যুক্তরাষ্ট্রে চীনা ধনকুবের আটক, আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ

চীন সরকারের সমালোচনা করে ধনকুবের গুও ওয়েনগুই পশ্চিমা নানা দেশে বাস করা চীনাদের মন জিতেছিলেন।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 March 2023, 01:42 PM
Updated : 16 March 2023, 01:42 PM

নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক চীনা ধনকুবের আবাসন ব্যবসায়ী গুও ওয়েনগুই এবং তার ব্যবসার অংশীদার কিন মিং জের বিরুদ্ধে প্রযুক্তিগত প্রতারণা, ব্যাংক ও বীমা খাতে প্রতারণা এবং অর্থ পাচারের অভিযোগ এনেছে যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃপক্ষ।

চীন সরকারের সমালোচনাকারী হিসেবে পরিচিত গুও হোয়াইট হাউজের সাবেক প্রধান কৌশলবিদ এবং যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের উপদেষ্টা স্টেফেন ব্যাননের সহযোগী বলে জানিয়েছে বিবিসি।

নিউ ইয়র্ক পুলিশ গুওকে গ্রেপ্তার করেছে। তাকে গ্রেপ্তারের কয়েকঘণ্টা পর ম্যানহাটানে তার পেন্টহাউজ অ্যাপার্টমেন্টে আগুন লাগে।

নিউ ইয়র্কের ফায়ার ডিপার্টমেন্টের একজন মুখপাত্র জানান, আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। এ ঘটনায় কেউ হতাহত হননি। তবে কী কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তার আগে অনলাইনে এক পোস্টে গুও নিজেই জানিয়েছিলেন, পুলিশ তাকে আটক করে এক ঘন্টার বেশি সময় ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে।

বুধবার ম্যানহাটান ফেডারেল আদালতে গুও নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন। তবে বিচারক তাকে জামিন না দিয়ে আটক রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

গুও এবং তার পার্টনার কিন মিংয়ের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে তা হল, তারা তাদের হাজার হাজার অনলাইন ফলোয়ারের কাছ থেকে ১০০ কোটি মার্কিন ডলার তহবিল সংগ্রহ করেছেন। ওই ফলোয়াররা ভেবেছিলেন, তারা মিডিয়া ব্যবসা এবং একটি এক্সক্লুসিভ মেম্বারশিপ ক্লাবে বিনিয়োগ করছেন।

গুও এবং কিন মিং মিলে ‘হিমালয়া কয়েন’ নামের ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার করে বিনেয়োগকারীদের কাছ থেকে লাখ লাখ ডলার চুরি করেছেন বলেও অভিযোগ আছে।

গুও সবসময় চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির সমালোচনা করে এসেছেন।যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতির ডানপন্থি প্রভাবশালী রাজনীতিকদের সঙ্গেও তার সুসম্পর্ক রয়েছে।

এসবকে কাজে লাগিয়ে অনলাইনে তিনি হাজার হাজার ফলোয়ার যোগাড় করেন। যাদের অধিকাংশই বিভিন্ন পশ্চিমা দেশে বাস করা চীনা নাগরিক।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের দাবি, গুও অনলাইনে তার জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে নানা উদ্যোগের কথা বলে অর্থ সংগ্রহ করেন। কিন্তু সেই অর্থ ব্যবসায় বিনিয়োগ না করে বরং সেগুলো গুও ও কিন মিংয়ের ব্যক্তিগত একাউন্টে জমা হয়।

তারা ওই অর্থ ব্যক্তিগত ভোগবিলাসে ব্যবহার করেন। তারা ওই অর্থ দিয়ে নিউ জার্সিতে একটি ৫০ হাজার স্কয়ার ফুটের বাড়ি কিনেছেন। তাদের গ্যারেজে ল্যাম্বরগিনি, ‍বুগাটি ও ফেরারিমত বিলাসবহুল গাড়ি রয়েছ। তাদের বাড়ির মেঝে চীনা ও পার্সিয়ান বহুমূল্যের কার্পেট দিয়ে ঢাকা। যেগুলোর আর্থিক মূল্য প্রায় ১০ লাখ ডলার।

গত বছর সেপ্টেম্বর মাস থেকে যুক্তরাষ্ট্র সরকার বিভিন্ন ব্যাংকের ২১টি আলাদা আলাদা একাউন্ট থেকে প্রায় সাড়ে ৬৩ কোটি মার্কিন ডলার জব্দ করেছে।

কে এই গুও ওয়েনগুই:

আবাসন ব্যবসায়ী গুও ২০১৪ সালে যখন চীন ছাড়েন তখনই তিনি দেশটির সবচেয় ধনী ব্যক্তিদের একজন ছিলেন।

২০১৭ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেন। তিনি বলেন, দেশে ফিরলে চীন সরকার তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।

চীন সরকারের পক্ষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার চালানো হয় এমন একাউন্ট থেকে গুওকে টার্গেট করা হয়েছিল। অভিযোগ উঠেছিল, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের একাউন্ট ও ওয়েবসাইট থেকে তিনি কোভিড এবং অন্যান্য বিষয়ে ভুয়া তথ্য ও গুজব ছড়াচ্ছেন।