স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় আওয়ামী লীগ নেতাকে ‘অপমান’

“আমি হ্যাঁ সূচক জবাব দিলে তিনি আমার ওপর ‘ক্ষিপ্ত হয়ে’ আমাকে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় ব্যবহার করতে নিষেধ করেন।”

ফেনী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 Nov 2023, 03:50 PM
Updated : 28 Nov 2023, 03:50 PM

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ‘স্বতন্ত্র প্রার্থী’ হলে বাধা দেওয়া হবে না- এমন ইঙ্গিত আসার পর ফেনী-৩ আসনে নির্বাচনে লড়তে চাওয়া আওয়ামী লীগের এক নেতাকে অপমান করার অভিযোগ উঠেছে দলীয় আরেক নেতার বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার সকালে সোনাগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জেড এম কামরুল আনামকে বের হয়ে যেতে বলেন পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম খোকন।

তিনি সোনাগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদেও রয়েছেন।

ফেনী-৩ (সেনাগাজী-দাগনভূঞা) আসনে বর্তমানে সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনটি মহাজোটকে ছেড়ে দেয় আওয়ামী লীগ।

এজন্য সেসময় দলীয় মনোননয় পেয়েও নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান নৌকার প্রার্থী বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবুল বাশার। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন আবুল বাশার।

ঘটনার বর্ণনায় বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে কামরুল আলম বলেন, “দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চেয়ে না পেয়ে ফেনী-৩ আসন (সেনাগাজী-দাগনভূঞা) থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার ঘোষণা দেই। সকালে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে উপজেলা কার্যালয়ে গেলে রফিকুল ইসলাম খোকন আমার কাছে স্বতন্ত্র নির্বাচন করবো কি-না জানাতে চান।

“আমি হ্যাঁ সূচক জবাব দিলে তিনি আমার ওপর ‘ক্ষিপ্ত হয়ে’ আমাকে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় ব্যবহার করতে নিষেধ করেন। প্রয়োজনে দলীয় কার্যালয় তালা লাগিয়ে দেওয়ার কথাও বলেন রফিকুল। একই সঙ্গে তিনি আমাকে ব্যক্তিগত অফিস নিয়ে নির্বাচনি প্রচারণা করতে বলেন। এতে আমি অপমানিত হয়েছি। পরে আমার সঙ্গে থাকা নেতা-কর্মীদের নিয়ে কার্যালয় থেকে বেরিয়ে যাই।”

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মেয়র রফিকুল ইসলাম বলেন, “কামরুলকে শেখ হাসিনা দলীয় মনোনয়ন দেননি। এখন তিনি যদি স্বতন্ত্র হয়ে নির্বাচন করেন, তাহলে তিনি দলীয় সিদ্ধান্তকে অমান্য করবেন। আর দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে দলীয় কার্যালয় থেকে নির্বাচনি প্রচার-প্রচারণা করার কোনো অধিকার নেই তার। এজন্য তাকে কার্যালয় ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে বলেছি।”