বাজেটের আগে কর বৃদ্ধি ও ব্যয় হ্রাসের ঘোষণা যুক্তরাজ্যের অর্থমন্ত্রীর

আগামী বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের চ্যান্সেলর জেরেমি হান্ট তার বাজেট পরিকল্পনা ঘোষণা করবেন।

রয়টার্স
Published : 13 Nov 2022, 01:23 PM
Updated : 13 Nov 2022, 01:23 PM

যুক্তরাজ্যের অর্থমন্ত্রী জেরেমি হান্ট তার আসন্ন বাজেটে কর বৃদ্ধি ও সরকারি ব্যয় হ্রাস করবেন বলে জানিয়েছেন। বলেছেন, যুক্তরাজ্য নিজেদের আর্থিক খাতের সংকট নিজেরাই মোকাবেলা করতে সক্ষম তা তিনি দেখিয়ে দিতে চান।

সেইসঙ্গে সাবেক প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাসের বাজেট পরিকল্পনার কারণে দেশটির আর্থিক বাজারে যে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছে তা কাটিয়ে দেশের অর্থনৈতিক বিশ্বাসযোগ্যতা পুনরুদ্ধার করবেন বলেও জানিয়েছেন।

আগামী বৃহস্পতিবার হান্ট তার বাজেট পরিকল্পনা ঘোষণা করবেন।

কর বৃদ্ধি ও ব্যয় হ্রাসের কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে হান্ট এও বলেছেন, দরিদ্র পরিবারগুলোকে অধিক কষ্ট পাওয়া থেকে রক্ষা করা উচিত এবং ব্যয় হ্রাসের জন্য সরকারি পরিষেবা কমিয়ে দেয়া হলেও ‘একটি ভারসাম্য বজায় রাখা হবে’।

প্রায় দুই বছর ধরে কোভিড-১৯ মহামারীর প্রকোপের পর বিশ্ব অর্থনীতি যখন সবে ঘুরে ‍দাঁড়াতে শুরু করেছে তখনই ইউক্রেইনে রাশিয়ার আক্রমণ বিশ্বমন্দার পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে।

রোববার স্কাই নিউজকে হান্ট বলেন, তিনি প্রত্যাশিত ওই মন্দাকে আরো বাড়িয়ে তুলতে চান না।

বলেন, ‘‘আপনি এমন কিছু করতে চাইবেন না যেটা মন্দা ডেকে আনবে, আপনি আরো খারাপ পরিস্থিতিতে পড়বেন।

‘‘কিন্তু অন্যদিকে, যদি আপনি কিছুই না করেন, যদি আপনি এটা না দেখান যে আমরা আমাদের ঋণ কমাতে চাইছি....সুদের হার বাড়ছে এবং আপনি একটি মন্দায় পড়তে যাচ্ছেন, তাহলে সেটা পরিস্থিতি আরো খারাপ করে তুলবে।”

গত সেপ্টেম্বর মাসে যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ট্রাস এবং তার তৎকালীন অর্থমন্ত্রী যে ‘মিনি-বাজেট’ উপস্থাপন করেছিলেন, যেখানে ব্যাপক হারে কর কর্তন করার কথা বলা হয়েছিল। যার জেরে যুক্তরাজ্যের বন্ড বাজারে বড় ধরণের ধস নামে।

হান্ট এবং যুক্তরাজ্যের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক আগেই সতর্ক করে বলেছেন, তারা এমন একটি সময়ে কঠোর সীদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছেন যখন ১০ শতাংশের উপরে মূল্যস্ফীতির জেরে জনজীবন আগে থেকেই পর্যদুস্ত।

এ বিষয়ে হান্ট বলেন, ‘‘আমি দুঃখিত, আমাদের সবাইকেই আরো কিছুটা বেশি কর দিতে হচ্ছে।

‘‘আমরা সবাইকেই ত্যাগ স্বীকার করার আহ্বান জানাচ্ছি, কিন্তু....আমাদের এটাও স্বীকার করে নেয়া প্রয়োজন যে খুবই নিম্ন আয়ের মানুষদের কাছ থেকে আপনি কেবল সীমিত পরিমাণেই চাইতে পারেন।”

হান্টের এই কর বৃদ্ধির পরিকল্পনায় তার দল কনজারভেটিভ পার্টির অনেক এমপিই আপত্তি জানিয়েছেন বলে জানায় রয়টার্স। কর হার বেশি বাড়ানো হলে তা দলের ভেতর বিশৃঙ্খলাকে পুনরুজ্জীবিত করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সরকারি ব্যয় হ্রাসের প্রসঙ্গে হান্ট বলেন, একটি শক্তিশালী অর্থনীতিতে ভালো মানের সরকারি পরিষেবা থাকা জরুরি। তাই ‘ভারসাম্য বজায় রেখে’ ব্যয় হ্রাস করা হবে।

যুক্তরাজ্যে শ্রম বাজারেও শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে। কোম্পানিগুলো প্রয়োজন অনুযায়ী দক্ষ শ্রমিক পাচ্ছে না। এই সংকট সমাধানেও ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান হান্ট।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক