পাকিস্তানের সেনাপ্রধানের পরিবারের কর নথি ফাঁস, তদন্তের নির্দেশ

পাকিস্তান সেনাপ্রধান বাজওয়ার পরিবারের বিপুল সম্পদের তথ্য কর নথির বরাত দিয়ে ফাঁস করেছে একটি অনুসন্ধানী নিউজ ওয়েবসাইট।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 22 Nov 2022, 05:24 PM
Updated : 22 Nov 2022, 05:24 PM

পাকিস্তানের প্রভাবশালী সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়ার পরিবারের সদস্যদের করের তথ্য ‘অবৈধ এবং অযৌক্তিকভাবে’ ফাঁসের অভিযোগ করে অর্থমন্ত্রী ইশাক ধর বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে আমলে নিয়ে এ বিষয়ে অবিলম্বে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

সোমবার অর্থমন্ত্রণালয় থেকে এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয় বলে জানিয়েছে দেশটির ইংরেজি ভাষার দৈনিক ‘ডন’।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘‘আইনের মাধ্যমে কর সংক্রান্ত তথ্য সম্পূর্ণ গোপন রাখার যে নিশ্চিয়তা দেওয়া হয়েছে এটি স্পষ্টত তার লঙ্ঘন।”

গত রোববার অনুসন্ধানী নিউজ ওয়েবসাইট ফ্যাক্টফোকাস এ সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশ করে। যেখানে সেনাপ্রধান বাজওয়ার পরিবারের সদস্যদের আয়কর রিটার্ন এবং সম্পদের বিবরণীর বরাত দিয়ে বলা হয়, বাজওয়ার পরিবার গত ছয় বছরে দেশে এবং বিদেশে কোটি কোটি রুপি মূল্যের সম্পদের পাহাড় গড়েছেন।

অর্থমন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘‘এখন পর্যন্ত অজ্ঞাত কর্মকর্তাদের এই গুরুতর ত্রুটির পরিপ্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী ইশাক ধর প্রধানমন্ত্রীর রাজস্ব সংক্রান্ত বিশেষ সহকারী তারিক মেহমুদ পাশাকে অবিলম্বে ব্যক্তিগতভাবে কর আইন লঙ্ঘন এবং অবৈধভাবে ফেডারেল বোর্ড অব রেভিনিউ (এফবিআর) এর তথ্য সুরক্ষা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে শুরু হওয়া এই তদন্তে নেতৃত্ব দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এর পেছনে কারা দায়ী তাদের খুঁজে বের করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন পেশ করতেও বলা হয়েছে।”

ফ্যাক্টফোকাস নিজেদের পাকিস্তান ভিত্তিক ডিজিটাল মিডিয়া নিউজ অর্গানাইজেশন বলে দাবি করে। যারা মূলত ডেটার উপর নির্ভর করে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

ওয়েবসাইটটি এর আগেও পাকিস্তানের বিভিন্ন নেতা এবং গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরে কাজ করা প্রভাবশালী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ‘তহবিলের অপব্যবহার’ করার বিস্তারিত নানা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যাদের মধ্যে সাবেক প্রধানমন্ত্রী পিটিআই নেতা ইমরান খান এবং সাবেক সেনাপ্রধান পারভেজ মোশাররফও রয়েছেন।

২০২০ ‍সালে ওয়েবসাইটটি চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর কর্তৃপক্ষের সাবেক চেয়ারম্যান লেফটেন্যান্ট জেনারেল অবসরপ্র্রাপ্ত অসিম সেলিম বাজওয়া ও তার পরিবারের বিদেশের মাটিতে কথিত সম্পত্তি ও ব্যবসা সম্পর্কিত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল।

এছাড়ও, গতবছর ‍তারা দাবি করেছিল, তাদের হাতে পাকিস্তানের সাবেক প্রধান বিচারপতি সাকিব নিসারের কথোপকথনের একটি অডিও রেকর্ড আছে। যেখানে বিচারপতি নিসার দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এবং তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজকে দোষী সাব্যস্ত করার নির্দেশ দিচ্ছেন।

সেনাপ্রধান বাজওয়ার পরিবারের কর রেকর্ড নিয়ে তাদের সর্বশেষ প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, পাকিস্তানের ভেতরে এবং বাইরে ওই পরিবারের সম্পদ ও ব্যবসার বর্তমান বাজার মূল্য ১২৭০ কোটি রুপি। এবং ওই সম্পদ তারা ২০১৩ সাল থেকে ২০২১ সালের মধ্যে গড়েছেন বলেও প্রতিবেদনে দাবি করা হয়।

তার মধ্যে জেনারেল বাজওয়ার স্ত্রী আয়েশা আমজাদের সম্পদ ২০১৬ সালে শূন্য থেকে ছয় বছরের মধ্যে দুইশ ২০ কোটিতে (জ্ঞাত এবং ঘোষিত সম্পদ) দাঁড়িয়েছে। প্রতিবেদনের শুরুতে বলা হয়, এ হিসাবের মধ্যে সেনাবাহিনী থেকে তার স্বামীকে দেওয়া আবাসিক প্লট, বাণিজ্যিক প্লট এবং বাড়ি অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

জেনারেল বাজওয়ার ছেলের বউ মাহনূর সাবিরের সম্পদ ২০১৮ সালের অক্টোবরের শেষ সপ্তাহেও শূন্য ছিল এবং ওই বছর নভেম্বরের ২ তারিখে গিয়ে ১২৭ কোটি ১০ লাখ রুপিতে দাঁড়ায়। আর মাহনূরের বোন হামনা নাসেরের সম্পদ ২০১৬ সালে শূন্য থেকে ২০১৭ সালে কয়েকশ কোটি রুপি হয়।

শুধু তাই নয়। বাজওয়ার ছেলের শ্বশুর সাবির হামেদের সম্পদ যেখানে ২০১৩ সালেও ১০ লাখ রুপির কম ছিল সেটা কয়েক বছরে একশ কোটি রুপি ছাড়ায় বলে ওই ওয়েবসাইটে দাবি করা হয়।

তবে জেনারেল বাজওয়ার দুই ছেলে কি পরিমাণ সম্পদের ‍মালিক তারা সে তথ্য হাতে পেতে ব্যর্থ হয়েছেন বলেও ওয়েবসাইটি তাদের খবরে জানায়।

ফ্যাক্টফোকাস আরও দাবি করেছে, জেনারেল বাজওয়ার পরিবারের সম্পদ নিয়ে খবর প্রকাশের পর তাদের ওয়েবসাইটিতে দর্শক প্রবেশে বাধা দেওয়া হচ্ছে। এমনকী সেটিকে ‘নিষিদ্ধও’ করা হয়েছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক