আন্তঃব্যাংকেও সর্বোচ্চ দরে ডলার

রিজার্ভ কমার মধ্যেই বাংলাদেশ ব্যাংক ৯৪ দশমিক ৭০ টাকা দরে আরও ১৩ কোটি ২০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 July 2022, 05:35 PM
Updated : 25 July 2022, 05:35 PM

ডলারের বিপরীতে টাকার মান আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে কমে ৯৪ দশমিক ৭০ টাকায় নেমেছে।

সোমবার আন্তঃব্যাংকে প্রতি ডলার বিক্রি হয়েছে এই দরে। আর খোলা বাজারে ডলারের দামও রেকর্ড ১০৫ টাকা ছাড়িয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে আমদানি ব্যয় মেটাতে গিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকে থাকা বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমার মধ্যেই এদিন কেন্দ্রীয় ব্যাংক আরও ১৩ কোটি ২০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে।

বিভিন্ন ব্যাংকের চাহিদা মেটাতে এসব ডলার বিক্রি করা হয়েছে জানিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘‘আগের দিনের চেয়ে ২৫ পয়সা বাড়িয়ে সোমবার বিভিন্ন ব্যাংকের কাছে ৯৪ দশমিক ৭০ টাকায় প্রতি ডলার বিক্রি করা হয়েছে।’’

ডলার বিক্রি করায় প্রতিনিয়ত কমছে রিজার্ভের পরিমাণ, যা সোমবার দাঁড়িয়েছে ৩৯ দশমিক ৬১ বিলিয়নে। গত দুই বছরের মধ্যে রিজার্ভের পরিমাণ এটিই সর্বনিম্ন।

এদিকে খোলা বাজারেও সরবরাহ কমায় সোমবার প্রতি ডলার বিক্রি হয়েছে ১০৫ টাকা ৩০ টাকায়। কোনো কোনো ব্যাংক নগদ ডলার বিক্রি করেছে ১০২ টাকা দরে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ কমে আসায় অর্থনীতিতে গতি বাড়ার মধ্যে ইউক্রেইন যুদ্ধে আন্তর্জাতিক পণ্য বাজার ঊর্ধ্বমুখী হয়ে পড়লে আমদানি ব্যয় বাড়তে থাকে। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে রপ্তানি আয় ও রেমিট্যান্স না বাড়লে বৈদেশিক মুদ্রার সরবরাহ সংকট তৈরি হয়।

এতে রিজার্ভের পরিমাণ ক্রমাগত কমে ৪৮ বিলিয়ন থেকে চলতি মাসে ৪০ বিলিয়ন ডলারের নিচে নামে।

আমদানি দায় মেটাতে এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) অর্থ পরিশোধ এবং ক্রমাগত ডলার বিক্রির কারণে গত ২০ জুলাই রিজার্ভ ৩৯ দশমিক ৬৯ বিলিয়ন ডলারে নামে।

ডলারের সংকট তীব্র হওয়ায় রিজার্ভের সঙ্গে কমছে টাকার মানও। ২০২১ সালের ১ অগাস্টে ডলারের বিপরীতে টাকার মান ছিল ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা। এরপর থেকে টাকার বিপরীতে ডলারের দাম বাড়তে থাকে। গত ডিসেম্বরেও যা ছিল ৮৫ টাকা ৮০ পয়সা, তা মে শেষে দাঁড়ায় ৮৯ টাকায়।

এমন প্রেক্ষাপটে ডলারের বিনিময় হার বাজারের উপর ছেড়ে দিয়ে নিয়ন্ত্রণ শিথিল করার সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতে সর্বশেষ ২৫ জুলাই টাকার মান দাঁড়িয়েছে ৯৪ দশমিক ৭০ টাকা।

Also Read: ডলার সংকট: আন্তঃব্যাংক বাজারকে আরও সচলের পরামর্শ প্রধান নির্বাহীদের

Also Read: বিক্রির চেয়ে কিনতেই বেশি আগ্রহ মানি এক্সচেঞ্জের

যদিও গত এপ্রিল থেকে ডলার সাশ্রয়ে আমদানিতে লাগাম টানাসহ বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সেই উদ্যোগের সুফল পেতে আরও কয়েক মাস লাগবে বলে জানিয়েছেন ব্যাংকাররা।

তবে দর বাড়লেও ব্যাংকগুলোতে ডলারের সেই সংকট এখনও কাটেনি। ব্যাংকগুলো বৈদেশিক বাণিজ্যে ৯৪ দশমিক ৫০ টাকায় ডলার বিক্রির ঘোষণা দিলেও ১০০-১০২ টাকা নিচ্ছে বলে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ। এ নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা মানতে গভর্নরের হস্তক্ষেপও কামনা করেছেন তারা।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলম গত ২১ জুলাই গর্ভনরের কছে লিখিত অভিযোগও করেছেন।

তার অভিযোগ, “ব্যাংকগুলো ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ১০২ টাকা পর্যন্ত নিচ্ছে প্রতি ডলারে। এডি ব্যাংকগুলো ডলারের বিনিময় হার নির্ধারণে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা মানছে না।’’

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক