হংকংয়ে মেসি না খেলায় টিকেটের অর্ধেক অর্থ ফেরত পাচ্ছেন দর্শকরা

প্রবল চাপের মুখে টিকেটের ৫০ শতাংশ অর্থ ফেরত দেওয়ার কথা জানিয়েছেন ম্যাচটির আয়োজকরা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 Feb 2024, 09:26 AM
Updated : 9 Feb 2024, 09:26 AM

চোটের কারণে হংকংয়ে না খেললেও তিন দিন পরই জাপানের মাঠে লিওনেল মেসি নামায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন ফুটবলপ্রেমীরা। প্রবল চাপের মুখে দর্শকদের টিকেটের ৫০ শতাংশ অর্থ ফেরত দেওয়ার কথা জানিয়েছে হংকংয়ের ম্যাচের আয়োজকরা।  

আয়োজক ট্যাটলার এশিয়া ইনস্টাগ্রামে এক বিবৃতিতে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে। একই সঙ্গে গত রোববারের ওই প্রীতি ম্যাচে মেসি না খেলায় দর্শকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছে তারা। 

হংকংয়ে সেদিন ৪০ হাজার দর্শক ধারণ ক্ষমতার স্টেডিয়ামে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। ৫ হাজার হংকং ডলারে (৬৪০ মার্কিন ডলার) টিকেট কেটে খেলা দেখেন অনেকে। মেসিকে মাঠে না নামানোয় খেলা চলার সময়ই স্লোগান দিতে থাকেন দর্শকরা। ম্যাচের শেষ দিকে বেশ ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায় অনেককে। টিকেটের অর্থ ফেরত চেয়ে অনেকে বলতে থাকেন, ‘রিফান্ড…রিফান্ড।’ 

সেদিনের ম্যাচের পর ইন্টার মায়ামির কোচ জেরার্দো মার্তিনো বলেছিলেন, হ্যামস্টিং চোটের জন্য মেসিকে নিয়ে ঝুঁকি নেওয়ার কোনো উপায় ছিল না তাদের। তবে গত বুধবার জাপানে ভিসেল কোবের বিপক্ষে ম্যাচে ৬০তম মিনিটে আর্জেন্টাইন মহাতারকাকে বদলি হিসেবে মাঠে নামান তিনি। 

মেসির সেদিন না খেলার কারণ দর্শকদের কাছে ব্যাখ্যা করার অনুরোধ করলেও তা করা হয়নি, দাবি আয়োজকদের। 

“যখন আমরা জানলাম যে মেসি খেলবেন না, তখন এর কারণ ব্যাখ্যা করার জন্য ইন্টার মায়ামির মালিক এবং ম্যানেজমেন্টের কাছে অনুরোধ করেছিলাম তাকে দাঁড়িয়ে কথা বলানোর জন্য। তিনি তা করেননি। জাপানে মেসি ও (লুইস) সুয়ারেসের খেলাটা আমাদের মুখে চপেটাঘাতের মতো মনে হচ্ছে।” 

জাপানে প্রায় ৬৯ হাজার দর্শক ধারণ ক্ষমতার স্টেডিয়ামে বেশিরভাগ আসনই ফাঁকা ছিল। টিকেট বিক্রি হয়েছিল মাত্র ২৮ হাজার ৬১৪টি। 

ট্যাটলার এশিয়া বলেছে, চোট না থাকলে মেসি ও সুয়ারেসসহ দলের শীর্ষ খেলোয়াড়রা ৪৫ মিনিট খেলবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ইন্টার মায়ামি।