বাড়ি ফেরা হলো না কুয়েট শিক্ষার্থী রাহুলের

সান্তাহারের উদ্দেশ্যে ট্রেনে উঠে ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। ট্রেনটি জয়পুরহাট এসে পৌঁছালে তার ঘুম ভাঙে।

জয়পুরহাট প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Nov 2022, 08:11 AM
Updated : 11 Nov 2022, 08:11 AM

পরীক্ষা শেষে বগুড়ায় গ্রামের বাড়ি ফিরছিলেন খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী রিদওয়ানুল হক রাহুল। কিন্তু জয়পুরহাট স্টেশনে দ্রুত নামার সময় পা পিছলে চলন্ত ট্রেনের নিচে পড়লে তার মৃত্যু হয়। 

শুক্রবার ভোর রাত ৪টার দিকে জয়পুরহাট স্টেশনে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানান সান্তাহার রেলওয়ে থানার ওসি মোক্তার হোসেন।

নিহত ২৩ বছরের রাহুল বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার কালীপাড়া গ্রামের মৃত শাহরিয়ার রইচের ছেলে। তিনি খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। 

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে ওসি মোক্তার জানান, কুয়েটের একাডেমি পরীক্ষা শেষ করে বহস্পতিবার খুলনা থেকে ছেড়ে আসা চিলাহাটিগামি ‘সীমান্ত এক্সপ্রেস’ ট্রেনে করে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছিলেন রাহুল। 

রাহুলের মানিব্যাগ পাওয়া ট্রেনের টিকিট অনুযায়ী, তিনি খুলনা থেকে রওয়ানা হয়ে ঈশ্বরদী আসেন। সেখান থেকে সান্তাহারের উদ্দেশ্যে আবারও ট্রেনে উঠে ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। ট্রেনটি জয়পুরহাট এসে পৌঁছালে তার ঘুম ভেঙ্গে যায়।

এ সময় তিনি দ্রুত জয়পুরহাট স্টেশন নামার সময় পা পিছলে চলন্ত ট্রেনের নিচে পড়ে যান। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

আইনগত প্রক্রিয়া শেষে ওই শিক্ষার্থীর মরদেহ তার পরিবারের হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

কুয়েট উপাচার্যের শোক প্রকাশ

এদিকে রাহুলের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন কুয়েটের উপাচার্য মিহির রঞ্জন হালদার।

শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়টির জনসংযোগ ও তথ্য শাখার সহকারী পরিচালক মনোজ কুমার মজুমদার স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়- “খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এর লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী টি. এম. রিদওয়ানুল হক রাহুলের (রোল নং: ১৮১৮০৫১) অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মিহির রঞ্জন হালদার।

“তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী রিদওয়ানুলের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক