লন্ডন থেকে ‘সিগন্যাল’ নিয়ে ফিরছেন মেয়র আরিফ

আরিফুলের বক্তব্যের মাঝে নেতাকর্মীদের উল্লাসধ্বনি দিতে দেখা যায়।

সিলেট প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 12 April 2023, 01:03 PM
Updated : 12 April 2023, 01:03 PM

নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা না করা নিয়ে তুমুল জল্পনার মধ্যে লন্ডনে অবস্থানরত সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানিয়েছেন, তিনি এ ব্যাপারে দল থেকে ‘সিগন্যাল’ পেয়েছেন।    

মঙ্গলবার লন্ডনের মেনর পার্ক এলাকায় রয়েল রিজেন্টি কমিউনিটি সেন্টারে যুক্তরাজ্য শাখা যুবদলের পক্ষ থেকে আয়োজিত ইফতার মাহফিলের আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সেই সভায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও উপস্থিত ছিলেন।

আরিফের বক্তব্যের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রয়েছে। তিন মিনিট ৩৯ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে একটি হলরুমের ভেতর দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আরিফকে বক্তব্য দিতে দেখা যায়। তিনি হালকা নীল শার্টের উপর গাঢ় নীল ব্লেজার পরিহিত ছিলেন।

তারেক রহমান ও আরিফুল হক চৌধুরী মঞ্চের পাশাপাশি চেয়ারে উপবিষ্ট ছিলেন। আরিফুলের বক্তব্যের মাঝে নেতাকর্মীদের উল্লাসধ্বনি দিতে দেখা যায়। পরে নেতাকর্মীরা তাকে মঞ্চে রেখে তার নামেও স্লোগান দেন। অনুষ্ঠানে অনেক প্রবাসী পরিবার নিয়েও অংশ নেন।

সিলেট নগরজুড়ে যখন নির্বাচনের আমেজ বইছে ঠিক সেই মুহূর্তে মেয়র আরিফ লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে নির্বাচন ও প্রার্থিতা নিয়ে আলোচনা করতে গেছেন বলে দলের নেতারা জানিয়েছেন।

সিলেট মহানগর বিএনপির একজন নেতা জানান, আরিফুল হক চৌধুরী সোমবার তারেক রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। লন্ডনের অভিজাত কিংস্টন এলাকায় তাদের এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। 

তিনি আরও জানান, দলীয় পদে থেকে নির্বাচনে গেলে আরিফ দল থেকে বহিষ্কৃত হবেন। তিনি দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচন করবেন না। তবে বিএনপি নির্বাচনে না গেলেও দলীয় পদ ছেড়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেও আরিফুল হক চৌধুরীকে বহিষ্কার হতে হবে না। 

এ নিয়ে জল্পনা-কল্পনার মধ্যেই মেয়র আরিফুলের এই বক্তব্য সামনে এল।  

আরিফুল তার বক্তব্যের শুরুতেই লন্ডন প্রবাসীদের নিজের, সিলেট সিটি করপোরেশন ও বিএনপির পক্ষ থেকে রমজানের শুভেচ্ছা এবং এ ধরনের আয়োজনের জন্য সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান।     

মেয়র বলেন, “এই সরকারের আমলে দুই দুইবার বিএনপির হয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছি। কিন্তু এবার যেহেতু আমাদের দল এই স্বৈরাচারী সরকার, ফ্যাসিস্ট সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না। সেই ক্ষেত্রে আমরা অটল।…

“তবে, একটি কথা বলে রাখতে চাই। আজকে যুক্তরাজ্যে আসছি মাত্র চারদিন… হ্যাঁ, আমার সঙ্গে আমার নেতার (তারেক রহমান) মিটিং হয়েছে। তিনি আমাকে একটা সিগন্যালও দিয়েছেন। সেটা রেড কিংবা সবুজ- সেটা সময়ই বলে দেবে ইনশাল্লাহ। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বিজয় অর্জন করব।“

Also Read: নির্বাচনের আগে মেয়র আরিফ লন্ডনে, প্রার্থিতা নিয়ে জল্পনা

ইফতারির অনুষ্ঠান শেষে মেয়র আরিফ সঙ্গীদের নিয়ে বাইরে বেরিয়ে এলে সেখানে সাংবাদিকরা তাকে ঘিরে ধরেন।  

তখন নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন কি-না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “আমি তো একটা দল করি। সব কিছুর পরেও আমি একটা কথা বলছি। আমার নেতা আমাকে একটা সিগন্যাল দিয়েছেন; সেটা কিছু দিনের মধ্যেই… সময়েই কথা বলবে। এবং দেখবেন আপনারা।“

এই বক্তব্যের ব্যাপারে জানার চেষ্টা করেও মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

তবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন লন্ডনে বসবাসরত সিলেট ভয়েস এর বিশেষ প্রতিনিধি আহমদ এমরান।

তিনি বুধবার বিকালে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে আরিফের বক্তব্য ও ভিডিওটির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, “মেয়র প্রথমে হলরুমের ভেতরে বক্তব্য দেন পরে বাইরে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গেও আলাদাভাবে কথা বলেছেন। তিনি হাসিখুশি ও প্রাণবন্ত ছিলেন।“

এদিকে মেয়র আরিফ লন্ডন থেকে কবে দেশে ফিরবেন এ নিয়ে জেলা ও মহানগর বিএনপির কেউ কথা বলতে রাজি হননি।

পরে সিলেট সিটি করপোরেশনে যোগাযোগ করা হলে একজন কর্মকর্তা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “খুব সম্ভবত তিনি ১৫ এপ্রিল বিমানে উঠবেন। তবে এটা আগে-পরে হতে পারে।”

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আরিফুল হক চৌধুরী টানা দুইবারের মেয়র। এর আগে তিনি সিলেট পৌরসভার জনপ্রতিনিধি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০০২ সালে সিলেট সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠার পর এখন পর্যন্ত চারবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২০০৩ সালে প্রথম নির্বাচনে বিজয়ী কামরান ২০০৮ সালের দ্বিতীয় নির্বাচনেও কারাগার থেকে মেয়র নির্বাচিত হন। ২০১৩ সাল থেকে মেয়র পদে আছেন বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী।

তফসিল ঘোষণার পর থেকেই সিলেট নগরবাসীর মধ্যে আলোচনা চলছে বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী প্রার্থীতা নিয়ে।

এর মধ্যে মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ঢাকায় সাংবাদিকদের বলেছেন, বিভিন্ন পৌরসভা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের নির্বাচনে বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থী না থাকলেও ‘ঘোমটা পরে’ সবখানেই তাদের প্রার্থী ছিল।

“এই ঘোমটা পরা প্রার্থী কিন্তু সিটি নির্বাচনেও থাকবে। সিলেটের আরিফ বর্তমান মেয়র অলরেডি ঘোষণা দিয়েছেন। কাজেই অন্যান্য সিটিতেও ঘোমটা পরা তাদের স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছে। এটা বিএনপির রাজনীতির আরেক ভণ্ডামি। এটা ভণ্ডামি, তারা করছে।”