ভোট ডাকাতির জন্য বিএনপি ব্যালট চায়: কাদের

বিএনপি আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উপর হামলা করছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 Oct 2022, 06:14 PM
Updated : 1 Oct 2022, 06:14 PM

আগামী সংসদ নির্বাচনে শতভাগ আসনে ইভিএমে আওয়ামী লীগের নির্বাচন চাওয়ার কথা আবারও জানিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ভোট ডাকাতির জন্য তারা ব্যালটে ভোট চায়।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জ্যোতিষী কবে হলেন- এমন প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, দুনিয়া এখন আধুনিক প্রযুক্তির দিকে যাচ্ছে। ব্রাজিলে শতভাগ ইভিএমে ভোট হচ্ছে। তিনি (ফখরুল) ভোট ডাকাতির সর্দার।

“ভোট ডাকাতি করার জন্য ব্যালট চায়। কোনোভাবে যদি ডাকাতি ও চুরি করা যায়। আমরা ভোট ডাকাতি বন্ধ করার জন্য ইভিএম চাই।”

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উপর বিএনপি হামলা করছে দাবি করে কাদের বলেন “আমাদের কর্মীদের গাঁয়ে হাত দেওয়া শুরু করেছেন, এটা ভালো নয়। এসব করতে গেলে খবর আছে। আবারও বলছি, খবর আছে। পাল্টা জবাব পাবেন।”

আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৩০ আসন পাবে ফখরুলের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে কাদের বলেন, “মির্জা ফখরুল সাহেব রাজনীতি করেন, শিক্ষকতা করেছেন। কিন্তু জ্যোতির্বিদ্যা জানেন, এটা জানতাম না।

“তিনি (ফখরুল) বললেন, আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৩০টি আসনও পাবে না। তিনি জ্যোতিষী, জ্যোতিষী ফখরুল। তিনি আমাদের ৩০টি আসনও দেবে না।“

২০০৮ সালের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, "আপনাদের দেশনেত্রী (খালেদা জিয়া) বলেছিল, আমরা ৩০টি আসনও পাবে না। নির্বাচনে কী হল? বিএনপি ৩০টি সিট পেয়েছে। এখনও আবার সংখ্যাতত্ত্বের হিসাব দিচ্ছেন। ভোট এখনও ১২-১৩ মাস বাকি। ভোটে কী হবে, সেটা জানেন আল্লাহপাক, এ দেশের জনগণ জানেন। তার (ফখরুল) কথায় জনগণ ভোট দেবে না।”

শনিবার রাজধানীর হাজারীবাগে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে এসব কথা বলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

শুক্রবার বিকালে গাজীপুরের কাপাসিয়া মাঠে মির্জা ফখরুলের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ ‘৩০ সিটও’ পাবে না বক্তব্যের প্রেক্ষিতে কাদেরের এ বক্তব্য এল।

গত নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “ফখরুল সাহেব গতবারও আপনারা নির্বাচনে আসবেন না…। সেটা কিন্তু জানতাম। গাধা পানি ঘোলা করে খায়। ঘোলা করে হয়ত এমন সময় আসবেন। তখন ২২ দলীয় জোট, দলের অবস্থা জগাখিচুড়ি, ছত্রভঙ্গ গতবারের মত।

“আমরা চাই আপনারা নির্বাচনে থাকুন। একটা বড় দল, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হোক আমরা চাই। না আসলে না আসুন, জোর করে আনব? দেশে সংবিধান আছে, নিয়মকানুন আছে, নির্বাচন কমিশন আছে। কাউকে জোর করে, জবরদস্তি করে নির্বাচনে আনার দরকার তো আমাদের নেই।”

হাজারীবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী মোহাম্মদ সেলিমের সভাপতিত্বে দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, মহানগর দক্ষিণের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, সংসদ সদস্য শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক