ভিনিসিউস কেঁদে বললেন, ‘বর্ণবাদ আনন্দটাই মাটি করে দিচ্ছে’

তবে হার না মেনে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ও জানিয়েছেন রেয়াল মাদ্রিদের এই তরুণ ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 26 March 2024, 10:52 AM
Updated : 26 March 2024, 10:52 AM

মাঠে নামলেই বর্ণবাদী আচরণ সইতে হয় ভিনিসিউস জুনিয়রকে, এমনকি তার অনুপস্থিতিতেও তাকে উদ্দেশ করে বর্ণবাদী মন্তব্য করা হয়- বারবার দর্শকদের এমন আচরণের শিকার হয়ে ফুটবল থেকে যেন মন উঠে যাচ্ছে তার। এই তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন রেয়াল মাদ্রিদ তারকা। বললেন, নিজেকে অনুপ্রাণিত রাখতেই এখন তাকে ভুগতে হচ্ছে।

বর্ণবাদ বিরোধী প্রচারণার অংশ হিসেবে মঙ্গলবার সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে স্পেনের মুখোমুখি হবে ব্রাজিল। আর মূলত যাকে ঘিরে এই আয়োজন, দীর্ঘদিন ধরে বর্ণবাদের শিকার হয়ে আসা সেই ভিনিসিউস ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে ওই বিষয়ে বলতে গিয়ে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন।

লা লিগা গত মৌসুমে ভিনিসিউসকে লক্ষ্য করে ১০টি বর্ণবাদী আচরণের ব্যাপারে প্রসিকিউটরদের কাছে অভিযোগ করে। চলতি মৌসুমেও একই পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গারকে।

“আমি স্রেফ ফুটবল খেলতে চাই, কিন্তু সামনে এগিয়ে যাওয়া খুব কঠিন… (বর্ণবাদী মন্তব্য শুনতে শুনতে) খেলার প্রতি আগ্রহ ক্রমেই কমছে।” 

“(স্পেন থেকে বিদায় নেওয়ার) ভাবনা অবশ্য মনে আসেনি। কারণ, যদি আমি স্পেন ছাড়ি তাহলে বর্ণবাদীদের আমি সেটাই দেব, যেটা তারা চায়। আমি এখানেই থাকব, যাতে বর্ণবাদীরা আমার মুখ আরও বেশি বেশি দেখতে পারে। আমি সাহসী একজন খেলোয়াড়, আমি রেয়াল মাদ্রিদের হয়ে খেলি এবং আমরা অনেক শিরোপা জিতি- যা অনেকে ভালোভাবে নেয় না।”

গত মে মাসে ভালেন্সিয়ার বিপক্ষে রেয়ালের ম্যাচ ১০ মিনিট বন্ধ ছিল দর্শকদের একটা অংশ ভিনিসিউসকে লক্ষ্য করে বর্ণবাদী আচরণ করায়। তাদের কয়েকজনকে চিহ্নিত করেন তিনি। পরে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে লাল কার্ড দেখেন ভিনিসিউস।

এই ঘটনার পর ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের পাশে দাঁড়ান অনেকেই। স্থানীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে বর্ণবাদ বিরোধী প্রচারণা শুরু হয়। কিন্তু এই বছর যেন আরও বেশি বর্ণবাদী আচরণের শিকার হতে হচ্ছে ভিনিসিউসকে। তাই, তার কণ্ঠে ঝরল এক রাশ হতাশা।

“এটা দিন দিন আরও বেদনাদায়ক হয়ে যাচ্ছে। প্রতি দিন, প্রতি ম্যাচে, প্রতিটি প্রতিযোগিতায় যেসবের মধ্য দিয়ে আমি যাই… এটা দিন দিন আরও খারাপ হচ্ছে।”  

“(অপরাধীদের) শাস্তি না হওয়াটা খুব হতাশাজনক। যদি আমরা ওদের শাস্তি দেওয়া শুরু করতে পারি, অবশ্য এতে তারা তাদের ভাবনা বদলাবে না, তবে স্টেডিয়ামে হোক বা ক্যামেরার সামনে হোক এই আচরণ করতে ভয় পাবে। এই ধরনের মানুষদের ভয়ের মধ্যে রাখতে হবে। আমি এর জন্য লড়াই চালিয়ে যেতে চাই, তবে এটা কঠিন। আমরা ম্যাচ জিতলাম না হারলাম, গুরুত্বপূর্ণ নয়। এখানে থেকেই আমি এর মধ্যে জয়ী।”