ছেলের টেস্ট ক্যাপ ছুঁয়ে অঝোরে কাঁদলেন বাবা

পরিশ্রম, ত্যাগ আর অপেক্ষার অনেক পথ পেরিয়ে অবশেষে ভারতের হয়ে টেস্ট অভিষেক হলো সারফারাজ খানের, আবেগের স্রোতে ভাসলেন তার বাবা ও কোচ নাওশাদ খান।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Feb 2024, 08:29 AM
Updated : 15 Feb 2024, 08:29 AM

ম্যাচ শুরু হওয়ার আগের ছোট্ট আনুষ্ঠানিকতা তখন শেষ। স্বপ্নের টেস্ট ক্যাপটি নিয়ে সারফারাজ খান ছুটলেন মাঠের সীমানা দড়ির বাইরে এক প্রান্তে। সেখানে অপেক্ষায় তার বাবা। ছেলে গিয়ে টেস্ট ক্যাপ তুলে দিলেন বাবার হাতে। আবেগাপ্লুত বাবা ক্যাপ নিয়ে চুমু একে দিলেন বোর্ডের প্রতীকে। তার চোখ বেয়ে তখন আবেগের স্রোত নামছে অশ্রু হয়ে। হাত দিয়ে বাবার চোখে সেই জল মুছে দিলেন ছেলে। পরস্পরকে আলিঙ্গনে জড়ালেন দুজন গভীর মমতায়।

রাজকোটে বৃহস্পতিবার ভারত-ইংল্যান্ড তৃতীয় টেস্ট শুরুর আগে দেখা গেল স্বর্গীয় এই দৃশ্য। এই বাবা-ছেলের গল্প যারা জানেন, এমন আবেগের কারণও তাদের না বোঝার কারণ নেই। কত পরিশ্রম, কত ত্যাগ, ঘাম ঝরানোর কত প্রহর আর কত দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর এই দিনটি এসেছে তাদের জন্য!

ছেলেকে ক্রিকেটার হিসেবে গড়ে তোলার জন্য নাওশাদ খানের এই লড়াই মুম্বাই তথা ভারতীয় ক্রিকেটেও কিংবদন্তি হয়ে আছে। মুম্বাইয়ের ক্রিকেটে একটা পরিচিতি তার আগেই ছিল কোচ হিসেবে। পরে উঠেপড়ে লাগেন তিনি নিজের ছেলেকে নিয়ে। ছেলে সারফারাজও ভারতীয় ক্রিকেটে সাড়া ফেলে দেয় কিশোর বয়সেই।

সেই ২০০৯ সালে যখন সারফারাজের বয়স ১২ বছর, হারিস শিল্ডের এক ম্যাচে তার ব্যাট থেকে আগে ৪২১ বলে ৪৩৯ রানের ইনিংস। পেছনে পড়ে যায় সাচিন টেন্ডুলকারের রেকর্ড। এরপর বয়সভিত্তিক ক্রিকেট রাঙিয়ে এগিয়ে যেতে থাকেন সারফারাজ। দিনের পর দিন, বছরের পর বছর তাকে ঘষেমেজে তৈরি করার লড়াই চলতে থাকে বাবার।

বয়সভিত্তিক ক্রিকেটের পর ঘরোয়া ক্রিকেটেও পারফর্ম করেন সারফারাজ। গত কয়েক বছরে তো দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেটে তার পারফরম্যান্স অবিশ্বাস্য। বিশেষ করে রঞ্জি ট্রফিতে সাম্প্রতি বছরগুলোয় তার পারফরম্যান্স তো চোখ কপালে তোলার মতো। রঞ্জিতে মুম্বাইয়ের হয়ে ২২ ম্যাচে ১০ সেঞ্চুরি তার, এর মধ্যে আছে একটি ট্রিপল সেঞ্চুরিও। আড়াই হাজারের বেশি রান করেছেন ১০২.৪৮ গড়ে। পারফর্ম করেছেন অন্যান্য ঘরোয়া প্রতিযোগিতা ও ‘এ’ দলের হয়েও।

কিন্তু টেস্ট দলের দুয়ার খুলছিল না। এটা নিয়ে তার কণ্ঠে অভিমানের সুর ফুটে উঠেছে নানা সময়ে। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে নিয়মিত উঠে এসেছে তার ‘বঞ্চনার’ গল্প। তাকে উপেক্ষা করা বা তাকে দলে না নেওয়ার কথা উঠে এসেছে ভারতীয় সাবেকদের কণ্ঠেও।

এবার ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই সিরিজেও এক দফা হতাশ হতে হয় তাকে। ভিরাট কোহলি বিরতি নেওয়ার পর দলে নেওয়া হয় রাজাত পাতিদারকে। এরপর ইংল্যান্ড ‘এ’ দলের বিপক্ষে ভারতীয় ‘এ’ দলের হয়ে ১৬১ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। অবশেষে এরপর তার অপেক্ষার অবসান হয় দ্বিতীয় টেস্টের আগে। এবার লোকেশ রাহুলের চোটে স্কোয়াডে ডাক পান সারফারাজ।

কিন্তু এরপর শুরু নতুন অপেক্ষার। একাদশে কখন জায়গা মিলবে! দ্বিতীয় টেস্টে অভিষেক হয়ে যায় পাতিদারের। তবে সারফরাজের এই অপেক্ষা বেশি দীর্ঘায়িত হলো না। সিরিজের তৃতীয় টেস্ট স্বপ্নের সেই ক্যাপ তিনি পেলেন। তার ও তার পরিবারের বহু কাঙ্ক্ষিত অপেক্ষার অবসান হলো।

রাজকোটে টেস্ট শুরুর আগে সারফারাজকে ক্যাপ পরিয়ে দেন কিংবদন্তি অনিল কুম্বলে। টেস্ট অভিষেকের স্বাদ পান এ দিন কিপার-ব্যাটসম্যান ধ্রুপ জুরেলও। যথারীতি সেখানে ছিল ছোট্ট বক্তৃতাপর্ব। তালি দিয়ে দুই নবীনকে দলে স্বাগত জানান সতীর্থরা। এরপরই সারফরাজ ছুটে যান তার বাবার কাছে।

২৬ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যানের স্ত্রীও ছিলেন সেখানে। তার স্ত্রীর চোখও তখন ছিল অশ্রুসিক্ত। 

রাজকোটের প্রথম দিনে ভারত ব্যাটিংয়ে নামলেও এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ক্রিজে যেতে হয়নি সারফারাজকে। ৩৩ রানে ৩ উইকেট হারানো দলকে টেনে নিচ্ছেন রোহিত শার্মা ও পাঁচে নামা রবীন্দ্র জাদেজা। ভারতের রান ছিল ৩ উইকেটে ১৫৮, এই জুটির রান ১২৫। এই জুটি ভাঙলেই হয়তো ব্যাটিংয়ে দেখা যাবে সারফারাজকে।

একটি অপেক্ষা শেষ হওয়ার পর বাবা নাওশাদ খানের নতুন অপেক্ষার শুরু তার আরেক ছেলেকে নিয়ে। সারফারাজের ছোট ভাই মুশির খানও উঠে আসছেন। সদ্য সমাপ্ত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে ৬০ গড়ে ও ৯৮ স্ট্রাইক রেটে ৩৬০ রান করেছেন তিনি, যা টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। ১৮ বছর বয়সী মুশির বাঁহাতি স্পিনও করেন বেশ ভালো। মুম্বাইয়ের হয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটেও ৩টি ম্যাচ এর মধ্যে খেলে ফেলেছেন তিনি।