ব্যর্থতার বৃত্ত ভেঙে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোয় বার্সেলোনা

তিন বছরের মধ্যে এই প্রথম চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউট পর্বে খেলা নিশ্চিত করল কাতালুনিয়ার দলটি।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 Nov 2023, 10:05 PM
Updated : 28 Nov 2023, 10:05 PM

বার্সেলোনার জন্য এটি স্রেফ একটি ম্যাচ ছিল না, তার চেয়েও যেন বেশি কিছু ছিল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আগের দুই আসরে যে গ্রুপ পর্বই পার হতে পারেনি তারা! সেই হতাশা মোছার লড়াইয়ে পিছিয়ে পড়ে দুই পর্তুগিজের হাত ধরে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়াল দলটি। কষ্টের জয়ে দুই আসর পর ইউরোপ সেরার মঞ্চে নকআউট পর্বে উঠল শাভি এর্নান্দেসের দল।

বার্সেলোনায় অলিম্পিক স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার রাতে ‘এইচ’ গ্রুপের ম্যাচে ২-১ গোলে জিতেছে বার্সেলোনা। পেপে আকুইনো পোর্তোকে এগিয়ে নেওয়ার পর জোয়াও কানসেলো এনে দেন সমতার স্বস্তি। পরে ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দেন জোয়াও ফেলিক্স।

দুই দলের প্রথম লেগের ম্যাচে ফেররান তরেসের একমাত্র গোলে জিতেছিল বার্সেলোনা। গ্রুপ পর্বে এ নিয়ে পাঁচ ম্যাচে চতুর্থ জয় পাওয়া কাতালুনিয়ার দলটি ১২ পয়েন্ট নিয়ে নিশ্চিত করল শেষ ষোলোয় খেলা।

শুরু থেকেই আক্রমণ করতে থাকেন ফেলিক্স-রাফিনিয়ারা। পঞ্চম মিনিটে ফেলিক্সের শট যায় পোস্টের অনেক বাইরে দিয়ে। একটু পর বক্সের বাইরে থেকে রাফিনিয়ার নিচু জোরাল শট বলের লাইনে থাকায় আটকে দেন গোলরক্ষক দিয়েগো কস্তা।

অষ্টাদশ মিনিটে ফেলিক্সের কাছের পোস্টে নেওয়া শট কর্নারের বিনিময়ে প্রতিহত করেন এক ডিফেন্ডার। পরপর দুটি কর্নার থেকে প্রতিপক্ষ গোলরক্ষককে পরীক্ষা নেওয়ার মতো কিছু করতে পারেনি বার্সেলোনা।

২৬তম মিনিটে লক্ষ্যে রাখা প্রথম শটেই জালে বল জড়ায় পোর্তো, কিন্তু গোল মেলেনি। সতীর্থের ক্রসে দূরের পোস্টে থাকা মেহেদি তেরেমি ভলিতে লক্ষ্যভেদ করলেও অফসাইডে ছিলেন তিনি। তবে গোল না পেলেও সাহসী হয়ে ওঠে পোর্তো।

চার মিনিট পরই এগিয়ে যায় পর্তুগালের দলটি। তেরেমির শট এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে বক্সে পেয়ে যান গালেনো। তার শট ঝাঁপিয়ে আটকান ইনাকি পেনা, কিন্তু পুরোপুরি বিপদমুক্ত করতে পারেননি। ফাঁকায় থাকা আকুইনো কোনাকুনি শটে জাল খুঁজে নেন।

পাল্টা জবাব বার্সেলোনা দেয় দুই মিনিট পরই। পেদ্রির পাস ধরে পথ আগলে দাঁড়ানো এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বক্সে ঠুকে পড়েন কানসেলো। দ্রুত কেউ তাকে চার্জ করতে না আসায় দেখে শুনে জোরাল শটে দূরের পোস্ট দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন এই পর্তুগিজ ডিফেন্ডার।

৪১তম মিনিটে পোর্তো গোলরক্ষক ভুল পাসে বল তুলে দেন পেদ্রির পায়ে। তার শট রক্ষণে প্রতিহত হওয়ার পর বক্সে পেয়ে যান রাফিনিয়া, কিন্তু বাইরে মেরে এগিয়ে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করেন এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডও।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই এগিয়ে যাওয়ার আনন্দ সঙ্গী হতে পারত বার্সেলোনার। কিন্তু ফেলিক্সের শট গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে ক্রসবারের উপরের দিকে লেগে বেরিয়ে যায়।

ফেলিক্সের ৫৭তম মিনিটের গোলে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। কানসেলোকে বল বাড়িয়ে বক্সে ঢুকে জায়গা করে নেন তিনি। স্বদেশির কাছ থেকে ফিরতি পাস পেয়ে নিখুঁত শটে সমর্থকদের আনন্দে ভাসান এই পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড।

৭৯তম মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নিতে পারত বার্সেলোনা। থ্রু পাস ধরে অনেকটা এগিয়ে রাফিনিয়ার নেওয়া শট আটকান কস্তা, তরেসের ফিরতি শট যায় বাইরে।

৯ মিনিট পর দৃষ্টিনন্দন গোল পেতে পারতেন রাফিনিয়া। কিন্তু ইলকাই গিনদোয়ানের বাড়ানো বলে এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের ওভারহেড কিক আটকে ব্যবধান বাড়তে দেননি কস্তা।

গ্রুপের অন্য ম্যাচে রয়্যাল এন্টওয়ার্পকে ১-০ গোলে হারিয়েছে শাখতার দোনেৎস্ক। পোর্তোর মতো ৫ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে নকআউট পর্বের আশা ভালোভাবে বাঁচিয়ে রেখেছে তারাও। টানা পাঁচ হারের তেতো স্বাদ পাওয়া এন্টওয়ার্প পয়েন্টের খাতা খুলতে পারেনি এখনও।

আরও পড়ুন

Also Read: এমবাপের শেষের গোলে পিএসজির রক্ষা

Also Read: ঘুরে দাঁড়িয়ে লাইপজিগকে ফের হারাল ম্যানচেস্টার সিটি