সাংবাদিকের কোমরে রশি: দাগনভূঞার ওসির অপসারণ দাবি

এসএম ইউসুফ আলী বুধবার জামিনে ছাড়া পেয়েছেন।

ফেনী প্রতিনিধি
Published : 23 Nov 2022, 04:00 PM
Updated : 23 Nov 2022, 04:00 PM

ফেনীর এক সাংবাদিককে কোমরে রশি বেঁধে আদালতে নেওয়ার প্রতিবাদে জেলার সাংবাদিকদরা মানববন্ধন করেছেন, যেখানে তারা দাগনভূঞা থানার ওসির অপসারণ দাবি করেন। 

বুধবার দুপুরে ফেনী শহরের শহীদ মিনার প্রঙ্গণে এ কর্মসূচি পালিত হয়। 

‘দৈনিক অধিকার’ পত্রিকার ফেনী ব্যুরো প্রধান ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘ফেনী রিপোর্ট’-এর সম্পাদক এসএম ইউসুফ আলীকে মঙ্গলবার একটি মামলায় পুলিশ কোমরে রশি বেঁধে এবং হাতকড়া পরিয়ে আদালতে হাজির করে। এ ঘটনায় জেলার নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ তীব্র ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ করেন। 

বুধবার তিনি জামিনে কারাগার থেকে ছাড়া পেয়েছেন।

মানববন্ধনে বক্তারা দাগনভূঞা থানার ওসি মো. হাসান ইমামকে থানা থেকে প্রত্যাহার করার দাবি জানান।    

প্রবীণ সাংবাদিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহেরের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শাহজালাল রতন, মুহাম্মদ আবু তাহের ভুইয়া, আব্দুর রহিম, আজাদ মালদার, মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন, নাজমুল হক শামীম, এনএন জীবন, জসিম মাহমুদ, আরিফুর রহমান, আতিয়ার সজল, মাইনুল রাসেল, দিদারুল আলম, শফি উল্লাহ রিপনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকবৃন্দ। 

কারাগার থেকে বেরিয়ে ইউসুফ আলী গণমাধ্যমকে জানান, ২০১৮ সালে নির্বাচন ঘিরে জ্বালাও-পোড়াওয়ের সময় পুলিশ ছাগলনাইয়া থানায় একটি নাশকতার মামলা করে। 

ওই মামলায় ইউসুফ আলীর নাম না থাকলেও পরে ২০১৯ সালে দেওয়া অভিযোগপত্রে তার নাম ঢোকানো হয় বলে তিনি জানান।

ইউসুফ আলী বলেন, গত সোমবার এই মামলায় আদালতে হাজিরার তারিখ ছিল। কিন্তু সেদিন ওই আদালতের বিচারক না থাকায় মামলাটি অন্য বিচারকের আদালতে পাঠানো হয় এবং যথারীতি শুনানি হয়। কিন্তু বিষয়টি তাদের জানা না থাকায় তারা সেই আদালতে হাজির থাকতে পারেননি। এ কারণে সেদিন তাদের জামিন বাতিল হয়ে যায় এবং যথারীতি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়। 

“এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির পর পুলিশ সোমবার রাত দেড়টার দিকে আমাকে ঘুম থেকে তুলে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায়। মঙ্গলবার দুপুরে দাগনভূঞা থানা পুলিশ আমাকে কোমরে রশি বেঁধে আদালতে প্রেরণ করে।” মঙ্গলবার আদালতে বিচারক না থাকায় জামিন শুনানি হয়নি এবং আদালত থেকে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। 

আরও পড়ুন:

পুলিশের মামলায় আদালতে নিতে সাংবাদিকের কোমরে রশি

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক