‘চুরির অপবাদে’ শিশুর মস্তক মুণ্ডন ও খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন

‘রাতভর নির্যাতন’ শেষে রোববার সকালে শিশুটির মাথা ন্যাড়া করে বাড়ির সামনে বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে রাখা হয়।

নেত্রকোণা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 July 2022, 04:46 PM
Updated : 24 July 2022, 04:46 PM

নেত্রকোনার মদন উপজেলায় টাকা চুরির অপবাদে এক শিশুর মাথা ন্যাড়া করে ও বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে।

মদন থানার ওসি মুহম্মদ ফেরদৌস আলম জানান, রোববার এ ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয় এক ইউপি সদস্যের হস্তক্ষেপে ১১ বছর বয়সী এই শিশু মুক্তি পায়।

এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে বলে জানান ওসি ফেরদৌস।

মামলার নথির বরাতে ফেরদৌস আলম জানান, শনিবার সকালে মদন উপজেলার কাজল মীরের ছেলে সুমন মীর (১৮) তার ঘরে একটি বাক্সে সাড়ে ১১ হাজার টাকা রাখেন। টাকা রাখার সময় শিশুটি ছাড়াও পরিবারের কয়েকজন উপস্থিত ছিল। বিকালে বাক্সের মধ্যে টাকা না পেয়ে ওই শিশুকে সন্দেহ করেন সুমন।

“সন্ধ্যায় শিশুটিকে বাড়ির সামনে পেয়ে সুমন তার ঘরে নিয়ে আটকে রাখেন। রাতভর নির্যাতন শেষে রোববার সকালে শিশুটির মাথা ন্যাড়া করে বাড়ির সামনের বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়।”

সকালে খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য সুলতান উদ্দিন শিকলে বাঁধা শিশুটিকে মুক্ত করেন। ইউপি সদস্য সুলতান বলেন, “আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটির শিকল খুলে দিই। সুমন কাজটা খুব খারাপ করেছেন।”

এ ব্যাপারে সুমন মীরের ভাষ্য, “নির্যাতন নয়, টাকা চুরির দায়ে শিশুটিকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে।”

তবে শিশুটি টাকা চুরির কথা অস্বীকার করে তাকে নির্যাতনের বিচার দাবি করেছে।

ওসি ফেরদৌস আলম জানান, খবর পেয়ে এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে। শিশুটির পরিবারের পক্ষ থেকে সুমন মীরসহ তিন জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনার পর সুমন মীরসহ আসামিরা পালিয়ে গেছে। তাদের ধরতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক