মন্দাকিনির মতো দৃশ্যে? শুনে যা বলেছিলেন টুইংকেল

ভেজার দৃশ্যে স্বচ্ছ পোশাকে হাজির হতে বলা হয়েছিল টুইংকেলকে।

গ্লিটজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Nov 2022, 07:08 AM
Updated : 29 Nov 2022, 07:08 AM

‘রাম তেরি গঙ্গা মাইলি’ সিনেমার মন্দাকিনির স্বচ্ছ পোশাকে ভেজার দৃশ্য্ তুমুল আলোচিত ছিল বলিউডে, সেই দৃশ্যটির কথা আবার উঠে এল টুইংকল খান্নার এক কথায়।

নিজের এক সিনেমায় মন্দাকিনির মতো পোশাকে হাজির হতে পরিচালকের কাছ থেকে চাপ আসার কথা প্রকাশ করলেন অক্ষয় কুমার পত্নী।

তবে সেই প্রস্তাবে তখনই না বলে দিয়েছিলেন বলে জানালেন রাজেশ খান্না-ডিম্পল কাপাডিয়ার এই মেয়ে।

এক সময়ের তারকা অভিনেত্রী ওয়াহিদা রেহমানের সঙ্গে এক আলাপে টুইংকেল নিজের সেই অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন বলে টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে।

সিনেমা কিংবা পরিচালকের নাম উল্লেখ না করে টুইংকেল বলেন, “গানের একটি দৃশ্য ছিল, আমি ছিলাম সাদা জামা পরে। শুটিং যখন শুরু হবে, তখন পরিচালক এগিয়ে আসেন। একটা শাল জড়ানো ছিল তার গায়ে, ভাব যেন নিজে গুরু দত্ত (বলিউড কিংবদন্তি)।

“আমার কাছে এসে বললেন, ‘আমি যদি মন্দাকিনির মতো তোমাকে করতে বলি, তুমি কী বলবে?”

টুইংকেলের ভাষায়, সেই প্রশ্নে দুটি কথা বলেছিলেন তিনি। 

“আমি প্রথমে বলেছি- না। এরপর বলেছি, আপনি রাজ কাপুর নন।”

বলিউড কিংবদন্তি রাজকাপুর নির্মাণ করেছিলেন রাম তেরি গঙ্গা মাইলি সিনেমাটি। ১৯৮৫ সালে মুক্তি পাওয়া এই হিট সিনেমায় অভিনয় করেছিলেন মন্দাকিনি।

মন্দাকিনির মতো পোশাকে আসার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানের পর ওই পরিচালক বিরূপ হয়েছিলেন বলে জানান টুইংকেল।

তিনি বলেন, “তিনি আমার সঙ্গে আর কখনও কথা বলেননি। এটা একটা আশ্চর্য ঘটনা।”

টুইংকেল নাম না বললেও ওই পরিচালক ধর্মেশ দর্শন বলে ধারণা দেওয়া হয়েছে হিন্দুস্থান টাইমসের এক প্রতিবেদনে।

প্রথমত ধর্মেশ দর্শন সব সময় শাল গায়ে দিয়ে থাকেন। আর ২০০০ সালে মুক্তি পাওয়া তার মেলা সিনেমায় এক গানের দৃশ্যে সাদা পোশাকে ভিজতে দেখা গেছে টুইংকেলকে। টুইংকেলের সঙ্গে ওই সিনেমায় ছিলেন আমির খান।

তারকা দম্পতির মেয়ে টুইংকেল ১৯৯৫ সালে সিনেমায় অভিনয় শুরু করেন। বড় বড় অভিনেতার বিপরীতে বড় বাজেটের ডজন খানেক সিনেমা করলেও বাবা কিংবা মার মতো বলিউডে ভিত গড়তে পারেননি টুইংকেল।

২০০১ সালে অক্ষয় কুমারকে বিয়ে করার পর অভিনয় বলতে গেলে ছেড়েই দেন তিনি। এক ছেলে ও এক মেয়ের জননী টুইংকেল অভিনয়ে ব্যর্থ হলেও কলাম লিখে খ্যাতি কুড়িয়েছেন।   

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক