হিমালয়ের 'ফার্চামো' পর্বত শিখর জয়ে যাচ্ছেন তিন অভিযাত্রী

এম এ মুহিত, বাহলুল মজনু ও নুরুননাহার নিম্নি মঙ্গলবার রওনা হবে বাংলাদেশ থেকে।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 Oct 2023, 03:15 PM
Updated : 21 Oct 2023, 03:15 PM

হিমালয়ের 'ফার্চামো' পর্বত শিখরে অভিযান শুরু করতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের তিন পর্বতারোহী। 

২১ দিনের এই অভিযানে আগামী মঙ্গলবারই নেপালের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়ছেন তারা। 

শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে অভিযানের দলনেতা এম এ মুহিত এবং অভিযাত্রী বাহলুল মজনু ও নুরুন্নাহার নিম্নির হাতে জাতীয় পতাকা তুলে দেওয়া হয়।

২০ হাজার ৩০০ ফুট উঁচু 'ফার্চামো' পর্বত শৃঙ্গ এভারেস্ট-এর দক্ষিণ-পশ্চিমে নেপালের বোলওয়ালিং হিমালয় অঞ্চলে অবস্থিত।  

মুহিত দুই বার এভারেস্টে আরোহন করেছেন। মজনু একটি ৭ হাজার মিটার চূড়াসহ হিমালয়ের একাধিক পর্বত আরোহন করেছেন। নিম্নি ভারতে মৌলিক পর্বতারোহণ প্রশিক্ষণ শেষ করে প্রথমবারের মতো অভিযানে যোগ দিচ্ছেন। 

সংবাদ সম্মেলনে অভিযানের বিস্তারিত তুলে ধরেন অ্যান্টার্কটিকা ও সুমেরু অভিযাত্রী ইনাম আল হক। 

'ফার্চামো' পর্বত শিখর অভিযানটি পরিচালনা করছে বাংলা মাউন্টেইনিয়ারিং অ্যান্ড ট্রেকিং ক্লাব এবং স্পন্সর করছে ইস্পাহানি টি লিমিটেড। 

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ২০ শতাংশ ছাড়ে অভিযাত্রীদের ঢাকা- কাঠমান্ডু-ঢাকা বিমান টিকেট দিয়েছে। 

ফার্চামো শিখরে এটি ক্লাবের দ্বিতীয় অভিযান উল্লেখ করে ইনাম আল হক বলেন, “ভয়ঙ্কর তুষারপাতের ফলে ২০১৯ সালে বাংলাদেশের প্রথম ফার্চামো অভিযান ব্যর্থ হয়েছিল। 

“হিমালয় পর্বতে এটি আমাদের ক্লাবের ৩৮তম অভিযান। আগের ৩৭টি অভিযানের মতোই এ অভিযানের লক্ষ্য হিমালয়ের শিখরে বাংলাদেশের পতাকা স্থাপন করা।” 

মুহিত বলেন, “এবার আমাদের প্রস্তুতি ভালো। আবহাওয়া নিয়ে যে খবর জেনেছি, সেটি ইতিবাচক। কাঠমান্ডু থেকে তিনজন শেরপা আমাদের সঙ্গে যোগ দেবেন। তারা আমাদের গাইড হিসেবে থাকবেন। আশা করছি, নভেম্বরের ৩/৪ তারিখ আমরা অভিযানের সফলতা পাব।” 

প্রথমবারের মতো অভিযানে যোগ দিতে পেরে উচ্ছ্বসিত নিম্নি বলেন, “ক্লাব থেকে প্রথমবার এই সুযোগ পেয়ে ভীষণ উত্তেজনা কাজ করছে। আমার দলনেতা মুহিত ভাই আছেন, তিনি অভিজ্ঞ। আশা করছি ভালোমতোই অভিযান শেষ করতে পারব।" 

গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী বলেন, “বাংলাদেশের পতাকা পর্বতের চূড়ায় তুলে ধরা, এটা তো ক্রিকেটের চেয়েও বড়। সরকারের নীতি নির্ধারণী মহলের কাছে জানতে চাওয়া, এই আয়োজনে সরকারের সহায়তা নেই কেন?”