কলেজে যাওয়ার পথে ছাত্রীকে তুলে নিয়ে ‘ধর্ষণ’

সাজনের এক সহযোগী দোকান বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে দেয়। পরে ওই দোকানে আটকে রেখে মেয়েটিকে একাধিক বার ধর্ষণ করে সাজন।

নেত্রকোণা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Feb 2024, 01:07 PM
Updated : 15 Feb 2024, 01:07 PM

নেত্রকোণার মদন উপজেলায় কলেজে যাওয়ার পথে এক ছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। 

মঙ্গলবার সকালে পৌরসদরের বাসা থেকে কলেজে যাওয়ার পথে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা বৃহস্পতিবার বিকালে মদন থানায় মামলা দায়ের করেন বলে মদন থানার ওসি উজ্জ্বল কান্তি সরকার জানান। 

আসামি ২২ বছর বয়সী সাজন মিয়া মদন পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মাসুদ মিয়ার ছেলে।    

ভুক্তভোগী ছাত্রীর বাসা পৌরসদরে। তিনি স্থানীয় একটি কলেজের একাদশ শ্রেণীতে পড়েন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য তাকে নেত্রকোণা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

মামলার বিবরণে বলা হয়, গত মঙ্গলবার সকালে বাসা থেকে কলেজে যাওয়ার পথে সাজন মেয়েটির পথ আটকে কু-প্রস্তার দেয়। এক পর্যায়ে তাকে তুলে দেওয়ান বাজার রোডের একটি চালের দোকানে নিয়ে যায়। 

এ সময় সাজনের এক সহযোগী বাইরে থেকে দোকানে তালা লাগিয়ে দেয়। পরে ওই দোকানে আটকে রেখে মেয়েটিকে একাধিকবার ধর্ষণ করে সাজন। 

ভুক্তভোগী মেয়েটি বলেন, “আমি চিৎকার শুরু করলে হত্যার হুমকি দিয়ে সাজন আমাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। পরে আমি ঘটনাটি আমার পরিবারকে জানাই। আমি সাজনের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।”    

মেয়েটির মা বলেন, “কলেজে যাওয়ার পথে দিনদুপুরে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে আমার মেয়েকে ধর্ষণ করেছে। বাসায় গিয়ে মেয়েটি কান্নাকাটি করে আমাকে সব জানিয়েছে। বিচারের আশায় থানায় মামলা করেছি।” 

ঘটনার পর থেকে সাজন পলাতক থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।