ঘুরে দাঁড়িয়ে লাইপজিগকে ফের হারাল ম্যানচেস্টার সিটি

এক ম্যাচ বাকি থাকতেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গ্রুপের শীর্ষস্থান নিশ্চিত করল পেপ গুয়ার্দিওলার দল।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 Nov 2023, 09:58 PM
Updated : 28 Nov 2023, 09:58 PM

রক্ষণের দুর্বলতায় প্রথমার্ধেই দুই গোল হজম করে বসল ম্যানচেস্টার সিটি। দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়াল তারা। লাইপজিগকে আবারও হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গ্রুপ সেরা হলো পেপ গুয়ার্দিওলার দল।

ইতিহাদ স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার রাতে ম্যাচটি ৩-২ গোলে জিতেছে ইউরোপের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। লাইপজিগের মাঠে প্রথম লেগে তারা ৩-১ ব্যবধানে জিতেছিল।

গত রাউন্ডেই এই দুই দল নকআউট পর্ব নিশ্চিত করেছিল। বাকি ছিল কেবল গ্রুপ সেরা নির্ধারণ। লোইস ওপেনদার জোড়া গোলে লাইপজিগ সম্ভাবনা জাগিয়েছিল অসাধারণ কিছুর।

দারুণ প্রত্যাবর্তনে লাইপজিগের সেই আশা ভেস্তে দিল সিটি। আর্লিং হলান্ড ব্যবধান কমানোর পর সমতা টানেন ফিল ফোডেন। শেষে হুলিয়ান আলভারেসের লক্ষ্যভেদে আসরে টানা পঞ্চম জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা।

প্রথম ১২ মিনিটে কোনো পক্ষই প্রতিপক্ষ শিবিরে কোনোরকম ভীতি ছড়াতে পারেনি। লাইপজিগের পরের মিনিটের প্রচেষ্টাটিও হতে পারত তেমন কিছুই। কিন্তু, খুব সাধারণ একটি আক্রমণে সিটিকে স্তব্ধ করে দেয় সফরকারীরা।

লাইপজিগ গোলরক্ষক ইয়ানিস সাধারণ একটি গোলকিক নেন, কিন্তু মাঝমাঠে বলের গতি-প্রকৃতি ঠিক বুঝে উঠতে পারেননি সিটি ডিফেন্ডার মানুয়েল আকনজি। তার ব্যর্থতায় সামনের পুরো অংশ ফাঁকা পেয়ে যান লোইস ওপেনদা। দুই ছোঁয়ায় বল পায়ে ডি-বক্সে ঢুকে কোনাকুনি শটে ঠিকানা খুঁজে নেন বেলজিয়ান ফরোয়ার্ড।

সিটির দ্বিতীয় গোল হজমেও তাদের রক্ষণের দুর্বলতা ফুটে ওঠে। ৩৩তম মিনিটে দারুণ এক প্রতি-আক্রমণে ছুটে যান ওপেনদা, দারুণ ক্ষিপ্রতায় রুবেন দিয়াসকে ফাঁকি দিয়ে এবং বক্সে ইয়োশকো ভার্দিওলকে কাটিয়ে কাছের পোস্ট দিয়ে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন ২৩ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড।

দুই মিনিট পর ব্যবধান কমানোর দারুণ একটি সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি সিটি। ডি-বক্সে ফাঁকায় বল পেয়ে উড়িয়ে মারেন সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে আগের তিন ম্যাচে জালের দেখা পাওয়া হলান্ড।

দ্বিতীয়ার্ধের নবম মিনিটে দারুণ নৈপুণ্যে ব্যবধান কমান হলান্ড। অসাধারণ ক্ষিপ্রতায় প্রতিপক্ষের দুইজনের মধ্য দিয়ে বেরিয়ে ফিল ফোডেনের থ্রু পাস ধরে বক্সে ঢুকে কোনাকুনি শটে আসরে নিজের পঞ্চম গোলটি করেন নরওয়ের এই ফরোয়ার্ড।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৩৫ ম্যাচে হলান্ডের গোল হলো ৪০টি।

পাসিং ফুটবলে ৭০তম মিনিটে শানানো আক্রমণে সমতা টানে সিটি। বাঁ দিক থেকে ভার্দিওলের পাস বক্সের মুখে ধরে বাঁ পায়ের শটে স্কোরলাইন ২-২ করেন ফোডেন।

আক্রমণে জোর দিতে বিরতির কিছুক্ষণ পর ডিফেন্ডার কাইল ওয়াকারকে তুলে ফরোয়ার্ড আলভারেসকে নামান সিটি কোচ। নির্ধারিত সময় শেষের তিন মিনিট বাকি থাকতে তিনিই গড়ে দেন ব্যবথান। প্রতিপক্ষের পায়ে লেগে আসা বল বক্সে পেয়ে কোনাকুনি শটে গোলটি করেন এই আর্জেন্টাইন।

টানা পাঁচ জয়ে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে সিটি। রানার্সআপ লাইপজিগের পয়েন্ট ৯।

দিনের আরেক ম্যাচে রেড স্টার বেলগ্রেডকে ১-০ গোলে হারানো ইয়াং বয়েজ ৪ পয়েন্ট নিয়ে আছে তিন নম্বরে। ১ পয়েন্ট নিয়ে সবার নিচে সার্বিয়ান দলটি।

আরও পড়ুন

Also Read: এমবাপের শেষের গোলে পিএসজির রক্ষা

Also Read: ব্যর্থতার বৃত্ত ভেঙে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোয় বার্সেলোনা