আদালত প্রাঙ্গণে ‘পুলিশকে স্প্রে মেরে’ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গি ছিনতাই

অন্য মামলার শুনানিতে ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালে আনা হয়েছিল দণ্ডিত দুই জঙ্গিকে।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ও আদালত প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 20 Nov 2022, 08:56 AM
Updated : 20 Nov 2022, 08:56 AM

ঢাকার আদালত এলাকায় ‘পুলিশকে স্প্রে মেরে’ ছিনতাই করা হয়েছে জাগৃতি প্রকাশনীর প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন এবং লেখক অভিজিৎ রায় হত্যায় মৃতুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গিকে।  

রোববার দুপুরে পুরান ঢাকার আদালত পাড়ায় এ ঘটনার পর রেড অ্যালার্ট জারি করে দুই আসামিকে ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। 

পালিয়ে যাওয়া দুই আসামি হলেন: মইনুল হাসান শামীম ওরফে সামির ওরফে ইমরান এবং আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাজিদ ওরফে শাহাব।

তাদের মধ্যে মইনুল হাসান শামীমের বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার মাধবপুর গ্রামে। আর আবু ছিদ্দিক সোহেলের বাড়ি লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার ভেটেশ্বর গ্রামে।

নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের (আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) এ দুই সদস্য দীপন হত্যায় মৃতুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। লেখক অভিজিৎ রায় হত্যা মামলাতেও আবু সিদ্দিক সোহেলের ফাঁসির রায় হয়েছে।

কোতোয়ালি থানার ওসি মিজানুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বেলা ১২টার দিকে তারা পুলিশ হেফাজত থেকে পালিয়ে যায়। আমরা তাদেরকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি।”

ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের অন্যতম আইনজীবী আজাদ রহমান জানান, মোহাম্মদপুর থানায় দায়ের করা সন্ত্রাস বিরোধ আইনের মামলায় শুনানির জন্য আসামিদের আদালতে আনা হয়েছিল এদিন। মইনুল হাসান শামীম ও আবু সিদ্দিক সোহেলকে আনা হয়েছিল কাশিমপুর কারাগার থেকে। 

“দুপুর ১২টার কিছুক্ষণ পর সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল শুনানি শেষে প্রিজন ভ্যানে তোলার আগে পুলিশের দিকে স্প্রে মেরে তাদেরকে ছিনিয়ে নেওয়া হয়।”

খবর পেয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদসহ লালবাগ জোনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। 

ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বিকেলে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “বিচারকের সামনে হাজিরা শেষে আবার যখন তাদের নির্দিষ্ট রুমে নিয়ে যাচ্ছিল, তখন দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যদের কেমিকেল ছুড়ে অজ্ঞান করে তাদের নিয়ে পালিয়ে যায় তাদেরই কয়েকজন সমর্থক।”

ওই দুই জঙ্গিকে ধরিয়ে দিতে ১০ লাখ করে ২০ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন।

ঢাকা মহানগর পুলিশ এ ঘটনায় পাঁচ সদস্যের তদন্ত গঠন করে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, পলাতক জঙ্গিরা যাতে দেশ ছাড়তে না পারে সেজন্য রেড অ্যালার্ট জারি করে সীমান্ত এলাকায় সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে।

“ঘটনাটি দুঃখজনক। যদি কারো অবহেলা থাকে, গাফিলতি থাকে, যদি কেউ ইচ্ছা করে এই কাজটি করে থাকেন, তার উপযুক্ত ব্যবস্থা আমরা গ্রহণ করব। নিশ্চয় আমরা তদন্ত কমিটি করব, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। আমাদের পুলিশ হন্যে হয়ে খুঁজছে তাদের। শিগগির তাদের ধরতে পারব বলে আমরা বিশ্বাস করি।”

পুলিশের হাত থেকে জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনা এটাই প্রথম নয়। ২০১৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি ত্রিশালের সাইনবোর্ড এলাকায় প্রিজন ভ্যানে হামলা করে জেএমবির শুরা সদস্য রাকিবুল হাসান ও সালাউদ্দিন সালেহীন ওরফে সানি এবং বোমা বিশেষজ্ঞ মিজানকে ছিনিয়ে নেওয়া হয়। নজিরবিহীন ওই ঘটনায় প্রিজন ভ্যানে থাকা এক কনস্টেবল নিহত হন।

পালানোর পথে ওইদিনই মির্জাপুরে গ্রেপ্তার হন মৃত্যুদণ্ডের আসামি রাকিবুল হাসান। পরে পুলিশের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনি নিহত হন। যাবজ্জীবন সাজার আসামি মিজান ২০১৮ সালের অগাস্ট মাসে ভারতে গ্রেপ্তার হন। বর্ধমান বিস্ফোরণের মামলায় ২০২১ সালে তাকে ২৯ বছরের কারাদণ্ড দেয় ভারতীয় আদালত। তবে সালাউদ্দিন সালেহীন ওরফে সানির কোনো খোঁজ আর মেলেনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক