৃশ্যপট কিছুটা ভিন্ন। আকারে তুলনামূরক বড় রকেটটির পতনের সময় দিক নিয়ন্ত্রণের কোনো সুযোগ নেই। ফলে, রকেটটি কোথায় আছড়ে পড়বে সে বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয়।

২০২০ সালে আইভরি কোস্টে পাওয়া ধাতব ধ্বংসাবশেষ চীনের লং মার্চ ৫বি রকেট থেকেই এসেছিল বলে ধারণা করা হয়। তিয়ানগং স্পেস স্টেশনের কোর মডিউল ‘তিয়ানহে’-কে কক্ষপথে ছুড়ে দেওয়ার পর রকেটটির নিচের অংশ অনিয়ন্ত্রিতভাবে ভারত সাগরে আছড়ে পড়েছিল।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক