‘আলিবাবা চাবি' দিয়ে দুই ভাই চুরি করেছে ২০০ মোটরসাইকেল

যে ‘মাস্টার চাবি’ দিয়ে দুই ভাই বাইক চুরি করত, সেটার নাম তারা দিয়েছিল ‘আলিবাবা’।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 Feb 2024, 11:32 AM
Updated : 9 Feb 2024, 11:32 AM

দুইশ মোটরসাইকেল সাইকেল চুরির সঙ্গে জড়িত দুই সহোদরকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, একটি চাবি দিয়ে তারা দিনের পর দিন এই চুরি করে আসছিল।

গ্রেপ্তাররা হলেন- মো. রিপন মাতাব্বর (৪২) ও তার ছোট ভাই মো. বাদল মাতাব্বর (৩৮)।

শনিবার ঢাকা মহানগর এলাকা ও গাজীপুরে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় বলে গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশীদ জানান।

তিনি বলেন, যে ‘মাস্টার চাবি’ দিয়ে দুই ভাই বাইক চুরি করত, সেটার নাম তারা দিয়েছিল ‘আলিবাবা’।

এই দুজন আরও কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে আট বছর ধরে মোটরসাইকেল চুরির পাশাপাশিও চোরাই মোটরসাইকেল কেনাবেচার কাজে জড়িত ছিল বলে পুলিশের ভাষ্য।

রোববার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে গোয়েন্দা কর্মকর্তা হারুন অর রশীদ বলেন, গত বছরের ২০ জুন ভাটারা থানায় এবং  চলতি বছরের ৫ সেপ্টেম্বর গুলশান থানায় দুটি চুরি মামলা হয়। ওই দুই মামলার তদন্তে নেমে পুলিশ এই চক্রের সন্ধান পায়। তারপর অভিযানে নেমে রিপন ও বাদলকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

হারুন অর রশীদ বলেন, “তারা দুইশ মোটরসাইকেল চুরির কথা স্বীকার করেছে।“

দুই ভাইয়ের এই চক্র ঢাকার ভাটারা, বাড্ডা, গুলশান, বনানী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মেডিকেল, টিএসসি চত্বর, নগর ভবন, গুলিস্থান, ধানমন্ডি লেক, উত্তরা, যাত্রাবাড়ী, কদমতলীসহ বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতি সপ্তাহে দুই থেকে তিনটি মোটরসাইকেল চুরি করে আসছিল বলে জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

হারুন অর রশীদ বলেন, “কোনো একটি মোটরসাইকেল টার্গেট করে সেটির মালিকের গতিবিধি লক্ষ্য করত তারা। তারপর মালিক বাইকটি রেখে কোথাও গেলে ২৫ থেকে ৩০ সেন্ডেকের মধ্যে সেই মাস্টার চাবি আলিবাবা দিয়ে তারা বাইকের ঘাড় লক ভেঙে বাইক চালু করে ওই জায়গা থেকে সরে যেত।“

রিপন ও বাদলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী নরসিংদী ও নারায়ণঞ্জে অভিযান চালিয়ে ১১টি চোরাই মোটরসাইকেল এবং একটি অটোরিকশা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

(প্রতিবেদনটি প্রথম ফেইসবুকে প্রকাশিত হয়েছিল ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক)