ভোট দিচ্ছে মালয়েশিয়া, হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস

কোনো দল পরিষ্কার সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশটিতে অস্থিতিশীলতা আরও বাড়বে বলে অনেকেই আশঙ্কা করছেন।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 Nov 2022, 09:13 AM
Updated : 19 Nov 2022, 09:13 AM

রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে ব্যাপক অস্থিতিশীল সময় পার করা মালয়েশিয়ার জনগণ সাধারণ নির্বাচনে তাদের রায় জানাচ্ছেন।

শনিবারের এ নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ড লড়াই হবে বলে ভোটের আগে হওয়া একাধিক জনমত জরিপে আভাস মিলেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

কোনো দল পরিষ্কার সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশটিতে অস্থিতিশীলতা আরও বাড়বে বলে অনেকেই আশঙ্কা করছেন।

জরিপ বলছে, বর্ষীয়ান বিরোধীদলীয় নেতা আনোয়ার ইব্রাহিম নেতৃত্বাধীন জোট এবার সবচেয়ে বেশি আসন পাবেন, তবে তিনি সরকার গঠনে প্রয়োজনীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে পারবেন না।

তার জোটের প্রার্থীদের সঙ্গে লড়াই হবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইসমাইল সাবরি ইয়াকুবের ক্ষমতাসীন বারিসান জোট ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী মুহিউদ্দিন ইয়াসিন নেতৃত্বাধীন অংশের প্রার্থীদের।

মুহিউদ্দিনের জোট ইসমাইল নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন জোটেরও অংশীদার। আনোয়ারকে ঠেকাতে শেষ পর্যন্ত তারা দুজন ফের এক হতে পারেন, এ সম্ভাবনাও প্রকট।

কোনো জোটই এককভাবে সরকার গঠনের মতো সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে মূল্যস্ফীতি ঊর্ধ্বগতি ও শ্লথ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি মালয়েশিয়াকে আরও বেশ কিছুদিন রাজনৈতিক অনিশ্চয়তার মধ্যেই কাটাতে হবে।

গত আড়াই বছরের মধ্যে দেশটি তিন তিনজন প্রধানমন্ত্রী দেখেছে, এর মধ্যে ৯৭ বছর বয়সী মাহাথির মোহাম্মদও আছেন, যিনি দুই দফায় দুই দশকের বেশি সময় মালয়েশিয়াকে শাসন করেছেন।

Also Read: মালয়েশিয়ায় নির্বাচন, জরিপে এগিয়ে আনোয়ার ইব্রাহিম

এবারের নির্বাচনেও তিনি ‘শেষ লড়াইয়ে’ নেমেছেন, যদিও তার নেতৃত্বাধীন অংশ খুব একটা ভালো ফল করবে বলে মনে হচ্ছে না।

রয়টার্স লিখেছে, আনোয়ার ইব্রাহিম যদি শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন, তাহলে তা তা হবে তার জন্য অনন্য অর্জন।

গত ২৫ বছর ধরে প্রধানমন্ত্রী পদের অন্যতম এ দাবিদার সমকামিতার দায়ে জেলও খেটেছেন, তিনি দীর্ঘদিন ধরেই দেশের প্রধানতম বিরোধী মুখ।

“এখন পর্যন্ত সবকিছু ভালো মনে হচ্ছে, আমরা সাবধানতার সঙ্গে আত্মবিশ্বাসী,” পেনাংয়ে নিজের ভোটটা দেওয়ার পর সাংবাদিকদের বলেছেন আনোয়ার।

ইসমাইল বলছেন, তার জোটের লক্ষ্য হচ্ছে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া। শেষ পর্যন্ত তা না হলে অন্যদের সঙ্গে মিলে সরকার গঠনেও অনাগ্রহী নয় তারা।

এবার মালয়েশিয়ার প্রায় সোয়া দুই কোটি ভোটার নিম্নকক্ষের জন্য ২২২ আইনপ্রণেতাকে বেছে নেবেন।

এবার ভোট দেওয়ার যোগ্যদের মধ্যে ৬০ লাখই নতুন ভোটার, অনেকে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত কাকে ভোট দেবেন তা ঠিক করতে পারেননি। যে কারণে ভোটের ফলে চমক দেখা যেতে পারে বলেও অনেকে ধারণা করছেন।

শনিবার দুপুর পর্যন্ত প্রায় ৪২ শতাংশ ভোটার তাদের রায় দিয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

“এখন পর্যন্ত ভোট পড়ার হার বেশ ভালো। বেশি ভোট মানে আনোয়ারের জোটের জেতার সম্ভাবনাও বেশি,” বলেছেন নটিংহাম মালয়েশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েলশ।

দিনের শেষভাগে মালয়েশিয়ার বিভিন্ন অংশে বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, সে কারণে সেসময় ভোট পড়ার গতি শ্লথ হয়ে পড়তে পারে, বলেছেন তিনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক