প্রথমার্ধের ভোগান্তিতে আপত্তি নেই জিদানকে ছোঁয়া শাভির

২০১৬ সালে জিনেদিন জিদানের গড়া রেকর্ড স্পর্শ করেছেন বার্সেলোনা কোচ।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Sept 2022, 07:51 AM
Updated : 11 Sept 2022, 07:51 AM

একাদশে ৯টি পরিবর্তন এনে কাদিসের বিপক্ষে সুযোগ তৈরি করার জন্য বার্সেলোনাকে শুরুতে ভুগতে হচ্ছিল খুব। প্রথমার্ধে গোলের জন্য কেবল ছয়টি শট নিতে পারে দলটি। চলতি মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে প্রথমার্ধে যা তাদের সর্বনিম্ন। তবে ওই নিষ্প্রভ পারফরম্যান্স নিয়ে কোনো আপত্তি নেই দলটির কোচ শাভি এর্নান্দেসের।

লা লিগায় কাদিসের মাঠে শনিবার দ্বিতীয়ার্ধে ঘুরে দাঁড়িয়ে ৪-০ গোলে জেতে বার্সেলোনা। ফ্রেংকি ডি ইয়ংয়ের গোলে সফরকারীরা এগিয়ে যাওয়ার পর ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রবের্ত লেভানদোভস্কি। আর অনাকাঙ্ক্ষিত কারণে দীর্ঘ বিরতির পর খেলা শুরু হলে শেষ দুটি গোল করেন আনসু ফাতি ও উসমান দেম্বেলে।

এই জয়ে ২০১৯-২০ মৌসুমের ২৯তম রাউন্ডের পর প্রথমবার লা লিগার পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থাকার সম্ভাবনা জাগাল বার্সেলোনা। ২০২০ সালের ১৯ জুন সেভিয়ার বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করে শীর্ষস্থান খোয়ানোর পর আর কখনও দ্বিতীয় স্থানের উপরে যেতে পারেনি কাতালান ক্লাবটি।

কাদিসের বিপক্ষে জয়ের পর ৫ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে আপাতত শীর্ষে আছে বার্সেলোনা। তবে রিয়াল মাদ্রিদের (১২) সামনে সুযোগ আছে তাদের পেছনে ফেলার। এক ম্যাচ কম খেলা স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নরা রোববার রিয়াল মায়োর্কার মুখোমুখি হবে।

দলকে কক্ষপথে ফেরানো শাভির হাতে ধরা দিয়েছে একটি অর্জন। বসেছেন জিনেদিন জিদানের পাশে। ২০১৬ সালে লা লিগায় জিদানের কোচিংয়ে প্রতিপক্ষের মাঠে টানা ১৭ ম্যাচ অপরাজিত ছিল রিয়াল মাদ্রিদ। আগামী ২ অক্টোবর মায়োর্কার মাঠে হার এড়াতে পারলেই এককভাবে রেকর্ডটি হয়ে যাবে শাভির।

এই মুহূর্তে দুই বছর পর কাদিসের বিপক্ষে জয়ই বেশি তৃপ্তি দিচ্ছে বার্সেলোনাকে।

“সফরের জন্য কঠিন একটা জায়গায় এটা চমৎকার জয়। এটা আমাদের লিগে পয়েন্ট টেবিলের চূড়ায় রেখেছে।”

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ভিক্তোরিয়া প্লাজেনের বিপক্ষে খেলা দল থেকে ৯ পরিবর্তন আনেন শাভি। দুই ম্যাচের শুরুর একাদশে ছিলেন কেবল গোলরক্ষক মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেন ও মিডফিল্ডার ফ্রেংকি ডি ইয়ং।

এত পরিবর্তনের জন্যই হয়তো শুরুতে গোলের জন্য বেশ ভুগতে হয় বার্সেলোনাকে। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে আগের চার ম্যাচে ১৬ গোল করা দলটি জালের দেখা পায় ৫৫তম মিনিটে। শেষ পর্যন্ত অবশ্য অনায়াস জয়ই পায় বার্সেলোনা। শেষটা মধুর হওয়াতেই হয়তো শুরুর ভোগান্তি নিয়ে খুব একটা দুর্ভাবনা নেই শাভির।

“প্রথমার্ধে আমরা যতটা চেয়েছিলাম, ততটা সুযোগ তৈরি করতে পারিনি। (প্রথমার্ধে) রাফিনিয়ার যে শটটা পোস্টে লেগেছিল, সেটা যদি জালে যেত, সব কিছু অন্যরকম হতো। দ্রুত গোল করাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ধৈর্য ধরে অপেক্ষায় ছিলাম, কিন্তু শেষ পাসটা দিতে পারছিলাম না। তবে যা দেখেছি, তাতে সব মিলিয়ে আমি খুশি।”

দারুণ ছন্দে থেকেই আগামী মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচে বায়ার্ন মিউনিখের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বার্সেলোনা। জার্মান চ্যাম্পিনদের বিপক্ষে তাদের সাম্প্রতিক রেকর্ড বেশ নাজুক। সবশেষ তিন ম্যাচে ন্যূনতম প্রতিরোধ গড়তে পারেনি তারা, হজম করেছে ১৪ গোল। তাদের বিপক্ষে খেলার আগে মূল খেলোয়াড়দের বিশ্রাম দেওয়ার ভাবনা স্বাভাবিক। তবে শাভি দাবি করলেন, সামনে বায়ার্ন ম্যাচ না থাকলেও পরিবর্তনের পথেই হাঁটতেন তিনি।

“পরিবর্তন পুরো মৌসুম ধরেই চলবে। কার্ডের জন্য খেলোয়াড় নিষিদ্ধ থাকতে পারে, চোট সমস্যা থাকতে পারে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক