টেলিটকে ফাইভ জি? অন্তত দেড় বছরের অপেক্ষা

ফাইভ জি সেবা দিতে ২৩৬ কোটি ৫৪ লাখ টাকার একটি প্রকল্প নিচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 August 2022, 08:21 AM
Updated : 1 August 2022, 08:21 AM

ঢাকার ‘গুরুত্বপূর্ণ’ আবাসিক এলাকা ও সরকারি অফিসের জন্য ২০২৪ সাল থেকে পঞ্চম প্রজন্মের নেটওয়ার্ক বা ফাইভ জি সেবা চালু করতে চায় রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক।

সেজন্য ২৩৬ কোটি ৫৪ লাখ টাকায় ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় টেলিটকের নেটওয়ার্কে বাণিজ্যিকভাবে ৫জি প্রযুক্তি চালুকরণ’ শীর্ষক একটি প্রকল্পের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

প্রকল্পটির চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় উপস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. মামুন আল- রশীদ।

তিনি বলেন, “প্রকল্পটি বেশ কয়েক মাস আগে পরিকল্পনা কমিশনের প্রাক মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভায় তোলা হয়। ডিজিটাল বাংলাদেশের গতি বাড়ানোর পাশাপাশি উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে উন্নয়ন করতে প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া যেতে পারে বলে সুপারিশ করা হয়েছে।”

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের এই প্রকল্প ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়ন করবে টেলিটক। অর্থের যোগান দেওয়া হবে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে।

মেয়াদের মধ্যে কাজ শেষ করতে পারলে ২০২৪ সালের শুরু থেকেই ফাইভজি সেবা দেওয়া শুরু করবে টেলিটক।

জানতে চাইলে টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. সাহাব উদ্দিন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এ প্রকল্পের মাধ্যমে আমরা রাজধানীর সরকারি ও বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ও স্থাপনাগুলো ফাইভ জি নেটওয়ার্কের আওতায় আনব।”

শুরুতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এলাকার গণভবন এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলো ফাইভজির আওতায় আনা হবে। এছাড়া আবাসিক এলাকা মোহাম্মদপুর, শেরে বাংলা নগর, বনানী, গুলশান, ক্যান্টনমেন্ট, উত্তরা থানা টেলিটকের ফাইভজি সেবার আওতায় আসবে।

অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকার বঙ্গভবন, সচিবালয়সহ মতিঝিল, রমনা শাহবাগ ও ধানমন্ডি এলাকার গুরুত্বপূর্ণ ও বাণিজ্যিক স্থাপনাগুলোতে ফাইভ জি সেবা দিতে পারবে টেলিটক।

গত ৩১ মার্চ বিটিআরসির নিলাম থেকে টেলিটক এক হাজার ৬৮০ কোটি টাকায় ৩০ মেগাহার্টজ ফাইভ জি তরঙ্গ কেনে।

এক প্রশ্নের উত্তরে সাহাব উদ্দিন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ফাইভ জির যন্ত্রপাতি ফোরজি থেকে আলাদা, দামও অনেক বেশি। তাই ইচ্ছা করলেই ফাইভ জি নেটওয়ার্ক সম্প্রারণ করা যাচ্ছে না। এটি অনেক ব্যয়সাপেক্ষ বিষয়।”

তিনি বলেন, এ প্রকল্পের আওতায় ঢাকা শহরে টেলিটকের বিদ্যমান ২০০টি ৪জি বিটিএস সাইটে ৫জি প্রযুক্তিনির্ভর টেলিকম যন্ত্রপাতি সংযোজন করে উচ্চগতির ফাইভ জি তরঙ্গ নেটওয়ার্ক তৈরি করা হবে।

রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক ২০০৪ সালে কাজ শুরু করে। বর্তমানে এর গ্রাহক সংখ্যা ৬৭ লাখের মত, যা মোট মোবাইল গ্রাহকের সাড়ে ৩ শতাংশের মত।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক