তুমব্রু সীমান্তে ধানক্ষেতে রকেট লাঞ্চার, তুলে আনলেন নারী

ঘুমধুম ইউপির চেয়ারম্যান বলেন, “এলাকাবাসী খবর দেওয়ার পর রকেট লাঞ্চারের ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।”

বান্দরবান প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 Feb 2024, 12:08 PM
Updated : 9 Feb 2024, 12:08 PM

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি তুমব্রু সীমান্ত এলাকার ধানক্ষেতে পাওয়া একটি অবিস্ফোরিত রকেট লাঞ্চার তুলে রাস্তার পাশে ফেলে রাখা হয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে উপজেলার পশ্চিমকূল তুমব্রু সীমান্ত এলাকায় ধানক্ষেতে কাজ করার সময় স্থানীয় এক নারী একটি রকেট লাঞ্চার দেখতে পান।

পরে ওই নারী লাঞ্চারটি হাতে ধরে তুলে এনে রাস্তার পাশে ফেলে রাখেন বলে প্রত্যক্ষদর্শী তুমব্রু এলাকার বাসিন্দা ইয়াসিন আরাফাত বাবু সাংবাদিকদের জানান।

পশ্চিমকূল তুমব্রু এলাকার বাসিন্দা শেখ কামাল বলেন, “যে ধানক্ষেতে লাঞ্চারটি পাওয়া যায়, সেটি সীমান্ত থেকে মাত্র দেড়শ গজ দূরে হবে।”

তিনি আরও বলেন, “কয়েক দিন আগে ওপারে মিয়ানমার সরকারি বাহিনী ও আরাকান আর্মিদের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনার কোনো এক সময় লাঞ্চারটি এখানে এসে পড়ে থাকতে পারে।”

বিকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, লাল পতাকা টানিয়ে ঘুমধুম থেকে তুমব্রু চলাচলের রাস্তা বাঁশ দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছেন বিজিবির সদস্যরা। রাস্তার পাশে রাখা রকেট লাঞ্চার ঘিরে জড়ো হয়েছেন স্থানীয়রা। কেউ ছবি তুলছেন, কেউ ভিডিও করছেন। পাশে রয়েছে বিজিবির একটি তল্লাশি চৌকি। যে রাস্তার পাশে লাঞ্চারটি রাখা হয়েছে, সেখান থেকে বিজিবির এই তল্লাশি চৌকির দূরত্ব আনুমানিক ৩০-৪০ গজ।

বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত লাঞ্চারটি রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান এ কে এম জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, “এলাকাবাসী খবর দেওয়ার পর রকেট লাঞ্চারের ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।”

যোগাযোগ করা হলে ঘুমধুম পুলিশ তদন্তের কেন্দ্রে এসআই মাহফুজ ইমতিয়াছ ভুঁইয়া বলেন, “রকেট লাঞ্চার ব্যাপারে এলাকাবাসী আমাদের জানিয়েছেন। কিন্তু বিষয়গুলো বিজিবি দেখছে।”

আরও পড়ুন

Also Read: উদ্ধার করা মর্টার শেলের নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরণ

Also Read: কুড়িয়ে পাওয়া মর্টার শেল বিক্রি করতে যাচ্ছিল রোহিঙ্গা শিশুরা

Also Read: হঠাৎ চেপে বসা এক যুদ্ধ